বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন

ফ্রান্স আওয়ামীলীগের আলোচনা সভায় বক্তারা,২১ শে আগস্ট আওয়ামীলীগকে নেতৃত্ব শুন্যকরার নীল নকশা করা হয়েছিল

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৬
  • ২৬ Time View

ফ্রান্স থেকে আবু সালমান:-২১ শে আগস্ট ফ্রান্স আওয়ামীলীগের আয়োজনে ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট এ নিহত শহীদদের স্মরন সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।ফ্রান্সে রাজধানী প্যারিসের একটি হলে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্বে করেন ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সভাপতি মহসিন উদ্দিন খান লিটন সভা পরিচালনা করেন সাধারন সম্পাদক দিলওয়ার হোসেন কয়েছ।স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন সহ সভাপতি মঞ্জুরুল হাসান সেলিম;সোনাম উদ্দিন খালিক;আকরাম খান;জসিম উদ্দিন ফারুক;আশরাফুল ইসলাম;সেলিম ওয়াদা সিলু;হাসান সিরাজ;কিশোর কুমার বিশ্বাস;মিজানুর রহমান সরকার ফয়সল উদ্দিন;ছাহিদুর রহমান;আসাদুজ্জামান সুমন;শেখ মস্তফা;অমর ফারুক;সায়েক ইবনে হোসাইন বেলাল আহমদ;জসিম উদ্দিন;রাসেল খান;আক্কাস আলী;মাসুদ পাঠান;আসলাম উদ্দিন;ছাত্রলীগ সভাপতি আসরাফুর রহমান;ছাত্রলীগ নেতা হাফিজুর রহমান রাহাত; সেলিম আল দীন প্রমুখ।
ছালেহ আহমদের কোরআন তেলাওয়াত ও প্রকাশ কিশোরের গীতা পাঠের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় শহিদদের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।
এসময় বক্তারা ২১ আগস্ট সহ সকল হামলার সাথে জড়িতদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসার আহবান জানান।তারা বলেন চার দলীয় জোট সরকারের নীল নকশায় তারেক জিয়ার নির্দেশে পরিচালিত ঐ হামলার মুল লক্ষ্য চিল আওয়ামীলীগকে নেতৃত্ব শুন্যকরা।কিন্তু আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা তাদের জীবন বাজিরেখে সেদিন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বাচিয়েচিল।তারা ততকালীন জোট সরকারের নিন্দাজানান।এসময় তারা আরও বলেন বি এন পি জামাত জোটের সময় হাওয়া ভবনের পরিকল্পনায় তারেক জিয়া বাবর মোজাহিদ পিন্টু ও সরকারের আইন শৃখলা বাহিনীর সহযোগিতায় ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট অপরাজনীতির বীভত্স উদাহরণের এই দিনে নারী নেত্রী আইভি রহমান,সাবেক ক্যাপ্টেন মাহবুব সহ ২৪ জন নিহত আহত হন শত শত নেতা কর্মি।জাতীয় সংসদের সেই সময়কার বিরোধী দলের নেতা ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে লক্ষ্যকরে চারপাশ হতে শুরু হয় গ্রেনেড বর্ষণ। সাধারণ ককটেল নয়, যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যবহূত মারাত্মক ধ্বংসাত্মক আর্জেস গ্রেনেড। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট ও জেল হত্যাকাণ্ডের পর আবারও রক্তবন্যা বয়ে যায় বাংলার মাটিতে। টার্গেটও অভিন্ন। ঘাতকদের মূল লক্ষ্য ছিলেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা। কিন্তু ভাগ্যক্রমে তিনি বেচে গেলেও প্রাণ হারিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেত্রী সাবেক রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ কমপক্ষে ২৪জন নেতাকর্মী। আহত হয়েছিলেন শতাধিক। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের অনেকেই এখনও শরীরে সেই গ্রেনেডের স্প্লিন্টার বহন করে চলেছেন। চিরতরে পঙ্গু হয়ে গিয়েছেন কর্মী-সমর্থকদের অনেকে।তারা ২১ আগস্ট হামলার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক বিচার দাবীকরেন।

ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সভাপতি মহসীন উদ্দিন খান লিটন বলেন অপরাজনীতির এই বীভৎস উদাহরণটি যাহারা সৃষ্টি করেছিলেন এবং যারা তাতে মদদ দিয়েছিলেন এবং কাপুরুষোচিত এই হত্যাযজ্ঞটি যখন সংঘটিত হয় বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট তখন ক্ষমতায়। অবধারিতভাবে এই ঘটনার প্রাথমিক দায়দায়িত্ব তাদের উপরই বর্তায়। ততকালীন সাবেক প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দলের সভানেত্রীই শুধু ছিলেন না, তিনি তখন সংসদের বিরোধী দলেরও নেতা। যৌক্তিকভাবেই প্রশ্ন উঠে যে তাঁকে যথোচিত নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছিল কিনা? গ্রেনেড হামলার পর পর দুর্বৃত্তদের আটক ও শনাক্তকরণে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল কিনা— সেই প্রশ্ন তো আছেই। সর্বোপরি, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে দায়ী ব্যক্তিদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছিল কিনা? দুর্ভাগ্যজনকভাবে প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে ততকালীন সরকার শুধু যে নিজের স্বচ্ছতা প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছিল তা নয়, এমনকি জজ মিয়া নাটক সৃষ্টি করে বিচারের নামে প্রহসনের ন্যাক্কারজনক দৃষ্টান্তও স্থাপন করেছিল তারা। ফলে একদিকে যেমন বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কাঁদিয়াছে, অন্যদিকে তেমনি দুর্বৃত্তরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। নূতন নূতন গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটেছে। প্রাণ হারাতে হয়েছে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার আহসান উল্লা মাষ্টারের মতো গুণী মানুষকে। অল্পের জন্য সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী প্রাণে বেঁচে গেলেও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে গুরুতরভাবে। অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে গণতান্ত্রিক রাজনীতির—যাহার মূল ভিত্তি হলো মত ও পথের ভিন্নতা সত্ত্বেও পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা ও সহিষ্ণুতা।

সাধারণ সম্পাদক দিলওয়ার হোসেন কয়েছ বলেন গণতন্ত্র ও সহিষ্ণুতা এক সাথে চলতে পারে না। ২১ আগস্ট যেই দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়েছিল—তা সভ্য সমাজে প্রচলিত রীতিনীতির সকল সীমা লংঘন হয়েছিল। এমনিতেই আগস্ট শোকের মাস। পঁচাত্তর ট্র্যাজিডি হইতে যদি সংশ্লিষ্ট সকলেই যথোচিত শিক্ষা গ্রহণ করতেন.তা হইলে হয়তো ২১ আগস্টের ভয়াবহতা প্রত্যক্ষ করতে হত না জাতিকে। তবে শিক্ষা গ্রহণের সময় এখনও শেষ হয়ে যায় নাই।যে রক্তের হোলি খেলা বি এন পি জামাত শুরু করেছিল তাতে তাদেরকেই পুড়ে মরতে হবে।ইতিহাসের জঘন্যতম এই ঘটনার মাষ্টার মাইন্ড তারেক জিয়া মুজাহিদ হারিস চোধুরী বাবর পিন্টুর প্রত্যক্ষ মদদে রাষ্টিয় পৃষ্ঠপোষকতায় এই সাথে জড়িতদের বিচার এখন সময়ের দাবি বলে মন্তব্য করেন।তিনি বলেন শত বাধা উপেক্ষা করে জননেত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে যাবেন দৃড় প্রত্যয়ে।তার জন্য ফ্রান্স আওয়ামীলীগ নেত্রীর পাশে থাকবে অতন্দ্র প্রহরির মত।

এ সময় অন্যানদের মুধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্স আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলাম যুবলীগ নেতা আজমল হোসেন;কামাল হোসেন;লাবু চৌ;মিজানুর রহমান;জামিল আহমদ;সাহেদ হাসান সিদ্দিকী খায়রুল আলম মাজেদ সহ প্রমুখ।

সভা শেষে ৭১সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ৭৫সাল ঘাতকের বুলেটে ৯০ এর সৈরাচার বিরুদী আন্দোলনে ১৭ ই আগস্ট ২১ শে আগস্ট সহ সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের শহীদদের স্মরনে দোয়া পরিচালনা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24