জগন্নাথপুরে বন্যার পানিতে ভেসে গেছে কয়েক লাখ মাছ, খামারীরা আতঙ্কে,

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে মাছ খামারীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। খামারের মাছ নিয়ে এখন ঘুম নেই তাদের চোখে। গত দুই/তিন দিনে কমপক্ষে ১৫টি মাছের ফিসারি থেকে কয়েকলাখ মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। হঠাৎ করে পানি বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার মাছ খামারীদের এখন দুশ্চিন্তায় কাটছে দিন।।
তবে আজ বৃহস্পতিবার পানি একটি কমতে শুরু করায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে খামারীদের মধ্যে।
মাছ-খামারীরা জানান, এ উপজেলায় অর্ধশতাধিক মাছের ফিসারি রয়েছে। গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে উপজেলার কয়েকটি মাছের ফিসারির কয়েক লাখ মাছ পানিতে ভেসে গেছে। উপজেলার রানীগঞ্জ, আশাকান্দি, পাইলগাঁও ও পৌরএলাকার একাংশের প্রায় ১৫টি মাছের খামার থেকে মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এতে প্রায় ১৫।২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ খামারীরা জানিয়েছেন।
বন্যায় ক্ষতি পৌরশহরের হাসিনাবাদ এলাকায় মাছ খামারী আমিনুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৬০ কেদার জমিনে ২০/২৫ লাখ টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করেছি। গত কয়েকদিনের বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলে ফিসারী থেকে বন্যার পানিতে প্রায় ৭ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে।
একই এলাকার পিংলা হাওরের মাছ খামারী নুর মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৬ কেদার জমিতে বিভিন্নজাতে ১০ লাখ পোনামাছ ছিল। আকস্মিকভাবে বন্যায় প্রায় ২ লাখ টাকার পোনামাছ ভেসে গেছে।
মইয়ার হাওরস্থ হবিবনগর এলাকায় একটি মাছের ফিসারীর মালিক মুরাদ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, অবিরামবৃষ্টিপাতে ও পাহারী ঢলে ফিসারি থেকে দেড় লাখ টাকার মাছ বেরিয়ে গেছে। ফিসারির অবশিষ্ট মাছ রক্ষায় খামারীরের চারপাশে জালের নেট ব্যবহার করে কোনভাবে ফিরাসি হেজাফত করে রেখেছি।
রানীগঞ্জ ইউনিয়নের কুবারপুর এলাকার মাছ-চাষি আরাফত আলী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কয়েকজন মৎস্যজীবি নিয়ে ২৪ কেদার জমিতে ফিসারি করেছি। রুই, তেলাপিয়াসহ বিভিন্ন জাতের ১৫ লাখ টাকার মাছ ছিল ফিসারিতে। এর মধ্যে বন্যার পানিতে ২ লাখ টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। দিরারাত্রি খামারপাহারায় থাকি। বন্যার পানি এখনও কমেনি। ফিসারির মাছ নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে সময় কাটতে। কখন কী হয়।
উপজেলা মৎস্য অফিস সুত্র জানায়, জগন্নাথপুরে ৩২টি মাছের খামার রয়েছে। বন্যায় এ উপজেলার রানীগঞ্জ, আশারকান্দি, পাইলগাঁ ও পৌরএলাকার কিছু অংশে ৪০ হেক্টরের ফিসারির মাছ পানিতে ভেসে গেছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ওয়াহিদুল আবরার জগন্নাথপুর টিয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে মাছের ফিসারীর চাষীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বন্যায়। এতে ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে নির্ণয় করা হয়েছে। পৌএলাকায় সামান্য কিছু ফিসারীতে ক্ষতি হয়েছে। তবে বন্যার পরিস্থিত এখন একটা ভালো দেখা যাচ্ছে। তারপরও আমরা সার্বক্ষনিতভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করছি। এদিকে উপজেরার আশারকান্দি ইউনিয়নের উত্তর কালনিচর, শুকলাম্বরপুর, মিলিক, দাওরাই, কাকবলী, পাঠকুরা, জয়দা, শেওরা, মিঠাভরাং, ঐয়ারকোণা, ফেচি, নোয়াগাঁও, বুরাইয়া, সম্ভপুর,তাজপুর, শ্রীকৃষ্ণপুর, হবিপুর, জামালপুর, রুপসপুর, সুরতনপুর, ফেচিশেওরা, পাইলগাঁই ইউনিয়নের নতুন কসবা, জালালপুর, পূর্ব কাতিয়া, কাতিয়া, বড় ফেচিবাজার, রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রানীগঞ্জ বাজার ও পৌরএলাকার একাংশসহ ৫০ গ্রাম ৪০টি গ্রামে বন্যার পানি কমেনি। এছাড়া বন্যার কারনে ৩২টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। পানিতে ডুবে গেছে এছাড়া ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজারের সড়ক ও জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়কসহ অসংখ্য গ্রামীন রাস্তা-ঘাট।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমরা বন্যাকবলিত এলাকার সার্বিক খোঁজ খবর রাখছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত দুই শতাধিক

» ‘জনপ্রশাসন পদক’ পেলেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো: সাবিরুল ইসলাম

» মৃত্যুের ৩২ বছর পরও লাশ অজ্ঞত!

» চিকিৎসকদের নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন হাইকোর্টের

» জগন্নাথপুরে প্রভুপাদ শ্রীশ্রীকৃষ্ণ চরণ গোস্বামীর আর্বিভাব তিথি পালিত

» মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন ৩৮ বীরাঙ্গনা

» সংস্কারের অভাবে জৌলুস হারাচ্ছে জগন্নাথপুরের পাইলগাঁও জমিদারবাড়ী

» নিহত সন্তানদের দাফনের অধিকার দাবীতে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ

» ছাতকের সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

» মৌলভীবাজারে মানবতাবিরোধী অপরাধে চারজনের মৃত্যুদন্ড

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে বন্যার পানিতে ভেসে গেছে কয়েক লাখ মাছ, খামারীরা আতঙ্কে,

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে মাছ খামারীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। খামারের মাছ নিয়ে এখন ঘুম নেই তাদের চোখে। গত দুই/তিন দিনে কমপক্ষে ১৫টি মাছের ফিসারি থেকে কয়েকলাখ মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। হঠাৎ করে পানি বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার মাছ খামারীদের এখন দুশ্চিন্তায় কাটছে দিন।।
তবে আজ বৃহস্পতিবার পানি একটি কমতে শুরু করায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে খামারীদের মধ্যে।
মাছ-খামারীরা জানান, এ উপজেলায় অর্ধশতাধিক মাছের ফিসারি রয়েছে। গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে উপজেলার কয়েকটি মাছের ফিসারির কয়েক লাখ মাছ পানিতে ভেসে গেছে। উপজেলার রানীগঞ্জ, আশাকান্দি, পাইলগাঁও ও পৌরএলাকার একাংশের প্রায় ১৫টি মাছের খামার থেকে মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এতে প্রায় ১৫।২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ খামারীরা জানিয়েছেন।
বন্যায় ক্ষতি পৌরশহরের হাসিনাবাদ এলাকায় মাছ খামারী আমিনুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৬০ কেদার জমিনে ২০/২৫ লাখ টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করেছি। গত কয়েকদিনের বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢলে ফিসারী থেকে বন্যার পানিতে প্রায় ৭ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে।
একই এলাকার পিংলা হাওরের মাছ খামারী নুর মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৬ কেদার জমিতে বিভিন্নজাতে ১০ লাখ পোনামাছ ছিল। আকস্মিকভাবে বন্যায় প্রায় ২ লাখ টাকার পোনামাছ ভেসে গেছে।
মইয়ার হাওরস্থ হবিবনগর এলাকায় একটি মাছের ফিসারীর মালিক মুরাদ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, অবিরামবৃষ্টিপাতে ও পাহারী ঢলে ফিসারি থেকে দেড় লাখ টাকার মাছ বেরিয়ে গেছে। ফিসারির অবশিষ্ট মাছ রক্ষায় খামারীরের চারপাশে জালের নেট ব্যবহার করে কোনভাবে ফিরাসি হেজাফত করে রেখেছি।
রানীগঞ্জ ইউনিয়নের কুবারপুর এলাকার মাছ-চাষি আরাফত আলী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কয়েকজন মৎস্যজীবি নিয়ে ২৪ কেদার জমিতে ফিসারি করেছি। রুই, তেলাপিয়াসহ বিভিন্ন জাতের ১৫ লাখ টাকার মাছ ছিল ফিসারিতে। এর মধ্যে বন্যার পানিতে ২ লাখ টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। দিরারাত্রি খামারপাহারায় থাকি। বন্যার পানি এখনও কমেনি। ফিসারির মাছ নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে সময় কাটতে। কখন কী হয়।
উপজেলা মৎস্য অফিস সুত্র জানায়, জগন্নাথপুরে ৩২টি মাছের খামার রয়েছে। বন্যায় এ উপজেলার রানীগঞ্জ, আশারকান্দি, পাইলগাঁ ও পৌরএলাকার কিছু অংশে ৪০ হেক্টরের ফিসারির মাছ পানিতে ভেসে গেছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ওয়াহিদুল আবরার জগন্নাথপুর টিয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে মাছের ফিসারীর চাষীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বন্যায়। এতে ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে নির্ণয় করা হয়েছে। পৌএলাকায় সামান্য কিছু ফিসারীতে ক্ষতি হয়েছে। তবে বন্যার পরিস্থিত এখন একটা ভালো দেখা যাচ্ছে। তারপরও আমরা সার্বক্ষনিতভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করছি। এদিকে উপজেরার আশারকান্দি ইউনিয়নের উত্তর কালনিচর, শুকলাম্বরপুর, মিলিক, দাওরাই, কাকবলী, পাঠকুরা, জয়দা, শেওরা, মিঠাভরাং, ঐয়ারকোণা, ফেচি, নোয়াগাঁও, বুরাইয়া, সম্ভপুর,তাজপুর, শ্রীকৃষ্ণপুর, হবিপুর, জামালপুর, রুপসপুর, সুরতনপুর, ফেচিশেওরা, পাইলগাঁই ইউনিয়নের নতুন কসবা, জালালপুর, পূর্ব কাতিয়া, কাতিয়া, বড় ফেচিবাজার, রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রানীগঞ্জ বাজার ও পৌরএলাকার একাংশসহ ৫০ গ্রাম ৪০টি গ্রামে বন্যার পানি কমেনি। এছাড়া বন্যার কারনে ৩২টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। পানিতে ডুবে গেছে এছাড়া ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজারের সড়ক ও জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়কসহ অসংখ্য গ্রামীন রাস্তা-ঘাট।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমরা বন্যাকবলিত এলাকার সার্বিক খোঁজ খবর রাখছি।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।