সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

জগন্নাথপুরে পরীক্ষা দিতে পারেনি ৯ পিএসসি শিক্ষার্থী কে নিবে দায় ?

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৭
  • ২৮ Time View

কামরুল ইসলাম মাহি:: জগন্নাথপুরে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের গাফলাতির কারণে এবারে অনুষ্টিত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরিক্ষা (পিএসসিতে) অংশ নিতে পারেনি নয় জন ক্ষুদে শিক্ষার্থী। এতে তাদের শিক্ষা জীবন অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে।
জানা গেছে, ২০১১ সালে নেদারল্যান্ড সরকারের আর্থিক সহযোগিতায় এফআইভিডিবির পরিচালনায় জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের বালিকান্দি গ্রামের মোকামপাড়ার মামুনুর রশীদ ও জেসমিন বেগমের দানকৃত ১১ শতক জমির উপরে প্রতিষ্ঠিত হয় মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বিদ্যালয়টি স্থাপিত হওয়ার পর থেকে দায়িত্বে ছিল এফআইভিডিবি। এরপর প্রায় আট মাস এফআইভিডিবির তত্ত্বাবধায়নে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম চলে। এফআইভিডি চলে গেলে গ্রামবাসীর সহযোগিতায় ও প্রবাসীদের অর্থায়নে ৩ বছর বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছিল। কিন্তু হঠাৎ করে প্রবাসীদের অর্থের যোগান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শিক্ষকরা গত ৮ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে বিদ্যালয়টি। এরকম বিভিন্ন সমস্যার কারণে এবারের অনুষ্টিত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি নয় জন ক্ষুদে শিক্ষর্থী।

শিক্ষার্থীরা হল- মামুন রশীদ, ফাহিমা বেগম, লিজা বেগম, অঞ্জনা বেগম, মাহবুবুর রহমান, তামান্ন বেগম, রুমি বেগম, সুমি বেগম, আকলিমা বেগম।

সমাপনী পরীক্ষায় অংশ না নিতে পারা শিক্ষার্থীদের অভিবাবকরা বলছেন, তারা বার বার বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এতে কোন গুরুত্ব দেয়নি।

পরীক্ষায় অংশগগ্রহন করতে না পারা মামুন রশীদ নামে এক পরীক্ষার্থীর সাথে কথা হলে সে বলে, আমার অনেক বন্ধুরা পরিক্ষা দিচ্ছে। কিন্তু আমি পরীক্ষা দিতে পারলাম না। তাই মনটা খুব খারাপ।

এব্যাপারে বিদ্যালয়ের শিক্ষক আলমগীর হোসেন জানান, বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আট মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। কিন্তু সমাপনী পরীক্ষার্থীরদের কথা তারা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির সাথে যোগাযোগ করেছিলেন। তবে তিনি তাতে কোন সাড়া দেননি।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আমিনুল হক তুতি বলেন, বেশ কিছুদিন যাবত আমি অসুস্থ। এর জন্য বিদ্যালয়ে কোন যোগাযোগ করতে পারিনি।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জয়নাল আবেদীন বলেন, এব্যাপারে আমি অবগত নয়। যদি বিষয়টা আগে জানতাম তবে তাদের পরীক্ষা দেওয়াটা নিশ্চিত করতে পারতাম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24