শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে প্রবাসির অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ জগন্নাথপুরের বিএন হাইস্কুলের শতবর্ষ উৎসবে-পরিকল্পনামন্ত্রী, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে:পানিসম্পদ উপমন্ত্রী জগন্নাথপুরে বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে শতবর্ষ উৎসব আজ ক্ষোভের পর আনন্দে ভাসছে ইউনিয়নবাসি জগন্নাথপুরে শতবর্ষ অনুষ্ঠানে যারা থাকছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে শনিবার আসছেন জগন্নাথপুরে বেপরোয়া অটোরিকশার চাপায় প্রাণ গেল শিশুর সিলেটে প্রভূপাদ বিশ্বরূপ গোস্বামীর দীক্ষা প্রদান ও ভাগবতীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী বিক্ষোভে জনসমুদ্র জগন্নাথপুরের সেই সেতুর সংযোগ সড়কের কাজে অনিয়মের অভিযোগ

দুইশত টাকার জন্য…

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩ মার্চ, ২০১৯
  • ৯০ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: ‘এসএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র আনতে গেলে সহকারী প্রধান শিক্ষক আমার কাছে ২ শ টাকা চান। কিন্তু আমি টাকা দিতে না পারায় তিনি প্রবেশপত্র না দিয়ে আমাকে ফিরিয়ে দেন। তখন অন্য শিক্ষকরা অনুরোধ করলেও তিনি আমাকে প্রবেশপত্র দেননি। পরে পরীক্ষার দিন বেলা ১১টার দিকে ওই বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া আমার ছোট বোনকে দিয়ে আমার প্রবেশপত্র বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। যখন প্রবেশপত্র বাড়িতে পৌঁছেছে তখন আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার কোনো সুযোগ ছিল না। মাত্র ২ শ টাকার জন্য স্যারেরা আমার শিক্ষাজীবন শেষ করে দিল।’

আজ শনিবার দুপুরে নাজিরপুর প্রেস ক্লাবে স্থানীয় সাংবাদিকদের এ কথাগুলো বলেছেন পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী জাহিদ হাওলাদার। শিক্ষকদের দাবিকৃত ২ শ টাকা দিতে না পেরে প্রবেশপত্র না পেয়ে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি এ পরীক্ষার্থী। জাহিদ হাওলাদার উপজেলার দেউলবাড়ী ইউনিয়নের পদ্মাডুবি গ্রামের হতদরিদ্র জাহাঙ্গীর হাওলাদারের ছেলে।

জাহিদ হাওলাদার জানান, মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ২০১৮ সালে বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র হিসেবে এসএসসি পরীক্ষা অংশগ্রহণ করে সে। তবে সেই পরীক্ষায় রসায়ন ও জীববিজ্ঞান বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। সেই কারণে ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অনিয়মিত ছাত্র হিসেবে রসায়ন ও জীববিজ্ঞান বিষয়ে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য নির্ধারিত ফি দিয়ে ফরম পূরণ করেছিল জাহিদ। তবে পরীক্ষার আগের দিন প্রবেশপত্র নেওয়ার জন্য সে মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে গেলে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক বিমল কৃষ্ণ সুতার তার কাছে প্রবেশপত্র বাবদ ২ শ টাকা দাবি করেন। টাকা না দিতে পারলে তাকে প্রবেশপত্র না দিয়ে ফিরিয়ে দেন ওই শিক্ষক। পরে পরীক্ষার নির্ধারিত দিন ২৬ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে বাড়িতে প্রবেশপত্র পাঠিয়ে দিলেও তখন আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ ছিল না।

অভিযোগের বিষয়ে কথা হলে সহকারী প্রধান শিক্ষক বিমল কৃষ্ণ সুতার জানান, প্রধান শিক্ষকের নির্দেশক্রমেই পরীক্ষার্থী জাহিদের অ্যাডমিট কার্ড প্রথমে দেওয়া হয়নি তবে ২৬ তারিখ প্রবেশপত্র জাহিদের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনীল চন্দ্র বড়াল জানান, বিষয়টি দুঃখজনক। এ ঘটনার জন্য আমরা লজ্জিত। আমি প্রধান শিক্ষক হিসেবে জাহিদের কাছে দূঃখ প্রকাশ করেছি এবং আগামী বছরে তাকে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24