বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:৩৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের গর্তে দুইটি মালবাহী ট্রাক,রোববার থেকে যানচলাচল বন্ধ থাকবে

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯
  • ৭৬০ Time View

সংস্কারহীন জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কে ভাঙা গর্তে দুইটি মালবোঝাই ট্রাক আটকে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। ফলে সড়কে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন জনসাধারণ।
আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কের জগন্নাথপুর পৌরশহরের হামজা কমিউনিটি সেন্টারের সামনে ভাঙা গর্তে দুইটি ট্রাক পড়ে আটকে যায়। এ কারণে ওই সড়কে সরাসরি যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (দুপুর দুই টা)। সড়কের গর্তে ট্রাক দুইটি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। উপজেলা সদরের সঙ্গে টানা ৬ ঘন্টা ধরে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এজন্য দুর্ভোগের শিকার হন পথচারিরা। এদিকে সড়কের সংস্কার দাবীতে আগামীকাল রোববার (১৪ জুলাই) থেকে অনিদিষ্টকালের জন্য এ সড়কে সবধরনের যান  চলাচল বন্ধ থাকবে বলে  ঘোষনা দিয়েছে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।
এলাকাবাসী ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, সিলেট বিভাগীয় শহরসহ ঢাকার রাজধানীর সঙ্গে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলাবাসী জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে আসছেন। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে সড়কজুড়ে ভাঙাচোর,খানাখন্দ আর অসংখ্যা গর্ত সৃষ্টি হয়ে বেহালদশা বিরাজ করছে। প্রায় প্রতিদিনই সড়কের বিভিন্ন গর্তে ভারী যানবাহন পড়ে আটকে যায়। যে কারণে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজট সৃষ্টি হয়ে বিঘিœত ঘটে যানচলাচল। ২০১৭ সালে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের জগন্নাথপুরের ১৩ কিলোমিটার অংশ সংস্কারের জন্য প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। এ কাজটি পান সুনামগঞ্জের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স নূরা এন্টারপ্রাইজ। ওই প্রতিষ্ঠান কিছু কাজ করে বন্ধ করে দেয়। এরপর স্থানীয় এলজিইডির তত্ত্বাবধান নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে নামমাত্র কাজ করে অর্থ লুট করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ উঠে কাজের তিন মাসের মাথায় সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দেয়। দীর্ঘকাল থেকে এ সড়কের কাজের নামে সরকারী অর্থ লুট করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠে আসছে। চলতি বছর সড়কের বেহাল দশা দেখা দিলে মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। পরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর গত মে মাসে সড়কে অস্থায়ী মেরামতের জন্য ১৩ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। এ কাজ পায় সুনামগঞ্জের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স রেনু এন্টারপ্রাইজ। ঈদুল ফিতরের আগে দিন (৪ জুুন) সড়কের হামজা কমিউনিটি সেন্টারের সামনে যৎসামান্য মেরামত করা হয়। কাজটি প্রথমে জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা শুনা গেলেও পরে কর্তৃপক্ষ জানায় চলতি মাসের ২৩ জুলাই অস্থায়ী মেরামতের কাজ সম্পন্ন হবে। গত দুই মাসেও ১৩ লাখ টাকার জরুরি মেরামত কাজ শেষ না হওয়ায় নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
এ সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়ত যাতায়াতকারী নিকেশ বৈদ্য জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সংস্কারের অভাবে প্রায় অচল হয়ে পড়েছে জগন্নাথপুরবাসীর প্রধান এই সড়কটি। ভাঙাচোরা আর অসংখ্যা গর্তে সীমাহীন দুর্ভোগের মধ্যে চলাফেরা করতে হচ্ছে আমাদেরকে। কবে এই মরণযন্ত্রনা শেষ হবে জানি না। তোফাজ্জল হোসেন সুমন নামে আরেক যাতায়াতকারী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ সড়কে জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে সংস্কার কাজের জন্য সরকার অর্থ বরাদ্দ দিলেও মানমাত্র করে করে অর্থলুট করা হচ্ছে । এসড়কের দুর্নীতি কি দুদকের চোখে পড়ে না।
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদ-সিলেট সড়কের পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি নিজামুল করিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বর্তমানে সড়কে যানবাহন চলাচল অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। সড়কে বিরাজমান অসংখ্যা গর্তে যানবাহন পড়ে আটকে যায়।এতে

নষ্ট হচ্ছে গাড়ীর যন্ত্রাংশ। তাই পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সিদ্ধান্ত অনুয়ায়ী জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের সংস্কার কাজ না হয়ে রোববার থেকে অনিদিষ্টকালেল জন্য মিনিবাসসহ সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকবে।
স্থানীয় সরকার অধিদপ্তরের জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ার জগন্নাথপুর টুয়েনিন্টফোর ডটকমকে বলেন, গর্তে আটকে পড়া ট্রাক দুইটি অপসারণের জন্য লোকজন পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে সংস্কার কাজের জন্য আমরা ২০কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24