সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

বিয়ানীবাজারে দু’বছরে ছাত্রলীগের ৪৩ সংঘর্ষ, ২ খুন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২২ জুলাই, ২০১৭
  • ৪৫ Time View

মিলাদ জয়নুল, বিয়ানীবাজার (সিলেট) থেকে ::বিয়ানীবাজার উপজেলা ও পৌর শাখা ছাত্রলীগের কমিটি নেই গত ১৩ বছর। ৬ বছর থেকে সরকারি কলেজেও কমিটি নেই। উপজেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ আহ্বায়ক একটি হত্যা মামলার প্রধান আসামি হয়ে ৫ মাস থেকে কারাগারে। একই কমিটির দুই যুগ্ম আহ্বায়কের একজনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগে ও অপরজন ইউরোপে পাড়ি জমিয়েছেন। এখানকার ছাত্রলীগ
নিজেদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দলে গত ২ বছরে ৪৩ বার সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে। এসব সংঘর্ষে কারো চোখে গুলি লেগেছে আবার কারো বুকে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২ শতাধিক। নিজেদের মধ্যে মারামারির দায়ে এক পক্ষ আরেক পক্ষের বিরুদ্ধে মোট ৪৭টি মামলা করেছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে খালেদ আহমদ লিটু (২৫) নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী এবং নিজু আহমদ (১৫) নামের এক কিশোর সবজি বিক্রেতা খুন হয়েছে। এখানে ছাত্রলীগের ৬টি গ্রুপ রয়েছে। তারা কেউ কারো কথা শোনেনা। ছাত্রলীগের এতসব বিরোধ মীমাংসায় কেউ এগিয়েও আসে না। অভিভাবক সংগঠন আওয়ামী লীগ কিংবা কেন্দ্রীয় ও জেলা ছাত্রলীগ তাদের বিবাদের বিষয়ে ‘ভালোই ওয়াকিবহাল’। কিন্তু তারাও একেকজন একেক গ্রুপের সমর্থনে থাকায় ছাত্রলীগে জ্বলে ওঠা উনুনের তাপমাত্রা কেবল বাড়ছে।
এদিকে গ্রুপিং কোন্দলের কারণে বিয়ানীবাজারে ছাত্রলীগ পৃথকভাবে মিছিল, সভা-সমাবেশ করে। এসব মিছিলে লোকবল বাড়াতে আবার ‘ভাড়াটিয়া’ কর্মীদের ডাক পড়ে। আর নেতাদের ডাকে ‘হাজিরা’ ভিত্তিতে যোগ দেয় নাপিত, মুছি, দোকানের কর্মচারী, বখাটে, অছাত্র, ব্যবসায়ী, দাগি অপরাধী, মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী। মিছিলে আসে দর্জি, মিস্ত্রি আর শ্রমজীবী। গত ১৭ই জুলাই কলেজ ক্যাম্পাসে গুলিতে নিহত খালেদ আহমদ লিটুও অছাত্র কর্মী। সে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের সকল মিছিল, সভায় সক্রিয় অংশগ্রহণ করত।
ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জানান, বিয়ানীবাজারে প্রপার গ্রুপের মাঠ পর্যায়ের নেতৃত্বে রয়েছেন যুবলীগ নেতা আতিকুর রহমান ও জেলা ছাত্রলীগের সদস্য কাওছার আহমদ, জাফর আহমদ, রিভারবেল্ট গ্রুপের নেতৃত্বে মাথিউরা ইউপি চেয়ারম্যান শিহাব উদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের তথ্য সম্পাদক মো. আমান উদ্দিন, ইকবাল হোসেন তারেক, পল্লব গ্রুপের নেতৃত্বে সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আবুল কাশেম পল্লব, জামাল গ্রুপের নেতৃত্বে সাবেক আহ্বায়ক জামাল হোসেন, পাভেল মাহমুদ গ্রুপের নেতৃত্বে জেলা ছাত্রলীগের আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক পাভেল মাহমুদ ও স্বাধীন গ্রুপের নেতৃত্বে জেলা ছাত্রলীগের সদস্য কে এইচ সুমন। বিবদমান এসব গ্রুপগুলোর কোনো কর্মী তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে পরস্পরের বিরুদ্ধে সংঘর্ষে জড়ায়। ছাত্রলীগের ইদানীং বেশিরভাগ সংঘর্ষ আবার ‘মেয়েঘটিত’। ত্রিভুজ প্রেমের কারণে বেশিরভাগ সংঘর্ষ হয় বলে ছাত্রলীগ নেতা পাভেল মাহমুদ জানান। গত ১৭ই জুলাই কলেজের শেণিকক্ষে গুলিতে নিহত খালেদ আহমদ লিটুর মৃত্যু-পূর্ববর্তী উত্তেজনা এবং পল্লব গ্রুপের সঙ্গে সৃষ্ট ধাওয়া-পাল্টাধাওয়াও ‘হৃদয়ঘটিত’ কারণে ঘটেছে বলে তিনি আরো জানান।
বিবদমান গ্রুপগুলোর সবার দাবি অবশ্য অভিন্ন। তারা কমিটি চায়, নেতৃত্বের আসনে বসতে চায়। জেলা ছাত্রলীগের সদস্য কাওছার আহমদ বলেন, ‘কত বছর থেকে কমিটি হয়নি। আর কমিটি না হওয়ার কারণে নেতৃত্বের দ্বন্দ্ব থেকে গ্রুপিং বাড়ছে, সংঘর্ষ হচ্ছে।’ একই মত প্রকাশ করেন জেলা ছাত্রলীগের তথ্য সম্পাদক মো. আমান উদ্দিন। তিনি বলেন, অভিভাবকরা এখানে কোন্দল জিইয়ে রেখেছেন।’ ছাত্রলীগের কোন্দল প্রসঙ্গে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জাকির হোসেন জানান, ‘জেলা এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ রহস্যজনক কারণে কমিটি না দিয়ে কোন্দল সৃষ্টি করছে। বিগত দিনে কর্মিসভা করে কমিটি ঘোষণার তারিখ দেয়ার পরও তারা কারও ইশারায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে রক্তপাত বাড়াচ্ছে। সিলেটের সব উপজেলায় ছাত্রলীগের কমিটি থাকলেও শুধুমাত্র বিয়ানীবাজারে কমিটি না থাকার কারণ খুঁজে পাচ্ছি না।’ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদ জানান, ‘১০-১৫ জন নিয়ে মিছিল করলে গ্রুপ হয়ে যায় না। বিয়ানীবাজারে একসময় দু’টি গ্রুপ ছিল। এখন আখের গোছাতে যে যার মতো করে গ্রুপ তৈরি করছে। সঠিক পরিবেশ তৈরি করে কমিটি গঠন করার পদক্ষেপ নিলে সবার জন্য ভালো।’ বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক দ্বারকেশ চন্দ্র নাথ বলেন ‘ছাত্রলীগের গ্রুপিং নিয়ে আমরা খুব সমস্যায়। তবে এটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের বিষয়, তাই কলেজ প্রশাসনের কিছু করার নেই।’ সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম রায়হান চৌধুরী বলেন, ‘প্রায় ১৩ বছর ধরে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নেই। কলেজেও কমিটি নেই। এ অবস্থায় ছাত্রলীগ নিয়ন্ত্রণ করতে অবৈধভাবে যারা গ্রুপিং জিইয়ে রাখেন, তারাই মূলত সকল খারাপ কাজের জন্য দায়ী। এর দায় ছাত্রলীগ নেবে না।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24