বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন

পোপের কাছে ১২টি দাবি জানিয়েছে রোহিঙ্গারা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৩৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: মিয়ানমার থেকে জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের গত শুক্রবার দেখতে যান ক্যাথলিক খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস।

এ সময় পোপের সামনে ১২টি দাবি উত্থাপন করেন ১৬ সদস্যবিশিষ্ট রোহিঙ্গা দলনেতা আহমদ হোসেন।

পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে রোহিঙ্গাদের উত্থাপিত দাবিগুলো হচ্ছে: মিয়ানমারে বসবাসরত অন্য জাতিগুলোর মতো রোহিঙ্গাদেরও একটি জাতি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া, আরকানে অবস্থানরত সামরিক জান্তাদের ব্যারাকে ফিরিয়ে নেয়া, মিয়ানমারের আইটিবি ক্যাম্পে আশ্রয়ের নামে নজরবন্দি করে রাখা ৭ হাজার রোহিঙ্গাকে বাড়িঘরে ফিরতে দেয়া,সীমান্তে পুঁতে রাখা মাইন ও অন্যান্য মারণাস্ত্র সরিয়ে নেয়া, পুড়িয়ে দেয়া ঘরবাড়ি পুনঃ নির্মাণ ও লুণ্ঠিত মালামাল ফেরত দেয়া, মিয়ানমারের জেলখানায় বন্দি ৫ হাজার রোহিঙ্গাকে নিঃশর্তে মুক্তি দেয়া, ২৫ আগস্টের পর থেকে কোনো কারণ ছাড়া আটক রোহিঙ্গাদের ছেড়ে দেয়া, আরকানে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দিয়ে স্বাধীনভাবে চেলাফেরাসহ ব্যবসা-বাণিজ্য করার অনুমতি দেয়া, মিয়ানমারে ওআইসি,জাতিসংঘ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি রাখা, রোহিঙ্গা যুবকদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা, বাংলাদেশ-মিয়ানমারের মধ্যে সম্পাদিক চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি রাখা, আরকান রাজ্যে বসবাসরত শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার সুযোগ দেয়া, সেনাবাহিনী ভবিষ্যতে এমন নৃশংসতা করবে না মর্মে লিখিত চুক্তি করা এবং রোহিঙ্গাদের নাগরিক হিসেবে বিশ্বের কাছে রাষ্ট্র কর্তৃক তুলে ধরা।

রোহিঙ্গাদের এসব দাবির কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন পোপ ফ্রান্সিস।

১৬ জন রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদলের মধ্যে ছিলেন- বালুখালী ক্যাম্পের আহমদ হোসন (৬০), কামাল হোসন (৪৮), লালু মাঝি (৪০), ফয়েজুল্লাহ (৩৮), আইয়ুব আলী মাঝি (৪০), খাইরুল আমিন (৪৫), কলিম উল্লাহ (৩৫), মোহাম্মদ ইউনূছ (৩২), গুলিবিদ্ধ মিয়া হোসন (২৫), মৌলভী কলিম উল্লাহ (৩৫), ৩ জন নির্যাতিত মহিলা ও শিশুসহ অন্যরা।

তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পোপ ফ্রান্সিস তাদের ১২টি দাবির কথা শুনে বলেন, আজ ঈশ্বরের উপস্থিতি রোহিঙ্গারূপে আবির্ভূত হয়েছে।

তিনি বঞ্চিত,নিপীড়িত,নির্যাতিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিশ্ববাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ সরকার মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছে।

পরে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদল ১২টি দাবিসম্বলিত বার্মিজ ভাষায় লেখা একটি দাবিনামা পোপ ফ্রান্সিসের হাতে তুলে দেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24