রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার

ফসলের রোগের মতো সমাজ নিয়ে ভাবনা- মো. আব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৯৪ Time View

কিশোরীর চুলের ফিতার মতো যতন করে রোপন করা ধানক্ষেতের প্রত্যেকটি গোছায় দাঁড়িয়ে আছে কৃষকের রক্ত জল করা জীবনযুদ্ধের ইতিহাসের ক্ষয়িষ্ণু পাতা; দুঃখ গাথা বেদনার নিযুত- কোটি কাব্য। এই সবুজের সমারোহ সোনালী রঙ ধারণ করলেই ধান কেটে স্বপ্ন পুরণের পথে সাময়িক ভুলে যাওয়া ব্যস্ততায় সময় কাটাবে কৃষক- কৃষাণী। পেটে ভাত আর গাঁয়ে কাপড় নিয়ে জীবন কোন রকম চলে গেলেই তাঁদের সুখ পত পত করে উড়ে জীবন আকাশে। সেই ধান ক্ষেতে ব্লাস্ট নামক ছত্রাকের আক্রমণে কৃষকেরা অনেক জায়গায় স্বপ্নাহত হচ্ছেন। ব্লাস্টের ব্যাপ্তি দূর করা নিয়ে ব্যস্ত কৃষিবিদরা। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হয়েছে, মানুষের মাথা পিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে ; পদ্মাসেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট আকাশে উড়ার অপেক্ষায় ; রাস্তাঘাট- ব্রিজ- কালভার্ট এর অবকাঠামোগত উন্নয়নের সভ্যতা; বস্তুগত সংস্কৃতির উন্নয়নের মহাযাত্রায় দেশজ অবস্তুগত সংস্কৃতি ; মানুষের মন- মগজ- সৃজনশীলতায় যে ধান ক্ষেতের ব্লাস্ট ছত্রাকের মতো ছিনতাই, খুন, ধর্ষণ, পরকীয়া সমাজের সুন্দর উপরিকাঠামো আজ আক্রান্ত সাম্প্রতিক ঘটনা গুলো তারই জানান দিচ্ছে। সাংস্কৃতিক ব্যবধান (cultural lag) নিয়ে এখনই নতুন করে ভাবতে হবে রাষ্ট্রকে- সরকারকে, সমাজকে। শুধু গ্রামকে যদি সত্তর দশকের ইয়েনেকা অ্যারেন্স ও ইওস ফান ব্যুরদেন এর ‘SMovcyi’ এর চিরন্তন চিত্র রূপে কল্পনা করি ; বর্তমান শিক্ষা ও প্রযুক্তির উন্নয়নে গ্রামের বস্তুগত কাঠামোর উন্নতি হলেও অবস্তুগত কাঠামোর ভয়াবহ অবনতি হয়েছে একথা বলা যায়। শুধু কী গ্রাম? শহুরে সমাজ ও আজ অপরাধ ও অপরাধীদের স্বাধীন চারণভূমিতে পরিণত হয়েছে। সরকারের গৃহীত ভিশন বস্তুুগত উন্নয়নের মহাযাত্রায় কিছু যাত্রীবেশী সুযোগ সন্ধানী মানুষের অর্থ কামাইয়ের অভিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের দোসর ব্যক্তিদের বগলের দুর্গন্ধে জন্ম নেয়া নষ্ট কুসুমের কষ্টরা মানুষের জীবনে ফেলছে এক অনিশ্চয়তার কালো ছাপ; বিশ্বাসের দূর্গে অবিশ্বাসের প্রাবল্য। স্বামী- স্ত্রীকে, সন্তান বাবাকে, ভাই ভাইকে, কর্মী নেতাকে বিশ্বাস করতে ভয় পায়! সামাজিক অবিশ্বাস ক্যান্সারের মতো সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে। মূল্যবোধের মাত্রা নেমেছে তলানীতে। অবিশ্বাসী মানুষের ঘরে উন্নয়নের বাণী আজ বড় বেমানান। পাকা রাস্তাকে মানুষ ভাবে গলাকাটা খুনীদের পালানোর অবলম্বন ; উন্নয়নের নামে লুটে খাওয়ার প্রকল্প। অথচ এই রাস্তা যে সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য সরকার বাস্তবায়নে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে সে বাণী আজ মানুষকে বিশ্বাস করানো বড় প্রয়োজন। সবুজ মাঠে বিউটির রক্তাক্ত লাল বসনে, পাগলীর ছেড়া জরায়ুতে ধর্ষকের শুক্রাণুরা কিলবিল করে। মৃদু বাতাসে সবুজ আবহের ঢেউয়ে ধর্ষণ, খুনের বিচারের গর্জনে এ এক ভিন্ন বিবর্ণ সুর। কারা এসবের সাথে জড়িতদের পাশাপাশি কেন জড়িত সেটাও ভেবে দেখতে হবে। বাবু সোনা স্বামী, বিশ্বাসের দুধপানে শক্তি নিয়ে জেগে ওঠার কথা ; নিথর দেহে তার বিদায় হয় অবিশ্বাসের শ্বাসরোধে। স্ত্রীর হাতের ভাতে স্বামীরা দেখেন চেতনানাশক বস্তু। মাত্র একটি মোবাইল ফোনের জন্য যুব সমাজ আজ কলমের বদলে ছুরি নিয়ে ঘুরে। ফাঁসির দড়ি মানুষ কে ভয় দেখায় না ; সহজে দায় নিয়ে ফুলের মতো ভালবাসায় আপন করে মৃত্যুর কারাবাস! সাম্প্রদায়িক মগজের মানুষ মানুষের রক্তের খেলায় মাতাল। ওৎপাতা গুপ্ত ঘাতকেরা কারবালার নিষ্ঠুরতা নিয়ে দিনাতিপাত করে সুযোগের অপেক্ষায়। একের পর এক নতুন ইস্যুর ভিড়ে পুরনো বেদনা চাপা পড়ে। স্বজন হারাদের তবু স্মৃতিভ্রম হয়না । ভালবাসার ব্যবসায় দেউলিয়া যুবক- যুবতীর দীর্ঘশ্বাসেরা পথে – ঘাটে ঘুরে ;
নিজেকে শেষ করে দেবার চিন্তায় খোঁজে গাছের উচু ডাল, ফ্যানের হুক। স্বামীর সাথে স্ত্রী জেলে দেখা করে শুধু ভালবাসা নিয়ে নয় ; হাতে ইয়াবা নিয়ে! প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত সমাজের উচু স্তরের মানুষ থেকে ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবক। সরকারের সব অর্জনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে সোচ্চার শকুনেরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায়, ভয়ে ওরা সাময়িক লেজ গুটিয়ে নিলেও সুযোগ মতো মাথা তুলে দাঁড়াবে। সমাজের উপরি কাঠামো দূর্বল হলে যে অবস্থা হয় তার সবকিছুই বিদ্যমান। সমাজের অবস্তুগত সংস্কৃতি বিনির্মাণে বস্তুগত উন্নয়নের মতো নজর দিতে হবে। পান্ডববর্জিত আমাদের দেশের সাংস্কৃতিক ভারসাম্য না আনলে সকল অর্জনে ভারসাম্যহীনতা রোধ করা কঠিন হয়ে পড়বে। সরকারের পাশাপাশি সকল প্রতিষ্ঠানকে এ সামাজিক মূল্যবোধের ভারসাম্য আনতে সমান ভাবে কাজ করতে হবে। যারা এদেশের অক্সিজেনে বেঁচে থেকে দেশকে,সমাজকে বিষ উপহার দেয় তারা দেখতে মানুষের মতো হলেও দেশের জন্য ভয়ানক ক্ষতিকর। ফরাসী বিপ্লব ও ইউরোপে শিল্পবিপ্লবের অভিজ্ঞতায় দেখা যায় অর্থনৈতিক ব্যবস্থার পরিবর্তন ও উৎপাদন বৃদ্ধির ফলে ধনীরা/শিল্পের মালিকরা আরো বেশী ধনী হচ্ছে ; গরীবরা হচ্ছে নিষ্পেষিত। সেন্টসাইমন, অগাস্ট কোঁৎ এর মতো সমাজ চিন্তাবিদরা এ অসাম্যের প্রতিকারের চিন্তায় ব্যস্ত হলেন এবং সমাজের সার্বিক উন্নয়নের মডেল খোঁজে বের করলেন। আমাদের দেশ উন্নয়নশীল হওয়ার ক্ষেত্রে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টির জন্য এ ধরনের চিন্তাও আজ বড় প্রয়োজন। ভয় দেখিয়ে অপরাধীদের সাময়িক দমিয়ে রাখা যায় ; কিন্তু অপরাধী জন্মের আঁতুড় ঘর বন্ধ না হলে এ চেষ্টা সাময়িক ফলপ্রদ হবে না । পরিনামে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।
লেখক: প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, শাহজালাল মহাবিদ্যালয়, জগন্নাথপুর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24