রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:২০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের!

বেতন না দেয়ায় ছাত্রীকে এক পায়ে দাঁড় করালেন শিক্ষক

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ জুলাই, ২০১৭
  • ২২ Time View

ধর্মপাশা প্রতিনিধি :: ধর্মপাশা জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নাছিমা আক্তারের বিরুদ্ধে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বেতন পরিশোধ না করায় পরীক্ষার হলে ১০ মিনিট দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরবর্তী পরীক্ষায় বেতন পরিশোধ না করলে ওই ছাত্রীকে বিদ্যালয়ের মাঠে এক পায়ে দাঁড় করিয়ে রাখবেন বলেও শাসিয়েছেন তিনি। এ নিয়ে পরীক্ষার্থী সাদিয়া খানম তৃষার মা তাহরিমা নাছরিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করেছেন। সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক কার্যালয়ের একাডেমিক সুপারভাইজারকে দায়িত্ব দিয়েছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সাদিয়া খানম তৃষা জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শাপলা শাখার ছাত্রী। গত রোববার বেলা ১২টায় তৃষা বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা দিতে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করে। বেতন পরিশোধ না করার কারণে শ্রেণি শিক্ষক শিক্ষক নাছিমা আক্তার এ সময় তৃষাকে ১০ মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখেন। পরীক্ষা শুরু হলেও তাকে কোনো খাতা দেওয়া হয়নি। পরে তৃষা নিজেই টেবিল থেকে খাতা নিয়ে লিখতে শুরু করে। পরীক্ষা শেষে তৃষা পরীক্ষার হল ত্যাগ করার সময় ওই শিক্ষক জানায়, পরের দিন বেতন নিয়ে না আসলে তাকে আর পরীক্ষা দিতে দেওয়া হবে না।
ছাত্রীর বাবা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আমার স্ত্রী ওইদিন বিকেলে ইউএনওর কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করেছে। বেতন পরিশোধ না করায় আমার মেয়েকে পরীক্ষার হলে দাঁড় করিয়ে রাখার বিষয়টি অমানবিক। এতে করে আমার মেয়ে মানসিকভাবে আঘাত পেয়েছে। ওই শিক্ষক বলেছে, যদি বেতন না দেয় তাহলে বিদ্যালয়ের মাঠে আমার মেয়েকে এক পায়ে দাঁড় করিয়ে রাখবে।’
অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক নাছিমা আক্তার বলেন, ‘এ ধরনের কোনো আচরণ বা কথা বলিনি। বিদ্যালয়ের সিন্ধান্ত
মোতাবেক পরীক্ষার ফি ও তিন মাসের বেতন চাওয়া হয়েছে।’
বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক চিনু রাণী সরকার বলেন, ‘শিক্ষার্থীর মা বিষয়টি আমাকে জানাতে পারতো। বিদ্যালয়ের বিষয় বিদ্যালয়েই সমাধান করা যেত। এটি কোনো ষড়যন্ত্র হতে পারে।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন খন্দকার বলেন, ‘অভিযোগের ভিত্তিতে বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24