সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যার পর কেঁদেছিল জগন্নাথপুরবাসী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৫
  • ১০৯ Time View

উপজেলার সর্বত্র ছিল আতঙ্ক আর শোকবিহ্বল অবস্থা-
জগন্নাখপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:; ৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর জগন্নাথপুর উপজেলাবাসী ছিল শোকে সম্ভিত। পুরো উপজেলা জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। জগন্নাথপুরের আকাশ ছিল সেদিন কালো মেঘে ডাকা। শোক বিহ্ববল মানুষ আতঙ্কে ঘর থেকে রাস্তায় খুব একটা বের না হলেও খবর শুনতে গ্রামের রেডিও থাকা বাড়িগুলোতে ভীড় জমায়। দলীয় নেতাকর্মীরা অনেকেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। বিকেলে আওয়ামীলীগের তৎৎকালীন নেতাকর্মীরা জগন্নাথপুর বাজারের ডাঃ সুধীর গোপের দোকানের সমবেত হয়ে একে অন্যে শোক ভাগাভাগি করেন । এসময় আওয়ামীলীগ নেতা সিদ্দিক আহমদ, হারুনুর রশীদ হিরন মিয়া, নুরুল ইসলাম, বশির মিয়া,সহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্র বাজারে সমবেত হয়ে রাজপথে মিছিল করতে প্রস্তুতি নিলেও আওয়ামীলীগ নেতাদের তৎপরতায় পারেনি। ৭৫ সালের টগবগে তরুন আওয়ামীলীগ নেতা সদ্য সাবেক জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৭৫ সালে ১০ আগষ্ট ছিল আমার বিবাহ। বিয়ে আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে ১৬ আগষ্ট নতুন স্ত্রীকে নিয়ে আমার ফেরা যাত্রায় যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকালে রেডিওর সংবাদ শুনে বঙ্গবন্ধু হত্যার খবর পেয়ে সম্ভিত হয়ে যাই। দুপুরে জগন্নাথপুর বাজারে আমাদের আওয়ামীলীগ নেতাদের আড্ডাস্থল ডাঃ সুধীর বাবুর দোকানে সমবেত হই্। আমাদের নেতা সিদ্দিক আহমদের নির্দেশনায় আমরা একটি প্রতিবাদ কর্মসূচী পালনের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করি। এসময় খবর পাই স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্র জগন্নাথপুরে আনন্দ মিছিল করবে। সাথে সাথে তাদেরকে আমরা হুমকি দিয়ে খবর পাঠালে ওই চক্র পিছু ওঠে। পরবর্তীতে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক হুলিয়া দেখা দিলে আমরা এলাকা ছেড়ে চলে যাই। আমি ও বশির মিয়া( হবিবপুর গ্রামের ) আওয়ামীলীগ নেতা কিছুদিন হাওরে হাওরে নৌকায় কাটিয়েছি। এবিষয়ে কলকলিয়া ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম বলেন, সকালে রেডিওর খবর পেয়ে সম্ভিত হয়ে পড়ি। সাথে সাথে কলকলিয়া বাজারে লোকজনকে জড়ো করে মিছিলসহকারে জগন্নাথপুর উপজেলা সদরের দিকে আসার প্রস্তুতি নেই। অবস্থা থমথমে থাকায় আর জগন্নাথপুর আসতে পারিনি। তিনি জানান, পুরো জগন্নাথপুর জুড়ে শোক বিহ্বল অবস্থা বিরাজ করছিল। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যার পর জগন্নাথপুরের চিত্র সম্পকে জানতে চাইলে প্রবীণ রাজনীতিবীদ তৎকালীন জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে ৭৫ সালের ১৫ই আগষ্টের স্মৃতিচারণ করে বলেন, আওয়ামীলীগ নেতা নুরুল ইসলামের বিয়েতে আমরা স্বপবিরারে ছিলাম। মৌলবীবাজার থেকে বিয়ে শেষ করে পরিবারের সবাইকে ঘোষগাঁও নুরুল ইসলামের বাড়িতে রেখে আমি আমার বাড়ি লুদরপুরে চলে যাই। রাতে কেন জানি ঘুম হচ্ছিল না। দুই- তিন পরিশান্ত ও নিঘুম থাকার পরও ঘুম আসছিল না। কেন বার বার বিছানায় ছটফট করছিলাম। তাই রেডিও চালু করতে থাকি। হঠাৎ শেষে রাতে রেডিও বাংলাদেশ ঢাকা শুনে থমকে যাই। কারণ এসময়ে রেডিও খুলা থাকার কথা ছিল না। পরে শুনি আমি মেজর ডালিম বলছি সেই দুঃসহ ঘোষনা। সাথে সাথে আমি ঘর থেকে বের হয়ে যাই। পায়ে হেঁটে হবিবপুর গ্রামে আমাদের সহকর্মী বশির মিয়াকে ঘুম থেকে জাগ্রত করে ঘটনা বলি। এসময় তাকে নিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলা সদরে যাই। সেখানে ডাক বাংলোতে থাকা একজন পরিচিত ম্যাজিষ্ট্রেটের কাজ থেকে খবরের সত্যতা্ শুনতে গেলে তিনি নিজেও এরকম খবর পেয়েছেন বলে জানান। এবং আমাদেরকে নিরাপদে থাকার পরামর্শ দেন। পরে আমরা এসব বিষয় নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করি। এবং নেতাকর্মীদের নির্দেশনার জন্য পরদিন আমি ঢাকা চলে যাই। সেখানে কিছুদিন থাকার পর মন্ত্রী ফরিদ গাজীর সাথে দেখা করি। তিনি আমাকে বলেন, আমরা বলির পাঠা। ধৈর্য্য ধর, দেখা যাক কি হয়। তারপর এলাকায় চলে আসি। তিনি বলেন, জগন্নাথপুরে আওয়ামীলীগের পক্ষের মানুষ বেশী থাকায় এমনিতেই শোকবিহ্বল অবস্থা বিরাজ করছিল। আমাদের তৎপরতায় বিপক্ষের কোন শক্তিও মাঠে ছিল না। তবে এসময় সাধারণ মানুষের মধ্যেও আতঙ্ক দেখা দেয় বলে তিনি জানান। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর সারা দেশের মতো জগন্নাথপুরবাসীও কেঁদেছিল। কেঁদেছিল প্রকৃতিও। সেদিন জগন্নাথপুরের আকাশ ছিল কালো মেঘে ঢাকা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24