শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৯ অপরাহ্ন

বিচারের বানী নিরবে নিভৃতে কাঁদে- মানস রায়

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৬৯ Time View

প্রশ্ন কবিতায় কবিগুরুর উক্তি”,বিচারের বানী নিরবে নিভৃ্েত কাঁদে”। সেই কবে লিখেছিলেন আজও প্রতি নিয়ত তাই ঘটে যাচ্ছে। ১৯৬৫সাল পাকিস্তান আর ইন্ডয়া যুদ্ধ চলছে। শাসকদের দৃষ্টিতে হিন্দুরা তখন পাকিস্থানের শত্রু,তাদের সম্পত্তি শত্রুসম্পত্তি।তাদের জমি রেজেষ্ট্রী হয়না। সকালে ঘুম থেকে উঠেই শুনা যায় কান্নার আওয়াজ।গ্রামের কিছু লোক কাঁদছে, ওরা ই-ন্ডিয়া চলে যাচ্ছে। জেনারেল আইয়ুব খান ক্ষমতায়। সারা দেশে রায়ট চলছে। রায়ট মানে হিন্দু নিধন।আমার সৌভাগ্য যে আমি সিলেটে জন্মে ছিলাম ।

কারন আমার মনে হয় বাংলা দেশের সিলেটেই রায়ট শব্দটার প্রয়োগ হয় নাই। শুনেছি ভৈরব থেকে লঞ্চ বোঝাই করে অনেক লোক আজমিরী এসেছিল রায়ট করতে । আজমিরী গঞ্জের স্থানীয় মুসলমান নেতৃবৃন্দ তাদের ফিরিয়ে দিয়ে ছিলেন। আজ এত বছর পরও সেই মহানুভব মানুষদের উদ্দেশ্যে আমার মাথা নত হয়ে যায়।

বর্ষার যৌবন শেষ হয়ে আসছে। কার্ত্তিক মাস । আজমিরী গঞ্জের তখনকার নেতৃবৃন্দ আমার মামা বাড়ীতে । উদ্দেশ্য আমার মামাদের বাড়ীটা ছেড়ে দিতে হবে , ওখানে সি,ও, অফিস হবে । মামাদের গ্রামে তখন প্রায় পঁচিশটি হিন্দু পরিবারের বাস ছিল । যেহেতু হিন্দুদের সম্পত্তি রেজেষ্ট্রী

হতনা তাই অনেকেরই বাড়ীর কাগজ ঠিক ছিল না।সবাইকেই অনুরোধ করা হল তাদের বাড়ী ছেড়ে অন্যত্র চলে যাবার জন্য। আর তখন এইসব নেতৃবৃন্দের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার সাহসও ছিল না কারো।

নয়টি টিনের ঘর তিন চার কেদার জমি,সামনে পিছনে দুইটি পুকুর বারশত টাকার বিনিময়ে ত্যাগ করে আমার মামারা নিজদেশেই পরবাসী হয়ে জীবিকার অন্বেষনে সিলেট চলে যেতে বাধ্য হয়।পরবর্ত্তিতে বাড়ীর পাশের জমি ছাড়া আরও যেসমস্থ ধানের জমি ছিল হাওরে, সেগুলিও অর্পিত সম্পত্তি হয়ে অন্যের দখলে চলে যায়।বলা বাহল্য আামার বড় মামা তখন সপ্তম শ্রেনীতে পড়ত । এরপর তার আর পড়াশুনা করা হয়নাই।

কোন অভিযোগ নাই কোন প্রতিবাদ নাই ,নদীর ভাঙ্গন নাই,একটা পরিবার নিজ দেশেই অর্থাৎ সিলেটে স্থনান্তরীত হয়ে গেল।

বিগত ৭ই সেপ্টেম্বর দৈনিক প্রথম আলোর অষ্টম পাতায়”আলোচনা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী মোশাররফ বাড়ী দখলের অভিযোগ আনা হয় কিছু না জেনেই”শিরোনামে খবরটি পড়ে আমার ছেলেবেলার স্মৃতি বেদনা হয়ে আমাকে পীড়া দিতে লাগল। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে আজ চোয়াল্লিশ বছর।আজ আমাদের আর ভারতে চলে যাবার প্রবনতা নেই । মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জীবনের ঝুকি নিয়েও একটি

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনের জন্য অঙ্গিকারাবদ্ধ।সমস্থ ধর্মের মানুষ নিজ নিজ ধর্ম পালনের নিশ্চয়তা প্রদানের জন্য বর্তমান সরকার সর্বাত্বক প্রচেষ্টায় নিয়োজিত। আজ হিন্দু মুসলমানের ধর্ম আলাদা হলেও উৎসব এক হয়ে গেছে। এজন্য আমরা মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ।

ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্ঠমী উৎসবেও প্রত্যেক এলাকাতেই স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতি আমাদের উৎসাহিত করে।আর এজন্যই মাননীয় মন্ত্রী জন্মাষ্টমী উৎসবে শত ব্যস্ততার মাঝেও উপস্থিত হয়ে আমাদের ধন্য করেছেন। কিন্তু উনার বক্তব্য এবং বাবুঅরুন গুহ মজুমদার মহাশয় জন্মাষ্ঠমী উৎসবে বক্তব্য উৎসবে অপ্রাসঙ্গিক বলে আমার মনে হয়। বাবু অরুন গুহ মজুমদার মহাশয় কেঁদে কেটে মন্ত্রীমহোদয়কে উনার বাড়ী কেনার জন্য রাজী করিয়েছেন কিন্তু কেন এই কান্নাকাটি এই দেশে কি হিন্দু বিক্রেতার জমি সেই ৬৫র মত ক্রেতা নেই? যে ৫০/১০০টাকা হাতে গুজে নিয়ে লুকিয়ে ভারতে চলে যেতে হবে? ক্রেতাশুন্যতার জন্যই কি অরুন বাবুর এই কান্নাকাটি? নাকি অন্যকিছু,অন্যকোন ভীতি কাজ করছে,আমরা জানি না। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়, আমরা ১৯৭১এ বাঙালী ছিলাম , এখন হিন্দু হয়েছি। একসাথে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি,হিন্দু যুদ্ধাহত মুক্তিযুদ্ধাদের শরীরে প্রবেশকরেছে মুসলমানের রক্ত, আর মুসলমান আহত য্দ্ধুার শরীরে হিন্দুর রক্ত। এরপরও আমাদের হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ গঠন করতে হয়,আমাদের দানকৃত জমির রেজিষ্ট্রী ফি কমানোর জন্য আন্দেলন করতে হয়,নিজেদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদিতে পুলিশ পাহাড়ার ব্যবস্থা নিতে হয়। আমাদের আত্মীয়দের জমি সরকারী আদেশ থাকা সত্ত্বেও নামজারীর জন্য মাসের পর মাস অপেক্ষা করতে হয় এবং আপনার মত ব্যাক্তিত্বকেও অরুন গুহমুজুমদার বাবুদেরএনে জন্মাষ্ঠমী অনুষ্ঠানে সাক্ষী দেওয়াতে হয়,আপনার মতের বিরোধিতাকারী প্রবীর শিকদারদের মত মানুষদের জেলে যেতে হয়, আবার আপনারই ব্যবস্থাপনায় জামিন পেতে হয়। মাননীয় মন্ত্রী, আপনারা দেশবরন্য ব্যক্তিত্ব, আপনাদের আদর্শ আমাদেরও আদর্শ হওয়া উচিৎ।আপনি সারা বাংলা দেশের মন্ত্রী,শুধু আপনার এলাকার নন।বাবু রানা দাশগুপ্ত যদি মিথ্যা সংবাদ সম্মেলন করে আপনাকে কলংকিত করে থাকেন ,তার জন্য অবশ্যই তাকে জবাবদিহি করতে হবে , আপনার কাছে, সমাজের কাছে,সরকারের কাছে,তার জন্য রানা দাশ গুপ্তকে আপনার এলাকা ব্যতিত অন্য জায়গা দেখিয়ে দিলে মাননীয় সরকারের অন্য অঞ্চলে ¡আপনার ক্ষমতার ঘাটতি আছে বলেই আমার মনে হয় ।

একজন মন্ত্রী হিসাবে আপনি শুধু আপনার এলাকার নন,আপনি সারা দেশের,জাতির। রানা দাশগুপ্তকে প্রতিদ্বন্দী না ভেবে একজন সমাজ সংস্কারক হিসাবে একজন মানুষ হিসাবে ভাবলেই দেশ ও জাতি আপনার দ্বারা উপকৃত হবে। আমার মামার বাড়ীটাও সরকার মূল্য দিয়েই কিনে নিয়েছিলেন,আর আপনিও অরুন বাবুর জমির মূল্য দিয়েই হয়ত কিনে নিয়েছেন,তবুও জন্মাষ্ঠমী উৎসবে আপনার এবং অরুনবাবুর লিখিত বক্তব্য আমাদের মত ভোক্তভোগীদের ৬৫এর কথা মনে করিয়ে দেয় বৈকি! আর সাথে কবি গুরুর সেই বিখ্যাত উক্তি “বিচারের বানী নিরবে নিভৃতে কাঁদে।”

লেখক-মানস রায়. সাংস্কৃতিক কর্মী ও কলাম লেখক জগন্নাথপুর ,সুনামগঞ্জ।

্র

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24