শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত কণ্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৭
  • ৫৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:;মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠসৈনিক আব্দুল জব্বার। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার পরে তাকে সেখানে দাফন করা হয়।

বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হয় শিল্পী আব্দুল জব্বারের মরদেহ। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মুক্তিযোদ্ধা এ গায়কের নাগরিক শ্রদ্ধানুষ্ঠানে রাজনীতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ নানা পেশার মানুষের ঢল নামে। সবাই ফুলেল শ্রদ্ধায় সিক্ত করেন বাংলা সংগীতাঙ্গনের এ বরপুত্রকে। তার স্মরণে সেখানে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। খোলা হয় শোক বই।

শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন পর্বের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে তার মুখ্য সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপরই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সাংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাভোকেট কামরুল ইসলাম চৌধুরী, ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস এমপি প্রমুখ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। আরও ছিলেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, ঢাকা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদসহ আরো অনেকে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রয়াত আব্দুল জব্বার সুরের জাদুকর ছিলেন। বাংলা গানের হেমন্ত মুখোপাধ্যায় হিসেবে তাকে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের এ কণ্ঠসৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধা আমাদের আত্মার আত্মীয় ছিলেন। বঙ্গবন্ধুও তাকে খুব ভালোবাসতেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা সংগ্রামে যে গানগুলো গেয়েছেন, তা আমাদের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে এবং কালজয়ী হয়ে আছে।

শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সুভাস সিংহ রায়, জাসদের (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আক্তার এমপি, গণফোরামের অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, ড. জাহিদ হাসান, আবদুস সালাম, গাজী মাজহারুল আনোয়ার ও নায়ক উজ্জ্বলের নেতৃত্বে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি), গণতন্ত্রী পাটির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন, জাসদ (আম্বিয়া) সভাপতি শরীফ আম্বিয়া, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ), বাংলাদেশের ওর্য়াকার্স পার্টি ও বাংলাদেশ সাম্যবাদী দলের নেতৃবৃন্দ।

বিশিষ্টজনদের মধ্যে খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমীন, কুদ্দুস বয়াতী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ভিসি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের পক্ষে কলমসৈনিক কামাল লোহানী, শিল্পী বুলবুল মহলানবীশ, কল্যাণী ঘোষ, সৈয়দ হাসান ইমাম, আশরাফুল আলম, দেবু ভট্টাচার্য, গণস্বাস্থের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, উদীচীর পক্ষে সভাপতি ড. শফিউদ্দিন আহমেদ, গান বাংলা টেলিভিশনের পক্ষে শিল্পী মাহমুদ সেলিম, জাতীয় জাদুঘরের পক্ষে মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষে সভাপতি গোলাম কুদ্দুছসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ, মরহুম শিল্পী আব্দুল জব্বারের বড় ভাইয়ের সন্তানগণ এ শিল্পীর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠসৈনিক আব্দুল জব্বার বুধবার সকাল নয়টার দিকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

চলতি বছরের মে মাসে তিনি এই হাসপাতালে ভর্তি হন। ওই সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান জানান, আব্দুল জব্বার ক্রনিক কিডনিজ ডিজিস (সিকেডি) স্পেস ফোরে ভুগছেন। এছাড়া তার লিভারে সমস্যা ছিল।

‘জয় বাংলা বাংলার জয়’, ‘সালাম সালাম হাজার সালাম’, ‘ওরে নীল দরিয়া’, ‘তুমি কি দেখেছো কভু জীবনের পরাজয়’সহ অসংখ্য গানের গায়ক আব্দুল জব্বার।

তার গাওয়া ‘তুমি কি দেখেছ কভু জীবনের পরাজয়’, ‘সালাম সালাম হাজার সালাম’ ও ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’ গান তিনটি ২০০৬ সালের মার্চ মাসে বিবিসি বাংলার শ্রোতাদের বিচারে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ২০টি গানের তালিকায় স্থান পায়।

তিনি বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত দু’টি সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার একুশে পদক (১৯৮০) ও স্বাধীনতা পুরস্কারে (১৯৯৬) ভূষিত হন।

আব্দুল জব্বার ১৯৩৮ সালের ৭ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24