সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুরে প্রবাসীর দ্বিতীয় স্ত্রী সুজিনা খুনের ঘটনায় প্রথম স্ত্রী সাবিনাসহ ৪জনে্র নামে হত্যা মামলা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০১৫
  • ৬৮ Time View

স্টাফ রিপের্টার:: জগন্নাথপুরের যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্ত্রী সুজিনা বেগম কে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। নিহতের মামা ক্বারী আব্দুন নূর বাদি হয়ে নিহতের স্বামীর প্রথম স্ত্রী সতিন সাবিনা বেগমসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে, হত্যার ক্লু-এখনও উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। ধারনা করা হচ্ছে বিয়ে সংক্রান্ত পূবে বিরোধের জের ধরে অতিথি সিজে বাড়িতে গিয়ে সুজিনাকে হত্যা করা হয়। সুজিনা হত্যার পর থেকে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথসহ প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটের গন্ডি পেরিয়ে প্রবাসে এনিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। হত্যার ক্লু উদঘাটন করে আসামী দ্রুত গ্রেফতারে জোর দাবী উঠেছে।
উল্লেখ্য রবিবার সন্ধ্যায় অতিথি পরিচয়ে হাতে বনফুলের মিষ্টির বক্স নিয়ে সুজিনার পিতার বাড়ি বিশ্বনাথের দৌলতপুর আসে অজ্ঞাতনামা ৪ ঘাতক। ঘাতকরা দরজায় নক করলে সুজিনার মা তাদের পরিচয় জানতে চাইলে তারা জানায় সুজিনার স্বামী মুরাদের পূর্ব পরিচিত। এরপর তাদেরকে বসতে দেওয়া হয় এবং তাদের জন্য সুজিনা ও তার মা রেজিয়া বেগম লাচ্ছি তৈরী করেন। কিন্ত আপ্যায়নের পূর্বেই ঘাতকরা ঝাপটে ধরে সুজিনাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করতে থাকে। এসময় সুজিনার মা এগিয়ে এলে তাকেও আঘাত করে ঘাতকরা। এক পর্যায়ে আঘাতে আঘাতে জর্জরিত সুজিনা ও তার মা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে ঘাতকরা পালিয়ে যায়। এসময় সুজিনার একমাত্র ছোট ভাই জহির উদ্দিন (১২) ঘর থেকে বের হয়ে চিৎকার শুরু করলে আশপাশ বাড়ির লোকজন ছুটে আসেন এবং সুজিনা ও তার মাকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে প্রেরণ করেন। কিন্ত হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেই সুজিনার মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্ত শেষে সোমবার রাতে সুজিনার মামার বাড়ি উপজেলার বাহাড়া দুভাগ গ্রামে তার দাফন সম্পন্ন হয়।
পথের কাটা দূর করতেই সুজিনাকে হত্যা করা হয়েছে! এমন অভিযোগ সুজিনার স্বজনদের। তাই অভিযোগের তীর এখন সুজিনার সতিন যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবিনা বেগমের দিকে। সুজিনার আত্মীয়-স্বজন, এলাকাবাসী ও থানা পুলিশসহ অনেকেই ধারনা করছেন সুজিনাকে পরিকল্পিতভাবেই হত্যা করা হয়েছে। আর এর পিছনে হাত রয়েছে সুজিনার সতিন সাবিনার। এমনটাই ধারনা করছেন অনেকেই।
জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি আব্দুল্লাহপুর গ্রামের সুন্দর আলীর মেয়ে যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবিনা বেগম। প্রায় ১৪ বছর পূর্বে পার্শ্ববর্তি শ্রীরামসি সাতহাল গ্রামের মুরাদ হোসেনের সাথে বিয়ে হয় সাবিনার। বিয়ের পর তাদের পরিবারের জন্ম নেয় একে একে ৩টি সন্তান। বিয়ের প্রায় ৫বছর পর থেকে সাবিনা-মুরাদের মধ্যে সৃষ্টি হয় মনোমালিন্য। একপর্যায়ে পৃথক বসবাস শুরু করেন সাবিনা ও মুরাদ। কয়েক বছর ধরে এই বিরোধ আরো জটিল হয়ে পড়ে। এরপর প্রায় সাড়ে ৬মাস পূর্বে দেশে এসে সুজিনাকে বিয়ে করেন মুরাদ। আর এই বিয়েটাকে কিছুতেই মেনে নিতে পারেন নি মুরাদের প্রথম স্ত্রী সাবিনা। মুরাদ বিয়ে করে লন্ডন চলে যাবার পর দেশে আসেন সাবিনাও। এসময় মুরাদ-সুজিনার বিয়ে ভেঙ্গে দিতে মুরাদের পরিবারকে চাপ সৃষ্টি করেন সাবিনা। কিন্ত এই চাপের কাছে কিছুতেই রাজি হননি মুরাদের পরিবার। এরপর প্রায় ১মাস দেশে অবস্থান করে লন্ডন চলে যান সাবিনা। থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সাবিনার ৪ ভাইয়ের মধ্যে আপন ভাই সাজ্জাদ হোসেন (২৮) ও শাহাজান মিয়া (৩৩), সৎ ভাই শুকুর আলী (৫৫) ও জুনাব আলী (৫২)। জুনাব আলী এলাকার চিহিৃত একজন ডাকাত। তার বিরুদ্ধে একাধিক ডাকাতি মামলা রয়েছে। এছাড়া শাহজাহানকে তার মা নিজেই নেশাদ্রব্য সেবনের অভিযোগে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। সে বর্তমানে জেলহাজতে আটক রয়েছে।
সুজিনাকে হত্যার ঘটনায় তার মামা ক্বারী আব্দুন নূর বাদি হয়ে মঙ্গলবার সুজিনার সতিন সাবিনা বেগমসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে ও আরো ৪/৫ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলা নং ১৪।
বিশ্বনাথ থানার ওসি রফিকুল হোসেন বলেন, যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্ত্রী সুজিনা হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে পুলিশ কাজ করছে। মামলার সূত্র ধরে পুলিশ এগিয়ে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24