রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নতুন ২ কাণ্ডারির পরিচিতি জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনে গুরুত্ব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী দ.সুনামগঞ্জে বিদেশী রিভলবারসহ গ্রেফতার ১ সাংবাদিক এ এস রায়হানের পিতার মৃত্যু, জানাজা সম্পন্ন পাটলী উইমেন্স কলেজ উন্নয়নে প্রবাসীদের ১২ লাখ টাকার অনুদান জগন্নাথপুরে শ্রমিক-ব্যবসায়ীদের দ্বন্দ্বের নিস্পত্তি, পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার বাংলাদেশে ঢুকে মসজিদ নির্মাণে বিএসএফ’র বাধা প্রদান জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সালিশী ব্যক্তিত্ব নুরুল ইসলাম আর নেই সুনামগঞ্জে বিয়ের খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে ৮০ জন হাসপাতালে, ১ জনের মৃত্যু

পরিযান- অধ্যক্ষ মো. আব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ২১৬ Time View

এক গোলার্ধ থেকে আরেক গোলার্ধে,এক মহাদেশ থেকে আরেক মহাদেশে, প্রাণীকূল অকল্পনীয় দীর্ঘ ভ্রমণ বা অভিযানকে পরিযান বলা হয়। পরিযানের নেশা প্রাণী জগতে এমনই প্রবল এবং দূর্বার যে, কোন প্রাণী রক্তের সম্পর্কও ভুলে যায়। আমরা যেমন ঘড়ির কাঁটার
সাথে তাল রেখে ভ্রমণ করে থাকি, প্রাণী জগৎ ও তেমনি ঘড়ির কাঁটার সাথে তাল রেখে চলে। প্রাণী জগতের ঘড়ির
কাঁটা হলো দিন, রাত, ঋতু পরিক্রমা। আলো, অন্ধকার, ঋতুর দ্বারাই এদের জীবন নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে। তাই এগুলো
সম্পর্কে এদের জ্ঞান পাকা।ইলেকট্রনিক যুগে আসার আগ পর্যন্ত মানুষ প্রাণী জগতের প্রকৃতি এবং স্বভাব সম্পর্কে তেমন জানতে পারেনি। তারপর হঠাৎ করেই মানুষ জানল, মানুষ যে সমস্ত ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি ও পদ্ধতি আবিষ্কার করেছে সেগুলো প্রাণী জগৎ
অবলম্বিত পদ্ধতির তুলনায় নতুন কিছু নয়। কারণ প্রাণী জগৎ আদিকাল থেকেই একেই পদ্ধতি অবলম্বন করে পৃথিবীময় চষে
বেড়াচ্ছে পরিযানের কারণ পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, প্রধান কারণ হলো: সূর্যতাপ, খাদ্য ও পানি। বিপরীত ঋতুতে পরিযায়ী প্রাণী আবার ফিরে আসে পুরনো আবাসে পরিযান যেখান থেকে শুরু হয়েছিল। অতএব অনুমেয় যে, এগুলোর দেশান্তর
গমন সম্পূর্ণ ঋতু ভিত্তিক। অবশ্য সবার বেলা এ কথা খাটে না ।
হাতির দল একবার পরিযানে বেড়িয়ে একটানা দশ বছর ধরে চলতেই থাকে। দক্ষিণ আমেরিকার জঙ্গলে এক প্রকার বানর আছে, যেগুলো সেই
অঞ্চলের মধ্যেই এক সপ্তাহ এখানে কাটায়, পরের সপ্তাহ ওখানে কাটায়, এর পরের সপ্তাহ হয়তো আবার ফিরে আসে পুরনো জায়গায়।
কেবল প্রাণী জগৎ নয়, অন্যান্য প্রাণীর চেয়েও পাখির বেলায় পরিযানের ব্যাপারটি স্পষ্ট। মৌসুমে আটলান্টিক বা প্রশান্ত
মহাসাগরের বুকে, হাজার রকমের পাখিতে ভরে যায়। তীব্র গতিতে সেগুলো দক্ষিণ থেকে উত্তরে যায়, কোনটার
সাথে কোনটার টক্কর লাগেনা বা কোন দুর্ঘটনা ঘটেনা। শীতের শেষাশেষি লক্ষ্য করলে আমাদের গ্রামে অনেক
অপরিচিত পাখি দেখতে পাওয়া যায়। আমাদের গ্রাম পাখিদের পরিযানের পথে অস্থায়ী স্টেশন মাত্র। এগুলো যাবে
উত্তরে, এসেছে হাজার হাজার কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে দক্ষিণ থেকে। কিন্তু কেন ? পৃথিবীর মানচিত্রের দিকে তাকালে স্পষ্টত দেখা যায়,
দক্ষিণ অপেক্ষা উত্তর গোলার্ধে স্থলভাগের পরিমান বেশি। দক্ষিণ গোলার্ধের দশ ভাগের নয় ভাগই জল এবং
স্থল ভাগ আয়তনে উত্তর গোলার্ধ দক্ষিণ গোলার্ধ অপেক্ষা ৫০ গুণ বড়। আরো একটি কারণ বাচ্চা ফুটানোর সময়
এলে উত্তরের মহাদেশ গুলো পাখিদের আকর্ষণ করে। উত্তর গোলার্ধ পরিযানের পেছনে খাদ্যের প্রাচুর্যছাড়াও দক্ষিণ গোলার্ধের শৈত্যতা আরেকটা কারণ। পাএ পরিযানের সাথে মানুষের কল্যাণও জড়িতরি আছে। উত্তর গোলার্ধের স্থল ভাগের আয়তন বেশী
থাকায় দক্ষিণ থেকে আসা কোটি কোটি পাখি কীটপতঙ্গ,
পোকামাকড়, ইদুর সহ বিষাক্ত পোকা এরা ভক্ষণ করে ফসলী জমি ও আমাদের জীবন রক্ষা করে। এবার দেখা যাক পরিযানের সময় পাখি কি করে দিক নির্ণয় করে। সীমাহীন বিস্তৃত সমুদ্রে যেখানে কেবল জল আর জল ছাড়া কোন বস্তু নেই, যেখানে মানুষকেও কম্পাস না হলে দিক নির্ণয়ে হার মানতে হয়, সেই পারহীন সমুদ্রে পাখি কি করে দিক নির্ণয় করে এবং গন্তব্যে ফিরে আসে।
অনেকের বিশ্বাস পাখির মগজে অথবা চোখে এমন একটা কিছু আছে যা কম্পাস, ঘড়ি প্রভৃতির পরিপূরক। বিজ্ঞানীরা
সম্প্রতি রাডার এবং ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতির সাহায্যে এ রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা করছেন। পক্ষীতাত্তি¦ক গণ মনে
করেন, দিনের আলো এবং ঋতু বৈচিত্র্য থেকেই পাখি দিক নির্ণয় জ্ঞান অর্জন করে। কিন্তু এর বিপরীত সত্যও আছে।
অনেক পাখি আছে, যেগুলো রাতের বেলাই চলাচল করে। জার্মান বিজ্ঞানী ড.ফ্রঞ্জিসয়ের মতে,রাতে চলাচলকারী পাখি
গ্রহ নক্ষত্রাদি, তারকারাজি দেখে দিক নির্ণয় করে। এছাড়া তাপের তারতম্য, বাতাসের ঘনত্ব,জলীয়বাষ্পের পরিমাণ
প্রভৃতি সম্বন্ধেও এগুলোর জ্ঞান যথেষ্ট। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা যায়, পাখি বেতার তরঙ্গও অনুভব করতে
পারে। পাখির পরিযানের অনেক রহস্যই মানুষের কাছে আজো অজ্ঞাত । মানুষ চুপ করে
বসে নেই, বার্ড স্যাটেলাইট স্থাপনের পদক্ষেপ সহ নানা যন্ত্রপাতি দিয়ে মানুষ অক্লান্ত গবেষণায় নিয়োজিত।
অদূর ভবিষ্যতে আমরা হয়তো পাখির পরিযান সম্পর্কে মজার খবর ও কাহিনী জানতে পারবো। বিজ্ঞানীরা অনুমান করছেন,
যে শক্তির বলে পাখি তীব্র গতিতে অথচ নির্বিঘেœ ঊড়ে যায়, সে শক্তি মানুষের আবিষ্কৃত ইলেকট্রনিক
মেথডের চেয়েও উন্নত। এই গোপন রহস্যটি যেদিন জানা হয়ে যাবে, সেদিন মানব জীবনে ট্রাফিক সমস্যা মোটেই
থাকবেনা। গাড়িতে গাড়িতে টক্কর লাগবেনা। জাহাজে জাহাজে ধাক্কা লাগবেনা।
লেখক: মো. আব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24