শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪২ পূর্বাহ্ন

বিশ্বম্ভরপুরে যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার মালিকানাধীন জায়গা দখল

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৫
  • ২৬ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এস এম শামসুল ইসলামের পরিবারের কবরস্থানের জায়গা জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে শহর ও গ্রামের সন্ত্রাসীরা। ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার সকাল ৭টায় উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের লামাপাড়া গ্রামে এ দখলবাজীর ঘটনা ঘটে। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সুনামগঞ্জ পৌরসভার হাছননগর-সুলতানপুর গ্রামের মৃত ক্বারী মহীউদ্দিনের ছেলে শাহ আবুল লেইছ ও তার ছেলে আদনান, মৃত আবুল কালামের ছেলে মোশাররফ হোসেন এবং তাদের গ্রামের বাড়ি বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার লামাপাড়া গ্রামের মৃত আজিজুল হকের পুত্র শাহজাহান মিয়া,মৃত আব্দুল গফুর ওরফে আকল মিয়ার পুত্র শাহ আব্দুল কদ্দুছ ও সবুর মিয়া,মৃত কুলিন বেগের ছেলে আনোয়ার বেগ ও আমির বেগ,মৃত আব্দুল হেকিমের ছেলে আব্দুল জলিল,মৃত আব্দুল হান্নানের ছেলে নাছির মিয়া,নাছির মিয়ার ছেলে জাকির হোসেন, আক্তার মিয়া ও মোক্তার মিয়া,মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে সাফি মিয়া,মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে ইজাদ মিয়া,আলাউদ্দিনের ছেলে শাহ নূর,আব্দুছ সাত্তারের ছেলে বাবুল মিয়া,শাহ আব্দুল কদ্দুছের ছেলে ফারজান মিয়া,ফজলুল হকের ছেলে মইনুল হক ও কামাল মিয়া,মৃত হাজী রুসমত আলীর ছেলে আব্দুল হক প্রমুখ সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্য দিবালোকে কবরস্থানের জায়গা দখলের পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাঁশঝাড় হতে প্রায় ১০০টি বাঁশ, মেহগনি গাছের প্রায় দেড় হাত লম্বা ৫০টি ছাড়া, ভুবি গাছের ৪৫ টি, কোমা গাছের ৩০টি,চাওড়ের গাছের ৩৫ টি ও সুপারী গাছের ২৫টি ছাড়া কেটে নেয়। এছাড়াও ৩০টি বাঁশের দ্বারা নির্মিত কবরস্থানের বেড়াটি ভেঙ্গে ঘুরিয়ে দিয়ে জ্বালানীর জন্য নিজেদের বাড়ি নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। অবৈধ দখলের উদ্দেশ্যে বাঁশঝাড় হতে কেটে নেয়া আরো ৩০টি বাঁশ দিয়ে কবরস্তানের উত্তর-দক্ষিণ দিকে ১টি বেড়া এবং পূর্ব-পশ্চিম দিকে আরেকটি বেড়া দ্বারা কবরস্থান দখলের অপচেষ্টা চালায়।

প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানান,১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সুনামগঞ্জ সদর থানার ভেরীগাও গ্রামে পাক বাহিনীর সাথে সম্মুখযুদ্ধে গুরুতর আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরন করেন জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের লামাপাড়া গ্রামের মরহুম তাহির আলীর পুত্র মুক্তিযুদ্ধা এসএম শামসুল ইসলাম (রাস্ট্রীয় পদকপ্রাপ্ত কার্ড নং ০৫৯৮ যোদ্ধাহত কার্ড নং ০০৬৪ রেজি: নং ৩৮২)। সম্মুখযুদ্ধে আহত হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু সরকারের তত্বাবধানে তিনি ঢাকার বিশ্রামাঘারে থেকে চিকিৎসাসেবা নেন। পরে ঢাকার নবাবপুর রোডস্থ ৬৩ লালচান মুকিমলেনে সরকারের দেয়া বন্দোবস্তীয় বাড়িতে স্বপরিবারে অবস্থান গ্রহন করে এখনও পঙ্গুত্ব বরন করে চলেছেন। গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার লামাপাড়ায় তার পিতার দেয়া সম্পত্তি দেখাশুনা করছেন তার আপন ভাই এসএম নুরুল ইসলামসহ স্থানীয় আত্মীয় স্বজনরা।

জানা যায়,লামাপাড়া নিবাসী কৃষক তাহির আলী জীবদ্মশায় ১৯৮৩ সালের ২৬ জানুয়ারী সুনামগঞ্জ সদর সাবরেজিস্ট্রি অফিসের ১৯৩৮ নং রেজিস্ট্রি দানপত্র দলিলমুলে রনবিদ্যা মৌজার ১৫ নং জেএলস্থিত ২৫১ খতিয়ানের ১২৬০ দাগের ৩.৫০ একর আমন জমি, ১২৬৪ দাগের ৫৮ শতক বাড়ি, ১২৭১ দাগের ২০ শতক বুরন্ডি বাঁশঝাড়, ২২৭৫ দাগের ৩০ শতক আমন ও ২২৭৪ দাগের ৩২ শতক আমন জমি যথাক্রমে দুপুত্র যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এস.এম শামসুল ইসলাম ও এস এম নুরুল ইসলামের নামে দান করে যান। রেজিস্ট্রি দানপত্র দলিল অনুযায়ী বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ১৪/৯৯-২০০০ নং নামজারী মোকদ্দমা বলে তাহির আলীর দুপুত্র এস.এম শামসুল ইসলাম ও এস এম নুরুল ইসলামের নামে নতুন ৯৭৬ নং খতিয়ানভুক্তক্রমে তাদের সম্পত্তি রেকর্ড করেন। সাম্প্রতিক সেটেলম্যান্ট জরীপে সমস্ত সম্পত্তি তাদের নামেই মাঠপর্সা ও তসদীগভূক্ত হয়।

কিন্তু ইদানিং সুনামগঞ্জ সদর সাবরেজিস্ট্রি অফিসের ১০৫৮৬/১৯৭২ নং রেজিস্ট্রি দলিলমূলে গত ২/৯/১৯৭২ইং তারিখের সম্পাদিত একটি দলিলের অজুহাতে কৃষক তাহির আলীকে বিক্রেতা ও মোছা: শরীয়তের মা স্বামী শাহ মহীউদ্দিন কারীকে ক্রেতা সাজিয়ে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসে রনবিদ্যা মৌজার ৩৭ তালুকের ২৫১ খতিয়ানের ১২৭১ দাগের ১৫ শতাংশ বাসবরন্ডি রকম ভূমির মালিকানা দাবী করেন সুনামগঞ্জের হাছননগর-সুলতানপুর আবাসিক এলাকার সুরভী ৩২ নং বাসভবনের বাসিন্দা শাহ মোঃ আবুল লেইছ। মায়ের নামে দলিল সৃজনক্রমে তিনি গ্রামের বাড়ি লামাপাড়ায় যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এসএম শামসুল ইসলামের ব্যক্তি মালিকানাধীন কবরস্থানের ভূমি অবৈধ দখলের অসদুদ্দেশ্যে শাহ মহীউদ্দিন কারী ও শরীয়তের মায়ের পুত্র হিসেবে (শাহ আবুল লেইছ) দাতা সেজে একই গ্রামের শাহ আব্দুল কদ্দুছ পিতা আব্দুল গফুর, শাহজাহান মিয়া পিতামৃত শাহ আজিজুল হক, মোঃ আনোয়ার বেগ পিতামৃত কুলিন বেগ, মোঃ সাফি মিয়া পিতামৃত আব্দুর রহিমকে গ্রহীতা সাজিয়ে গত ২৩/৮/২০১৫ইং তারিখে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসের ১৫১৩/২০১৫ নং রেজিস্ট্রি দলিলমূলে ১২৭১ নং দাগের ১৫ শতক জায়গার মধ্যে পৌনে ৪ শতক জায়গার মালিকানা লিখে দিয়ে গ্রাম্য ভূমিখেকোদেরকে নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গঠন করেন। পরিকল্পনা মোতাবেক ১৭ আগস্ট বিশ্বম্ভরপুর থানায় যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভ্রাতা এসএম নুরুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে শাহ আবুল লেইছ বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ২৪ আগস্ট সোমবার ওসি মোঃ শহীদুর রহমান এসএম নুরুল ইসলামকে থানায় ঢেকে নিয়ে বিরোধীয় জায়গার মালিকানা সংক্রান্ত কাগজপত্র দেখতে চান। এসএম নুরুল ইসলাম সময়ের আবেদন জানালে ওসি তাকে পরবর্তী ৩১ আগস্ট সোমবার সময় দেন। কিন্তু ৩১ আগস্ট এর পূর্বেই ওসির নীরবতায় মিথ্যা অভিযোগের বাদী আবুল লেইছ ও তার সহযোগীরা ২৫ আগস্ট মঙ্গলবারই বিরোধীয় কবরস্থানের জায়গায় দখলবাজীতে লিপ্ত হয়।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে আবুল লেইছ এর পক্ষের লোকজন বলেন,আমরা আবুল লেইছ সাহেবের মায়ের খরিদ করা জায়গায় আমাদের দখলস্বত্ত প্রতিষ্টা করেছি। এছাড়া তিনি পৌনে ৪ শতক জায়গা কবরস্থানের নামে দানপত্রমূলে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছেন। অন্যদিকে যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এসএম শামসুল ইসলাম বলেন,আমার পিতা একজন নিরক্ষর সাধারন কৃষক ছিলেন। তিনি জীবদ্ধশায় আমাদের নামে দেয়া দানপত্র দলিলে টিপসহী দিয়েছেন। এছাড়া গাজীরগাও গ্রামের জহুর আলীর কাছে জায়গা জমি বিক্রয় করতে গিয়ে ১৯৫৫/১৯৭৯,৪৮২২/১৯৮১ ও ১৫৭৭৪/১৯৮০ নং দলিলে অনুরুপভাবে টিপসহী দিয়ে দলিল সম্পাদন করেছেন। আমার বাবার কাছ থেকে জায়গা ক্রয়কারী গাজীরগাও গ্রামের আছর আলীর ৫২০৮/১৯৮১ নং দলিল এবং আব্দুর রহীম ও ইদ্রিছ আলীর ৪৮২১/১৯৮১ নং দলিলগুলোতেও বাবার টিপসহী রয়েছে। কিন্তু শাহ আবুল লেইছ আমার পিতাকে বিক্রেতা ও তার মাতাকে ক্রেতা সাজিয়ে যে দলিল সৃজন করেছেন তাতে দেখা যায় আমার পিতার দস্তখত রয়েছে। বাস্তবে আমার পিতা স্বাক্ষর দেয়া জানতেননা। এছাড়া ৪৪ বছর পর আবুল লেইছ উক্ত দলিল দেখালেও এর আগে কোনদিনই আমাদের কবরস্থানের জায়গা তাদের বলে বৈধভাবে কোন মালিকানা দাবী করেননি। ১৯৭২ সালে আমার বাবা তাদের কাছে এ জায়গা বিক্রয় করলে অবশ্যই আমাদেরকে বলতেন। এবং এ জায়গা বাদ দিয়ে আমাদেরকে দানপত্র দিতেন। আবুল লেইছ প্রদর্শিত ১০৫৮৬/১৯৭২ নং দলিলটিকে তিনি জাল দলিল বলে চ্যালেঞ্জ করেছেন। দখলবাজীর ঘটনার কথা স্বীকার করে বিশ্বম্ভরপুর থানার ওসি মোঃ শহীদুর রহমান বলেন,আমি উভয়পক্ষকে কাগজপত্র দেখানোর কথা বলেছি কিন্তু তারা কেউই আমার কথা শুনেনি। দুপক্ষই দখলবাজীতে ব্যস্ত রয়েছে। গৃহবধু আনোয়ারা বেগম বলেন,আমি সকাল সাড়ে ৯টায় আমাদের বাঁশঝাড় ও কবরস্থানের জায়গার বাঁশ ও গাছের ছাড়া প্রতিপক্ষরা জোরপূর্বকভাবে কেটে নিয়ে দখলবাজী চালাচ্ছে বলে ওসি সাহেবকে জানিয়েছি। তিনি এএসআই মামুন সাহেবকে ঘটনাটি দেখার জন্য বলেছেন। এছাড়া ঘটনার দিন বিকাল ১টার দিকে এসআই সাইফুল ঘটনাস্থলে গিয়ে ৩১ আগস্ট থানায় কাগজপত্র দেখানোর নির্ধারিত তারিখের আগেই প্রতিপক্ষকে বাঁশ ও গাছের ছাড়া কেটে নেয়ার জন্য কৈফিয়ত তলব করেন। ওসির নির্দেশমতে আনোয়ারা বেগম ৯ জনকে আসামী করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বিকাল ৩টায় ওসি অভিযোগটি ফরোয়ার্ড করে দেন এসআই সাইফুলকে। কিন্তু যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের গৃহবধূ আনোয়ারা বেগমের অভিযোগটি এখনও আলোর মুখ দেখেনি। শেষ পর্যন্ত ঘটনাটি কোনদিকে মোড় নেয় সেদিকে দৃষ্টি এখন সকলের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24