মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের!

জেলার রাজনীতি : সুনামগঞ্জের ৫টি আসনে আ.লীগ দল না গুছিয়ে নেতারা ব্যস্ত নির্বাচনী প্রচারণায়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৭ জুলাই, ২০১৭
  • ৩২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
হযবরল দলকে সংগঠিত করার বদলে সুনামগঞ্জ আওয়ামী লীগ-এর ‘হাইপ্রোফাইল’ নেতারা এখন ২০১৯ সনের জাতীয় নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত। দলের সকল স্তরের কর্মীদের মতামতের বদলে নিজ থেকেই প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা। চরম বিভক্তি থাকার পরও তৃণমূল গোছানোর দিকে নজর নেই ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের। জেলা শহরের দুই পাড়া থেকে দলীয় কার্যক্রম পরিচালিত হয় তাদের।
জেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯৯৭ সনে সাবেক সাংসদ প্রয়াত আব্দুজ জহুরকে সভাপতি ও বর্তমান পৌর মেয়র ও আ.লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য আয়ূব বখত জগলুলকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত হয়। এর পরের বছর থেকেই প্রয়াত আব্দুস সামাদ আজাদ ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের দ্বন্দ্বের জেরে বিভক্তির শুরু আওয়ামী লীগে। পরে সাধারণ সম্পাদক আয়ূব বখত জগলুলকে দল থেকে বহিষ্কার করে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয় নূরুল হুদা মুকুটকে। ২০০৭ সালে সভাপতি আব্দুজ জহুর মারা গেলে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান আলহাজ্ব মতিউর রহমান। মতিউর রহমান জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পাবার পরই রমিজ বিপণিস্থ কার্যালয় থেকে একাংশকে নিয়ে কর্মসূচি চালাতেন। মতিউর-মুকুট বিরোধীরা শহরের উকিলপাড়া এলাকা থেকে পৃথকভাবে কর্মসূচি চালাতো। এখনো তারা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের নেতৃত্বে ওই অফিস থেকেই কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এভাবে ১১ উপজেলারই নেতাকর্মীরা বিভক্ত। বর্তমানে জেলা সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট ও পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলকে টেনে এনে পৃথকভাবে দলীয় কর্মসূচি পালন করতে দেখা যাচ্ছে। অন্যদিকে ৫ সাংসদকে নিয়ে সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন আলাদা বলয় গড়ে তুলেছেন। তবে সম্প্রতি সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বলয়ের মধ্যেও একাধিক উপগ্রুপ লক্ষ করা যাচ্ছে।
গত বছরের ডিসেম্বরে জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগে নয়া মেরুকরণের সৃষ্টি হয়। দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব ভুলে ঐক্যবদ্ধ হন নূরুল হুদা মুকুট ও আয়ূব বখত জগলুল। জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন পান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের তৎকালীন প্রশাসক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন। নির্বাচনে ইমনের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মাঠেন নামেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান। মতিউর-মুকুট-জগলুল মিলে এই সময় জেলায় একই সঙ্গে প্রচারণায় নামেন। অন্যদিকে ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের পক্ষে নেপথ্যে কাজ করেন জেলার ৫ সাংসদ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন নূরুল হুদা মুকুট। ওই নির্বাচনে স্থানীয় বিএনপির অনেক নেতা প্রকাশ্যে নূরুল হুদা মুকুটের পক্ষে প্রচারণা চালান। বিএনপির নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও তাঁর পক্ষে অবস্থান নিয়ে ভোট দেন।
ওই নির্বাচনের আগ থেকেই সুনামগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এবং সংরক্ষিত আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানাসহ ৫ সাংসদ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনকে নিয়ে আলাদা বলয় তৈরি করেন। এই বলয় এখনো সক্রিয় রয়েছে।
এদিকে গত দেড় বছর আগে শুধু সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা হলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেননি সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার ইমন। এর আগের ভারপ্রাপ্ত কমিটি সম্মেলনের জন্য প্রতিটি উপজেলা ও পৌরসভায় তড়িঘড়ি করে যে প্রশ্নবিদ্ধ কমিটি দিয়েছিলেন সেই কমিটির নেতাদের নিয়ে এখনো একদিনও বসতে পারেননি বর্তমান কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক। সম্প্রতি দুই জনই একই আসনে (সুনামগঞ্জ-৪) মনোনয়নের লক্ষ্যে আগাম নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন। তাদের সঙ্গে একই আসনে পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলও মনোনয়ন চাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তার পক্ষে সমর্থকরা প্রচারণা শুরু করেছেন।
২০০৯ সালে এই আসনে জাতীয় পার্টির সাংসদ বেগম মমতাজ ইকবাল মারা গেলে উপনির্বাচনে মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান। ২০১৪ সনের জাতীয় নির্বাচনে নানা সমালোচনার কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হন তিনি। তার বদলে মনোনয়ন পান তৎকালীন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা পরিষদ প্রশাসক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন। পরে মহাজোট সরকার এই আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিলে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ নির্বাচিত হন।
শীর্ষনেতারা দল গোছানোর বদলে নির্বাচনমুখী:
জেলার ৫টি আসনে আ.লীগের অন্তত ৩০ জন নেতা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। দল গোছানো ও তৃণমূলকে ঐক্যবদ্ধ করার বদলে ব্যক্তিগতভাবে প্রচারণা শুরু করায় তৃণমূল কর্মীরা হতাশ। এদিকে বর্তমান সাংসদরা মনোনয়ন প্রাপ্তির বিষয়ে প্রায় নিশ্চিত। তারা স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন করে আগাম সহযোগিতা চাচ্ছেন। তারা নিজ এলাকায় আওয়ামী লীগের দ্বন্দ্ব নিরসনে কোন উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। নিজ নির্বাচনী এলাকার উন্নয়ন কর্মকা-ের সভা-সমাবেশে আগামী নির্বাচনে নিজেদের ভোটদানের আহ্বান জানাচ্ছেন। তাদের পক্ষে মাঠে কাজ করছেন তাদের ঘনিষ্ঠরা।
সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, ধর্মপাশা, জামালগঞ্জ ও মধ্যনগর) : টানা দুই বারের সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এবারও মনোনয়ন প্রাপ্তির শীর্ষ আলোচনায়। তাঁর সঙ্গে মাঠে আছেন সাবেক সাংসদ সৈয়দ রফিকুল হক সোহেল। তাছাড়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান আহমাদ সেলিম, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার, সিলেট মহানগর আ.লীগ নেতা রনজিত সরকার, সাবেক সচিব বিনয়ভূষণ তালুকদার এবং প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা শক্তি রায়ের নামও শোনা যাচ্ছে।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) : এই আসনে টানা সাতবার নির্বাচিত সাংসদ ছিলেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তাঁর মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে তাঁর স্ত্রী ড. জয়াসেন গুপ্তা হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। এখন এই আসনে নির্বাচনী মাঠে প্রধান প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় তিনি। তাঁর একমাত্র সন্তান সৌমেন সেনগুপ্তকেও দিরাই-শাল্লার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের অনুরাগীরা সুরঞ্জিতের ছায়া দেখছেন। গত উপনির্বাচনে মায়ের পক্ষে নিরলস কাজ করে তিনি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। এই আসনে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী আর কোন প্রার্থীকে মাঠে দেখা যাচ্ছেনা।
সুনামগঞ্জ-৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর) : এই আসনে টানা দুইবারের সাংসদ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এবং সজ্জন রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত এমএ মান্নান রয়েছেন শীর্ষে। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার নিজের দুটি বাড়িকেই তিনি দলীয় অফিস হিসেবে নেতাকর্মীদের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন তাদের ঐক্যবদ্ধ করার। মনোনয়ন আলোচনায় শীর্ষে আছেন তিনিই। নানা দৃশ্যমান উন্নয়নে আ.লীগসহ সাধারণ ভোটারদেরও মন জয় করেছেন তিনি। তার সঙ্গে আব্দুস সামাদ আজাদের বড় ছেলে আজিজুস সামাদ ডন ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান ফারুকও প্রচারণা চালাচ্ছেন। ফারুক সম্প্রতি জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ফসলহারা কয়েক হাজার কৃষককে ত্রাণ সহায়তা দিয়ে নির্বাচনী এলাকার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর ও বিশ্বম্ভরপুর): এই আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান ও গত জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন প্রচারণা চালাচ্ছেন। তাদের সঙ্গে পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলের সমর্থকরাও নির্বাচনী এলাকায় পৃথকভাবে তাকে নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। জাতীয় পার্টির বর্তমান সাংসদ অ্যাডভোকেট পীর ফজলুল রহমান মিসবাহও মনোনয়ন টিকিয়ে রাখতে জোর চেষ্টা করছেন। জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদও একই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী বলে সূত্র জানিয়েছে।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার): টানা তিনবারের সাংসদ তৃণমূলের জনপ্রিয় নেতা মুহিবুর রহমান মানিক রয়েছেন শীর্ষ আলোচনায়। তার সঙ্গে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা শামীম আহমদ চৌধুরী নিজে প্রচারণা চালাচ্ছেন একটি বলয়কে নিয়ে।
জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সুনামগঞ্জ-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান সেলিম বলেন, আমাদের শীর্ষ নেতারা তৃণমূলের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করার বদলে নিজেদের পদ নিয়ে ব্যস্ত। দিকনির্দেশনার অভাবে তারা হতাশ।
যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান ফারুক বলেন, সুনামগঞ্জ-৩ আসনে এমএ মান্নানের পরেই আমার অবস্থান। জননেত্রী আমাকে দেশে এসে কাজ করার নির্দেশনা দিয়েছেন। তার আদেশ পালন করে যাচ্ছি দেশে-বিদেশে।
আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য ও পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুল বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা রাজনৈতিকভাবে কঠিন সময় পাড়ি দিচ্ছেন। আমাদের মাঠ পর্যায়ের নেতাদের উচিত তাকে সহযোগিতা করা। কোন্দলের কারণে সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরতে পারছেনা দায়িত্বশীল নেতারা। অথচ সুনামগঞ্জ গত এক দশকে উন্নয়ন কর্মযজ্ঞে বদলে গেছে। ত্যাগী ও আদর্শবান কর্মীদের অগ্রাধিকার দিয়ে কার্যক্রম চালানোর আহ্বান জানান তিনি।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন বলেন, শীঘ্রই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। এতে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে ত্যাগী-নিবেদিত ও ’৭৫ পরবর্তী দলের কাণ্ডারীরা অগ্রাধিকার পাবেন। তৃণমূলকে উজ্জীবিত করতে পূর্ণাঙ্গ কমিটির নেতৃবৃন্দ উদ্যোগী হবেন।
সুত্র-সুনামকষ্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24