সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

জগন্নাথপুরে পাউবোর ৪৮ স্কিম তৈরি হয়নি এখনো কৃষকরা শংকায়

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৩৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
পানি উন্নয়ন বোর্ডের শাখা কর্মকর্তার (এসও) মাঠ পর্যায়ে জরিপ কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় জগন্নাথপুর ও ছাতক উপজেলার হাওররক্ষা বাঁধ নির্মাণ স্কিম পানি উন্নয়ন বোর্ডে পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না বলে জানা গেছে। এই দুই উপজেলায় ৫১ টি প্রকল্প এখন পর্যন্ত তৈরি করা সম্ভব হয় নি বলে জানা গেছে। এ কারণে উপজেলা দু’টোয় ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ কাজের বিষয়টি শুরুতেই ঝুলে গেছে।
জেলার অন্য ৯টি উপজেলার অনুন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত করার জন্য অতিরিক্ত আরো ৪৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা বরাদ্দের জন্য ৬১৫ টি প্রকল্প আজ মঙ্গলবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালকের নিকট পাঠানো হবে। তবে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে পাউবো থেকে ইতোমধ্যে ২৮ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ছাড় হয়েছে।
ওই ৬১৫টি প্রকল্প ও বরাদ্দ পানি উন্নয়ন বোর্ডে পাঠানোর জন্য সোমবার জেলা কমিটির সভায় যাচাই-বাছাই শেষে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর আগে রবিবার বিকালে জেলা কমিটির সভায় এসব প্রকল্প নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়।
জগন্নাথপুর উপজেলার ৪৮ টি ও ছাতকের ৩ টি স্কিমের প্রাথমিক জরিপ ও বরাদ্দ নির্ণয় শেষ না হওয়ায় জেলা কমিটি তা অনুমোদন দেননি ।
জগন্নাথপুরের ৪৮টি স্কিমের জন্য প্রাথমিকভাবে ৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা ও ছাতকের ৩টি প্রকল্পের জন্য আড়াই কোটি বরাদ্দ চাওয়া হয়েছিল বলে জানা গেছে।
যেসব স্কিম অনুমোদনের ঢাকায় পাঠানো হবে সেগুলো হল, সদর উপজেলার ৪৯টি-বরাদ্দ ৫ কোটি ৩৪ লাখ টাকা, বিশ্বম্ভরপুরের ২৭টি-বরাদ্দ ৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা, জামালগঞ্জের ১১৪টি -বরাদ্দ ১০ কেটি ২৭ লাখ টাকা, তাহিরপুরের ৭৮টি-বরাদ্দ ৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা, ধর্মপাশার ১১২ টি-বরাদ্দ ১১ কোটি ৭৭ লাখ টাকা, দিরাইয়ের ৭১ টি-বরাদ্দ ১০ কোটি ৩১ লাখ টাকা, শাল্লার ৭২ টি-বরাদ্দ ৭ কোটি ৬১ লাখ টাকা ও দোয়ারাবাজারের ৪৭টি-বরাদ্দ ৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। এসব স্কিম ও স্কিমের বিপরীতে চাহিদামত অর্থ বরাদ্দের জন্য আজ পানি উন্নয়ন বোর্ডে পাঠানো হবে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক মো, সাবিরুল ইসলাম ও সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড পওর বিভাগ-১ এর নির্বাহী পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া।
এছাড়া ওই অতিরিক্ত বরাদ্দ দ্রুত ছাড়ের জন্য সোমবার পানিসম্পদ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মমতাজ উদ্দনের সাথে নিজে কথা বলেছেন বলে জােিয়ছেন, সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড পওর বিভাগ-১ এর নির্বাহী পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া।
ছাতকের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাছির উল্লাহ খান বলেন,‘আমাদের উপজেলার পাউবোর শাখা কর্মকর্তা না থাকার কারণে কাজ করতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। শাখা কর্মকর্তা ১২ তারিখ যোগদান করেছেন এবং কাজ শুরু করেছেন। আমরা আশা করি খুব দ্রুত সব কাজ সম্পন্ন করতে পারব।’
জগন্নাথপুরের পাউবোর শাখা কর্মকর্তা উপ সহকারি প্রকৌশলী ফয়েজ উল্লাহ বলেন,‘আমার আওতায় অনেকগুলো হাওর, একাই সব কাজ করে যাচ্ছি। আমি দিনে-রাতে কাজ করছি। কাজ বেশী হওয়ায় শেষ করতে বিলম্ব হচ্ছে।’
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন,‘ আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি, কিন্তু পাউবোর কর্মকর্তাদের কারণে এসব কাজে দেরি হচ্ছে। তবে আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যেই কাজ শেষ করতে পারব। ’
পাউবোর সুনামগঞ্জ পওর বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া বলেন,‘অনুন্নয়ন খাতের বরাদ্দ থেকে গত বছরের ঠিকাদারদের অসমাপ্ত কাজগুলো এইবার পিআইসি দিয়ে সমাপ্ত করার জন্য ২৮ কোটি ৮৮ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়েছে, তবে এই কাজগুলো সম্পন্ন করতে আরো বরাদ্দের প্রয়োজন। তাই ৯ উপজেলা কমিটির সুপারিশকৃত প্রকল্পগুলোর জন্য আরো ৪৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা বরাদ্দের জন্য প্রকল্পগুলোর তালিকা ও বরাদ্দের পরিমাণ পানি উন্নয়ন বোর্ডে পাঠানো হবে। কাজ শেষ না হওয়ায় ছাতক ও দোয়ারাবাজারের কিছু প্রকল্প পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে মন্ত্রী মহোদয় ও ডিজি স্যার অর্থ বরাদ্দের আশ্বাস প্রদান করেছেন। ’
পওর বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাহিনুজ্জামান বলেন,‘ছাতকের অফিসার নতুন যোগদান করেছেন। নানা কারণে ছাতক ও জগন্নাথপুরের কাজ করতে কিছুটা সময় লেগেছে। ২টি উপজেলা ছাড়া অন্য উপজেলার সকল হাওরের কাজ শেষ। আজ ছাতকের প্রকল্পগুলোর তালিকা পেয়ে যাব। আজ মঙ্গলবার সকালেই জগন্নাথপুরে যাব, সরেজমিনে প্রকল্প পরিদর্শন করব। আশা করি তাড়াতাড়ি সব কাজ শেষ করা সম্ভব হবে। একসাথে পাঠানোর জন্য প্রয়োজনে দু’একদিন পর সব উপজেলার প্রকল্প একসাথে পানি উন্নœয়ন বোর্ডে পাঠানো হবে।’
পাউবোর কাবিটা প্রকল্প বাস্তবায়ন ও মনিটরিং জেলা কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুর ইসলাম বলেন,‘ জগন্নাথপুর ও ছাতক উপজেলা ছাড়া অন্য সকল উপজেলার উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন এবং বরাদ্দ প্রদানের প্রস্তাব আজ মঙ্গলবার পানি উন্নয়ন বোর্ডে পাঠানো হবে। যেগুলো বাকী রয়েছে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সেগুলোও পাঠানো হবে। একই সাথে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সকল পিআইসি গঠনের জন্য সকল ইউএনওদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24