রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন

ব্রিটেনে বাংলা সংবাদপত্রের শতবর্ষপূর্তি পালনের উদ্যোগ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ৭৫ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ লন্ডন থেকে: ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রথম বাংলা সংবাদপত্র ‘সত্যবাণী’র অনলাইন যাত্রা শুরুর ঘোষণা দিয়ে ব্রিটেনে বাংলা সংবাদ পত্রের শতবর্ষ পূর্তী পালনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার পূর্ব লন্ডনের মাইক্রোবিজনেস পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে লন্ডনের বাংলা মিডিয়ার সাথে জড়িত প্রবীন, তরুণ ও এখানেই জন্ম ও বেড়ে ওঠা সাংবাদিকদের সমন্বয়ে গঠিত টিম ‘সত্যবাণী’র পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেয়া হয়। সাংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বাংলা ভাষা শহীদদের রক্তে রাঙানো দিন একুশে ফেব্রয়ারী আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদযাপন করা হবে ব্রিটেনে বাংলা সংবাদপত্রের শতবর্ষ পূর্তী, ঐদিনই অনলাইনে যাত্রা শুরু করবে ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই জনপদের প্রথম বাংলা সংবাদপত্র ’সত্যবাণী’।

সত্যবাণী টিমের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, লন্ডনের বাংলা মিডিয়ার সিনিয়র সাংবাদিক সৈয়দ আনাস পাশা। তাঁর সাথে মঞ্চে ছিলেন টিমের সদস্য বিশিষ্ট সাংবাদিক, আবু সালেহ মোহাম্মদ মাসুম, মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ, জামাল খান ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর খান। অতিথি হিসেবে অংশ নেন লন্ডনের বাংলাদেশ হাইকমিশনের মিনিষ্টার প্রেস নাদিম কাদির।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়া শতবর্ষ পূরণের গৌরব অর্জন করেছে। ইতিহাসের ভাষ্যমতে ১৯১৬ সালে ‘সত্যবাণী’ নামে প্রথম বাংলা পত্রিকা প্রকাশের মাধ্যমে এই জনপদে বাংলা মিডিয়ার যে যাত্রা শুরু হয় তা ১শ বছর পূর্ণ করেছে ২০১৬ সালে।’। শতবর্ষ পুরনের এই সময়কে প্রবাসীদের আরেক গৌরবজনক অর্জনের ইতিহাস সংযুক্তি আখ্যায়িত করে বলা হয়, ‘আমরা এই গৌরবের উত্তরাধিকার বহন করতে চাই, এই মুহূর্তে আমাদের ঘোষণা: ‘সত্যবাণী’কে নিয়ে যাবো ‘আজি হতে শতবর্ষ পরে’র প্রজন্মের কাছে, অনলাইন মিডিয়ায় পুনরুজ্জীবিত করবো ব্রিটেনে বাংলা মিডিয়ার এই ঐতিহ্যের স্মারক’।

প্রবীণ, তরুণ ও এখানে বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের সাংবাদিকদের সমন্বয়ে গঠিত একটি টিম এই স্বপ্ন সামনে নিয়ে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে, এমনটি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, ‘এক সময় দুনিয়া শাসন করা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের হৃদপিন্ড ব্রিটেনে আজ থেকে একশ বছর আগে বাংলা প্রকাশণা শুরু কোন সাধারণ বিষয় ছিলোনা, নিজেদের ভাষা, সাহিত্য ও সংষ্কৃতি সাথে নিয়ে একটি শক্তিশালী কমিউনিটি ভিত্তি গড়তে মূলত এটি ছিলো পরবর্তী প্রজন্মের জন্যে পূর্ব প্রজন্মের একটি দিকনির্দেশনা।’

এই দিক নির্দেশনার কারনেই পূর্ব প্রজন্ম রচিত ভিত্তির উপর এখন দাড়িয়ে আছে শক্তিশালী কমিউনিটি ইমারত, এমন মন্তব্য করা হয় সাংবাদিক সম্মেলনে। বাংলা সংবাদ মাধ্যমের যাত্রা শুরুর কারিগর কৃতি পুরুষদের স্মরণ করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘আমাদের উজ্জল ভবিষ্যতের পথ দেখিয়েছিলেন যারা, যাদের ভিত্তি রচনার কারনে ব্রিটেনে আমাদের আজকের সমৃদ্ধ অবস্থান, আমরা তাদের স্মরণ করতে চাই’।

পূর্ব প্রজন্মের এই ঋন স্বীকারের লক্ষ্য সামনে রেখে ব্রিটেনে বাংলা মিডিয়ার শতবর্ষ উদযাপনের ঘোষনা দেয়া হয় সংবাদ সম্মেলনে। জানানো হয়, আগামী ২১ শে ফেব্রয়ারী, মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে এসেক্সের গুড মেইজ মেফেয়ার ভেনুতে অনুষ্ঠিত হবে শতবর্ষ উদযাপনের এ আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠান ও গালা ডিনার। এদিন ‘ব্রিটেনে বাংলা মিডিয়ার ১শ বছর’ শীর্ষক একটি পোষ্টার প্রদর্শনীও অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয় সাংবাদিকদের। বলা হয়, অনুষ্ঠানে দুই প্রজন্মের জনপ্রিয় শিল্পীদের অংশ গ্রহনে রয়েছে সাংস্কৃতিক পর্বও।

ব্রিটিশ মূলধারার মিডিয়ার অনেকেই বাংলা মিডিয়ার শতবর্ষ উদযাপনে উপস্থিত থাকবেন এমন প্রত্যাশার কথাও জানান আয়োজকরা। অনুষ্ঠান সফলতায় সকলের সহযোগিতা কামনা করে বলা হয়, ‘বাংলা প্রেসক্লাবসহ প্রতিটি প্রিন্ট, টিভি , বেতার ও অনলাইন মিডিয়াকে সাথে নিয়েই আমরা উদযাপন করবো স্মরণীয় এই মুহূর্তটি। আসুন আমরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করি, শতবর্ষ আগের বাংলা মিডিয়াকে নিয়ে যাই শতবর্ষ পরের প্রজন্মের কাছে।’

উল্লেখ্য, বাংলা মিডিয়ার শতবর্ষ উদযাপনের এই ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান আয়োজনে সহযোগীতা করছে রুচিতা তান্দুরী রেডহীল, প্রাচীনতম বাংলা সাপ্তাহিক জনমত, গুডমেইজ মেফেয়ার ভেন্যু, চ্যারিটি সংগঠন কমিউনিটি হীরোজ, হার্টলিপুলের সিটন তান্দুরী, সোনালী বিজনেস সেন্টার, প্রাইড অফ এশিয়া, ইন্ডিয়া গার্ডেন রেষ্টুরেন্ট, ঢাকা তান্দুরী ও ফেইথ প্রিন্টিং এন্ড ডিজাইন।
Quick Reply

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24