শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে প্রবাসির অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ জগন্নাথপুরের বিএন হাইস্কুলের শতবর্ষ উৎসবে-পরিকল্পনামন্ত্রী, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে:পানিসম্পদ উপমন্ত্রী জগন্নাথপুরে বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে শতবর্ষ উৎসব আজ ক্ষোভের পর আনন্দে ভাসছে ইউনিয়নবাসি জগন্নাথপুরে শতবর্ষ অনুষ্ঠানে যারা থাকছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে শনিবার আসছেন জগন্নাথপুরে বেপরোয়া অটোরিকশার চাপায় প্রাণ গেল শিশুর সিলেটে প্রভূপাদ বিশ্বরূপ গোস্বামীর দীক্ষা প্রদান ও ভাগবতীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী বিক্ষোভে জনসমুদ্র জগন্নাথপুরের সেই সেতুর সংযোগ সড়কের কাজে অনিয়মের অভিযোগ

জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ, ২০১৯
  • ২০৩ Time View
জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
আজ ২৬ মার্চ। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। বাঙালি জাতির ইতিহাসে সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন—একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম ‘বাংলাদেশ’ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। ৪৮ বছর আগে ১৯৭১ সালে আজকের এই দিনে আনুষ্ঠানিক সূচনা ঘটেছিল বাঙালির সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের।মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার  সকাল ৬টার দিকে স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ সময় বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়। গার্ড অব অনার দেয় সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিসৌধ এলাকা ত্যাগ করার পর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সর্বস্তরের মানুষের জন্য জাতীয় স্মৃতিসৌধ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে জাতীয় স্মৃতিসৌধ ভিড় করেছে সর্বস্তরের মানুষ।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের মানুষের কাছে মুক্তির প্রতিজ্ঞায় উদ্দীপ্ত হওয়ার ইতিহাস গড়ার সূচনা শুরু হয়েছিল এইদিন। ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। বাঙালি জাতির কণ্ঠ চিরতরে স্তব্ধ করতে ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে ঢাকাসহ সারাদেশে অপারেশন সার্চলাইটের নামে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর অত্যাধুনিক অস্ত্র ও ট্যাঙ্ক নিয়ে রাজপথে নেমে আসে। ঘুমন্ত নিরীহ মানুষের ওপর চালায় গণহত্যা।

ঢাকার বিভিন্ন স্থানে গোলাবর্ষণ করা হয়, অনেক স্থানে নারীদের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয় এবং অনেক স্থানে পরিকল্পিতভাবে হত্যাকাণ্ড চালানো হয়। চাপিয়ে দেয়া হয় এক অন্যায় যুদ্ধ। মুক্তিকামী বাঙালি তার কাঙ্ক্ষিত অধিকার প্রতিষ্ঠায় মুক্তি সংগ্রামে মেতে ওঠেন। রক্তে লাল হয়ে যায় ঢাকার রাজপথ। তৎকালীন পূর্ববাংলার পুলিশ, ইপিআর ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা শুরু করে প্রতিরোধ যুদ্ধ, সঙ্গে যোগ দেয় সাধারণ মানুষ। শুরু হয় রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ। দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী লড়াই আর অশেষ ত্যাগের বিনিময়ে ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয় প্রিয় স্বাধীনতা।

শত্রুমুক্ত ভূখণ্ডের নাম হয় বাংলাদেশ। মূলত বাংলাদেশিদের স্বাধীনতার স্বপ্ন ভণ্ডুল আর ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনের ফলাফলের আইনসঙ্গত অধিকারকেও রক্তের বন্যায় ডুবিয়ে দিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী শুরু করে গণহত্যা। বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে পাকিস্তানি সামরিক জান্তা ক্ষমতা হস্তান্তর না করে গণহত্যার জবাবে ক্রোধে ফেঠে পড়ে আমজনতা। সেনা অভিযানের শুরুতেই হানাদার বাহিনী বঙ্গবন্ধুকে তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে। ঢাকা সেনানিবাসের ভেতরে আদমজী কলেজ থেকে বন্দি অবস্থায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফ্ল্যাগ স্টাফ হাউজে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে সারাদিন আটক রেখে সন্ধ্যায় অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

গ্রেপ্তারের আগে বঙ্গবন্ধু ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং শত্রুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা, ৭ মার্চের ভাষণ কালুরঘাট বেতার থেকে ২৬ মার্চ তার পক্ষে সম্প্রচার করেন এ হান্নান, সুলতানুল আলম, বেলাল মোহাম্মদ, আবদুল্লাহ আল-ফারুক, আবুল কাশেম সন্দ্বীপ, কবি আবদুস সালাম এবং মাহমুদ হাসান।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু ঘোষিত বাংলাদেশের স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হ্যান্ডবিল আকারে ইংরেজি ও বাংলায় ছাপিয়ে চট্টগ্রামে বিলি এবং মাইকিং করা হয়। ২৭ মার্চ মেজর জিয়াউর রহমান চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় আজ ৪৮তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করছে গোটা জাতি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24