সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামের চয়ন হত্যাকান্ডের ঘটনায় দৌলতপুর গ্রামে পুলিশের চিরুনী অভিযান

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৫
  • ২৯ Time View

রাকিল হোসেন নবীগঞ্জ থেকে : নবীগঞ্জ উপজেলার চৌকি ও বানিয়াচং উপজেলার দৌলতপুর গ্রামবাসীর মধ্যে একটি জল মহালকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে চয়ন রায় হত্যাকান্ডের ঘটনায় আসামী গ্রেফতারে গতকাল দিন ব্যাপি চিরুনী অভিযান পরিচালনা করেছে দুই থানার পুলিশ। তবে পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে অভিযুক্ত আসামীরা এলাকার নদী পথসহ বিভিন্ন পথ দিয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। পুলিশ সূত্রে জানা যায়,চয়ন রায় হত্যাকান্ডের ঘটনায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ৮০/৯০ জনকে অঞ্জাত আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলার প্রেক্ষিতে গত ১৮ আগষ্ট মার্কুলী ফাঁড়ির পুলিশ মইনুল ইসলাম ময়নাকে গ্রেফতার করে। পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। রোববার বিকেলে হবিগঞ্জের এএসপি সাজিদুর রহমান,মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ধর্মজিৎ সিনহা,নবীগঞ্জ থানার এসআই নজরুল ইসরাম,বানিয়াচং থানার মার্কুলী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই জিয়াউর রহমান এর নেতৃত্বে প্রায় অর্ধ শতাধীক পুলিশ দৌলতপুর গ্রামে আসামী গ্রেফতারে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। কিন্ত আসামীরা খবর পেয়ে পুলিশ পৌছার আগেই নৌকা যোগে পালিয়ে যায়। বিকেল থেকে সন্ধা পর্যন্ত পুলিশ দৌলতপুর গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে তল্লাসি চালিয়েও কোন আসামীর সন্ধান পায়নি। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ধর্মজিৎ সিনহা বলেন,পুলিশ পৌছার আগেই খবর পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। তবে অভিযান অব্যাহত আছে। পালিয়েও শেষ রক্ষা হবেনা। উল্লেখ্য গত ১৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে জলমহালকে কেন্দ্র করে নবীগঞ্জ উপজেলার চৌকি গ্রামে এসে বানিয়াচং উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের লোকজন কর্তৃক হামলায় চালিয়ে চয়ন দাশের বুকে টেটার, গলায় পিকলের এবং মাথায় রামদা দিয়ে আঘাত আহত হন। ওইদিনই তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থার অবনতি ঘটলে শুক্রবার দুুপুরে তাকে আইসিইউ’তে লাইফ সার্পোটে রাখা হয়। ২ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে গত ১৫ই আগষ্ট শনিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে চয়ন দাশ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24