শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১১ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে হাওরের ফসল রক্ষায় লড়ছেন কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩১ মার্চ, ২০১৭
  • ৮৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার :: নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফসল রক্ষার বাঁধগুলোতে সংস্কার কাজ শেষ না হওয়ায় এবং হঠাৎ করে নদ নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধগুলো এখন মারাত্মকঝুঁকিতে পড়েছে। গত দুই দিন ধরে ঝুঁকিপূর্ন বাঁধগুলোতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে সংস্কার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন স্থানীয় কৃষকরা। কিন্তুু কতটুকু রক্ষা করা সম্ভব হবে এনিয়ে শংকা বিরাজ করছে। শুক্রবার উপজেলার সর্ববৃহৎ নলুয়া ও মইয়ার হাওর পরিদর্শনকালে
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, কয়েকদিনের ভারি বৃষ্টিতে ও পাহাড়ি ঢলে হাওরে পানি ঢুকার উপক্রম হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ন বাধগুলো রক্ষায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কৃষকদেরকে নিয়ে প্রানপণ চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন,বেড়িবাঁধ রক্ষায় পাউবোর মাঠ কর্মকর্তারা মাঠে থাকলেও হাওরের বেড়িবাঁধ রক্ষায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না।

কৃষকরা জানান, চলতি বোরো মৌসুমে জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরের ফসল রক্ষায় ঠিকাদারের মাধ্যমে প্রায় চার কোটি টাকা ও পিআইসির মাধ্যমে দুই কোটি টাকার কাজ হওয়ার কথা। কিন্তুু ঠিকাদারদের কাজে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি হয়েছে। ঠিকাদাররা নামমাত্র কাজ করে হাওর অরক্ষিত রেখে চলে গেছে। মই হাওরের নারিকেল তলা এলাকায় ঠিকাদার সঞ্জিব রঞ্জন দাশের কাজ অসর্ম্পন থাকায় স্থানীয় ইউপি সদস্যদের প্রচেষ্ঠায় তা সম্পন্ন করার কাজ চলছে।
চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান,হাওরের বেড়িবাঁধ রক্ষায় হাওরের কৃষকরা প্রানান্তকর প্রচেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। অনেকেই স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছেন। তিনি বলেন,আমরা যারা জনপ্রতিনিধি হিসেবে পিআইসির দায়িত্ব পালন করছি আমরা দিন রাত হাওরে কৃষকদের পাশে আছি। কিন্তুু ঠিকাদারদেরকে পাওয়া যাচ্ছে না। ঠিকাদারদের কাজের কারণেই হাওর ঝুঁকিতে রয়েছে।
হাওর রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের নেতা শহিদুল ইসলাম বকুল জানান, নলুয়ার হাওরের কাপনার কান্দির থেকে নলুয়ার হাওরের মাঝদাগ ও হাওরের ডুবি পর্যন্ত কমপক্ষে ১০০একর সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কমপক্ষে ২০০ একর জমির কাচা ও আধা পাকা ফসল ইতিমধ্যে তলিয়ে গেছে। বকুলসহ কৃষকনেতাদের আশংকা যেভাবে নদীর পানি বাড়ছে হাওর কতটুকু রক্ষা হবে বলা যাচ্ছে না। কারণ এবছর নলুয়ার হাওরের ভূরাখালি থেকে শালিকা বেড়িবাঁধ পর্যন্ত শুধুমাত্র গর্ত ভরাটের কাজ হয়েছে। পুরো বেড়িবাঁধের কাজ না হওয়ায় নলুয়ার হাওর অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোসাদ্দেক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,জগন্নাথপুরের হাওরগুলো রক্ষায় আমরা এখনো মাঠে সবাইকে নিয়ে কাজ করছি। পাহাড়ি ঢলের পানি আর বৃদ্ধি না হলে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে সমস্যা হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24