শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

টয়লেটে গোপনে নারীর ভিডিও ধারণ, কর্মচারি আটক

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৬
  • ২২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: রাজধানীর ধানমণ্ডির পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের টয়লেটে মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে গোপনে এক নারী রোগীর স্পর্শকাতর দৃশ্য ধারণের অভিযোগ উঠেছে হাসপাতালেরই এক কর্মচারির বিরুদ্ধে। তার নাম মো. সুমন। তিনি আজ শনিবার সকালে প্রতিষ্ঠানটির রিসিপশনের দায়িত্ব পালন করছিলেন বলে জানা গেছে।

সকাল ৭টার দিকে নারী টয়লেটে ঘটা এ চাঞ্চল্যকর ঘটনায় ভিকটিম ও হাসপাতালে আগত অন্য রোগীর স্বজনরা অভিযুক্ত সুমনকে পিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

এদিকে, গোপনে নারী রোগীর ভিডিও চিত্র ধারণের এই সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে সকালে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা বেসরকারী একটি টিভি চ্যানেলের এক প্রতিবেদক ও চিত্র সাংবাদিককে আটকে রেখে লাঞ্ছিত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মানব সম্পদ বিভাগের ব্যবস্থাপক অচিন্ত কুমার নাগ জানান, ঘটনার পরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষই অভিযুক্ত কর্মচারিকে পুলিশে সোপর্দ করেছে। তারপরও যদি পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সাংবাদিক লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে জড়িতদেরকে বহিষ্কার করা হবে।

তিনি বলেন, ঘটনার সময় আমাদের কিছু স্টাফও সেখানে ছিলো। হয়তো কেউ থামানোর চেষ্টা করেছে কিংবা কেউ সঙ্গে যোগও দিয়েছে, এমনটাও হতে পারে। আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছে, টিভিতেও আমরা দেখলাম যে সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করা হয়েছে। আমাদের কোনও স্টাফ এই কর্মকাণ্ডে সঙ্গে যদি জড়িত থাকে অবশ্যই আমরা তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধ কঠিন ব্যবস্থা নিবো।

ভুক্তভোগী ওই নারী রোগী জানান, ব্লাড ও ইউরিন টেস্টের জন্যে সকালে তিনি পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যান। এ সময় রিসিপসনে চারজনকে দেখতে পান তিনি। তারাই নির্দিষ্ট স্থানে টেস্ট করা কথা বলেন ওই রোগীকে। ব্লাড দেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ইউরিন আনার কথা বলেন। চিকিৎসকের কথানুযায়ী নমুনা সংগ্রহের জন্য তিনি সকাল ৭টার দিকে প্যাথলজি বিভাগ থেকে টিউব সংগ্রহ করেন। এরপর হাসপাতালের শৌচাগারে টেস্ট সংশ্লিষ্ট কাজ করার সময় তিনি দেখতে পান বাইরে থেকে টয়লেটের নিচ থেকে কেউ একজন হাত বাড়িয়ে মোবাইল ফোনে তার দৃশ্য ধারণ করছে।

জানা গেছে, বিষয়টি টের পেয়ে ওই রোগী চিৎকার দিলে ভিডিও ধারণকারী মোবাইল ফোন নিয়ে হাত গুটিয়ে নেন। দ্রুত টয়লেট থেকে বের হয়ে ওই নারী দৌড়ে পালায়নপর ওই সেন্টারের রিসিপশনের দায়িত্বরত এক কর্মচারিকে (ভিডিও ধারণকারী সুমন) হাতেনাতে ধরে ফেলেন। এসময় অভিযুক্তের কাছ থেকে মোবাইল ফোনটিও জব্দ করেন তিনি। পরে ঘটনার সত্যতা পেয়ে বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানান ওই নারী। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্রথমে তার অভিযোগ আমলে না নিয়ে উল্টো অভিযুক্তর পক্ষে সাফাই গাইতে শুরু করেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

ক্ষোভ নিয়ে ওই নারী বলেন, অভিযুক্ত যুবক এর আগেও হয়ত আরও এ ধরণের ঘটনা ঘটিয়েছে। তার সুষ্ঠু বিচার না হলে সে আরও রোগীর ভিডিও করতে পারে। তাই তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন ভুক্তভোগী ওই নারী রোগী।

ধানমন্ডি থানার ওসি আব্দুল লতিফ জানান, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসা নিতে আসা এক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে পপুলার ডায়েগনস্টিক সেন্টারের এক কর্মচারিকে আটক করা হয়েছে। ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তার মোবাইল ফোন যাচাই-বাছাই করে এবং ভিকটিমের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24