মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলার টাইগারদের জয়

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৩৮ Time View

স্পোটর্স ডেস্ক:: শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার তিন ম্যাচ সিরিজের ওয়ানডেতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৭৯ রানের বিশাল জয় পেয়েছে টাইগাররা। দীর্ঘ ১৬ বছর পর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয়ের দেখা পেল বাংলাদেশ। তবে বলা বাহুল্য যে আজকের ম্যাচে ফেবারিট তকমা লাগিয়েই মাঠে নেমেছিল টাইগাররা।

টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩২৯ রান করেন টাইগাররা। টাইগারদের ছুড়ে দেয়া ৩৩০ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ২৫০ রানে অলআউট হয়ে পাকিস্তান।

মূলত বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে তামিম-মুশফিকের ১ম জোড়া শতকে জয়ের ভিত্তি গড়ে দেয়। আর বাকিটুকু কাজটুকু সারলেন সানি-তাসকিনরা।

এর আগে দিবারাত্রির ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের শুরুটা বেশ ভালোই করেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। ৬৭ রানে দ্বিতীয় উইকেটের পতনের পর ক্রিজে এসে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং শুরু করেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা মুশফিকুর রহিম । অপর প্রান্তে চলতে থাকে তামিম-শো। ১১১ বলে ১২ চার ও ২ চারের সাহায্যে সেঞ্চুরিটা আদায় করে নেন তিনি। এটি ওয়ানডেতে তার পঞ্চম শতরান। ২০১৩ মার্চের পর একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরির দেখা পান বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার। সেঞ্চুরির পর তামিমের ব্যাট চলে সপাটে। বাংলাদেশের স্কোরশিটে দ্রুত গতিতে রান যোগ হতে থাকে। তবে ১৩২ রানে থেমে যায় তার ইনিংস। ১৩৫ বলে ১৫ চার ও ৩ ছক্কায় অনবদ্য ইনিংস সাজান দেশসেরা এই ওপেনার।

তামিমের পর সেঞ্চুরি আদায় করে নেন মুশফিকও। ৬৯ বলে ১৩টি চার ও ২টি ছক্কায় শতরান পূর্ণ করেন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক। এটি ওয়ানডেতে তার তৃতীয় সেঞ্চুরি। তবে ইনিংসটা ১০৬ রানের বেশি লম্বা করতে পারলেন না মুশফিক।

এরপর রিয়াজের শিকার হন সাব্বির ও সাকিব। ২৭ বলে ৪টি চারের মারে ৩১ রান করেন সাকিব। আর ৭ বলে ১টি চার ও ১টি ছক্কায় ১৫ রান করেন সাব্বির। ১০ ওভার বল করে ৫৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন পাকিস্তানের সেরা বোলার ওয়াহাব রিয়াজ। একটি উইকেট নিয়েছেন রাহাত আলী। ১০ ওভারে ৭৪ রান দিয়ে উইকেটশূণ্য ছিলেন নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা সাঈদ আজমল।

জবাব দিতে নেমে পাকিস্তানের উদ্বোধনী জুটিতে লড়াইটা জমিয়ে তোলেন অধিনায়ক আজহার আলী ও সরফরাজ আহমেদ। দুজন মিলে ৫৩ রানের জুটি গড়েন। কিন্তু তাদের বেশি দূর এগোতে দেননি আরাফাত সানী। সরফরাজকে (২৪) সাজঘরে ফিরিয়ে এই জুটিকে বিচ্ছিন্ন করেন বাংলাদেশের উদীয়মান তারকা স্পিনার। এরপর মোহাম্মদ হাফিজ কাটা পড়েন রানআউটে।

দুই উইকেট পতনের পর আজহার-হারিস মিলে দলকে টেনে নিয়ে যান ১৪৮ এ। তবে এদের দুজনকেই ফিরিয়ে দিয়ে ম্যাচটা নিজেদের আয়ত্বে নিয়ে আসেন তাসকিন। মাঝখানে কিছুটা সময় অভিষিক্ত পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান রিজওয়ান আহমেদ প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন। কিন্তু ব্যক্তিগত ৬৭ রানে তিনি রুবেলের বলে বাউন্ডারিতে নাসিরের হাতে ধরা পড়লে ম্যাচের ফল নির্ধারিত হয়ে যায়। বাকি ব্যাটসম্যানরা থাকেন যাওয়া-আসার মিছিলে। তাসকিন ও সানি দুজনেই ৩টি করে উইকেট শিকার করেন। সাকিব ও রুবেলের শিকার ১টি করে উইকেট। মারমুখী ব্যাটিংয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার পান মুশফিকুর রহিম।

৪৫.২ ওভারে অলআউট হওয়ার আগে পাকিস্তান সংগ্রহ করে ২৫০ রান। ৭৯ রানের জয়ে বাংলাদেশের কাছে আসে ১৬ বছরের অধরা স্বপ্ন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24