রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১০:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু

মতিউর কে ক্ষমা চাইতে বললেন মান্নান

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২২ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ২৪ Time View

দ. সুনামগঞ্জ অফিস::
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেছেন,‘ মতিউর রহমান দলের হয়ে বিএনপি-জামায়াতের মত আমার বিরুদ্ধে ও সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলেছে। আমি তাদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবো। না হলে তারা দক্ষিণ সুনামগঞ্জে আসুক, এসে জনসভা করে এ দক্ষিণ সুনামগঞ্জের মানুষের কাছে ক্ষমা চাক। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুরের মানুষ যদি তাদের ক্ষমা করে তা হলে আমি কিছু করবো না।’
শনিবার বিকালে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা উন্নয়ন পরিষদের আয়োজনে উপজেলার ৮ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-সদস্য ও জেলা পরিষদ নির্বাচনে নবনির্বাচিত ৭, ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য ও ৭,৮,৯ ও ১০,১১,১২ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্যাদের গণসংর্বধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন তিনি।
প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান আরও বলেন,‘ তারা সুনামগঞ্জে বসে-বসে মানুষকে মিথ্যা বলছে, আমি নাকি সুনামগঞ্জে একটি ইটও লাগাই নি। তারা কি জানে না বিগত ৮ বছরে আওয়ামী লীগ সরকার সুনামগঞ্জে জন্য কত উন্নয়ন করেছে। এই সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে ১৪টি সেতু নির্মাণ করেছি। আমরা ১৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে কুশিয়ারা নদীর উপর রানীগঞ্জ সেতু নির্মাণ করছি। সুনামগঞ্জ সুরামা সেতুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করেছি।
তিনি বলেন, আমি কত উন্নয়নের কথা বলবো?
নিজের কাছে লজ্জা লাগে এগুলো বলতে। এগুলো আপনারা জানেন। আমি সরকারের টাকায় নিজের নামে কোন প্রতিষ্ঠান করিনি। আমি, ইট-বালু-পাথর-জলমহাল খেতে রাজনীতিতে আসিনি। আমি আপনাদের কথা দিয়েছিলাম নির্বাচিত হলে আপনাদের সেবা ও এলাকার উন্নয়ন করবো। আপনারা দেখেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন, সারা বাংলাদেশে ২০১৮ সালের মধ্যে বিদ্যুতের আওতায় আসবে। কেউ বিদ্যুতহীন থাকবে না। কিন্তু আমার নির্বাচনী এলাকা এই দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর উপজেলার জনগণ আগামী ৩ মাসের মধ্যে সবাই বিদ্যুতের আওতায় চলে আসবেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন,‘ কয়েক দিন আগে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার দাবির প্রেক্ষিতে এই হাওর অঞ্চল সুনামগঞ্জের জন্য একনেক সভায় একটি মেডিকেল কলেজ ও একটি বিশ^বিদ্যালয়ের অনুমোদন করেছেন। এটা কার জন্য হয়েছে। বলেন আপনার?
প্রতিমন্ত্রী বলেন,‘ যারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছে, তারা বলে, আমি নাকি ৭১ সালে পাকিস্তানে ছিলাম। আরে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জানেন। এই এলাকার জনগণ জানেন, আমি কোথায় ছিলাম। সরকারের ফাইল আছে। তিনি বলেন, আমি ১৯৫৭ সাল থেকে ১৯৬১ সাল পর্যন্ত ৪ বছর লেখাপড়ার জন্য পাকিস্তানে ছিলাম। সেই সময় আমি সুনামগঞ্জ মহকুমায় শত-শত ছাত্রদের মধ্যে পরীক্ষায় ১ম স্থান অধিকার করেছিলাম। পরে ১৯৭০ সালে আমি সহ সারা দেশের অনেকেই চাকুরির জন্য আবেদন করেছিলাম। পরে পরীক্ষার মাধ্যমে সারা দেশের মধ্যে আমি ১ম স্থান লাভ করি। কিন্তু সেই সময় পরীক্ষায় আমার যারা উত্তির্ণ হয়েছিলাম আমাদের কারও চাকুরি হয়নি। এর পরেই শুরু হল মহান মুক্তিযুদ্ধ। সেই সময় আমি কি করেছিলাম আপনারাই জানেন। আমি আমার গ্রামেই ছিলাম। আপনারই আমার প্রত্যক্ষদর্শী। আমি পাকিস্তানীদের সহযোগিতা করেছি কি মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করেছি আপনারাই দেখেছেন।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন,‘ ১৯৭২ সালের ২৮শে জানুয়ারি আমরা ৬০ জন যারা পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেছিলাম তারা সবাই বলল আমাদের মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে আমি দেখা করে কথা বলার জন্য। আমি তখন সৎ সাহস নিয়ে, অনেক অপেক্ষা করতে করতে, রাত ১১টায় বঙ্গবন্ধুর বাসায় প্রবেশের অনুমতি পাই। ভেতরে প্রবেশ করে, বঙ্গবন্ধুর পিএস বর্তমান সংসদের মাননীয় স্পিকার ড. শীরিন শারমিন চৌধুরীর পিতা রফিক উল্লাহ চৌধুরীর সাথে দেখা হয়। তিনি আমাকে বসতে বলেন। কিছুক্ষণ পরে আমাকে তিনি বলেন, উপরের তলায় যাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধু আমাকে ডেকেছেন। আমি তখন, সেই কাঠের সিঁড়ি বেয়ে দু’তলায় উঠি। ছোট্ট একটি কক্ষে তখন বঙ্গবন্ধু থাকতেন। আমি সেই কক্ষে প্রবেশ করে দেখি, আমাদের মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধ ও তাহার পাশে বতর্মান বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমদ ও অন্য পাশে ছিলেন মরহুম শ্রমিক নেতা (নোয়াখালী বাড়ি) নুরুল হক। বঙ্গবন্ধু আমাকে দেখে বললেন, কি তুমি কিসের জন্য এসেছ? আমি তখন বললাম স্যার আমি গ্রামের এক গরীব পিতার সন্তান, আমি সহ অনেকেই চাকুরির জন্য ৭০ সালে পরীক্ষা দিয়ে ৬০ জন উত্তীর্ণ হয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের চাকুরি হয়নি।’ তখন আমাদের বঙ্গবন্ধু আমার কথা শুনে, সাথে-সাথেই বললেন, তোমাদের মত শিক্ষিত ছেলেরাই আমার এই যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের জন্য দরকার। যাও আমি দেখছি কি করা যায়। কোন চিন্তা করো না। তোমাদের চাকরি হয়ে যাবে। পরে ১৯৭৪ সালে আমাদের চাকুরি হয়।’
তিনি বলেন, সেই চাকুরির নিয়োগপত্র বঙ্গবন্ধুর স্বাক্ষারসহ কাগজ আমার কাছে আছে ও সরকারের কাছে আছে। আর মতিউর বলে, আমার চাকুরি না কি জিয়াউর রহমান দিয়েছিলেন? কি মিথ্যা কথা। দলের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার সেই কাগজপত্র আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানেন। আমি কেমন মানুষ, আমি সরকারের টাকা লুটে-পুটে খাচ্ছি না দেশের উন্নয়ন করছি?
তিনি আরো বলেন,‘ আমি আপনাদের সন্তান, আপনাদের সেবা করার জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছি। আমার আর কোন সম্পত্তির প্রয়োজন নাই। আমি আপনাদের ভালবাসা নিয়ে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত কাটিয়ে যাবো।’
সভায় সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি অ্যাড. বোরহান উদ্দিন দোলনের সভাপতিত্বে ও প্রভাষক নুর হোসেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সিরাজুর রহমান সিরাজ, জেলা পরিষদের নব নির্বাচিত সদস্য মাহতাবুল হাসান সমুজ ও জহিরুল ইসলাম, সদস্যা শামিমা সুলতানা হালিমা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি হাজী তহুর আলী, মাও. আব্দুল কাইয়ূম, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল বাছিত সুজন, জয়কলস ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা জিএম সাজ্জাদুর রহমান, পশ্চিম বীরগাও ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, পাথারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রশিদ আমিন, পশ্চিম পাগলা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক, পূর্ব পাগলা ইউপি চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন, দরগাপাশা ইউপি চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন, পূর্ব বীরগাও ইউপি চেয়ারম্যান নুর কালাম, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক মাসুক মিয়া, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি রিপন তালুকদার, জুবেল আহমদ, রাজা মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান সুজন, যুগ্ম-সম্পাদক লিয়াকত আলী, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম শিপন।
সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপির ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (রাজনৈতিক) হাসনাত হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, নুর আহমদ, উপজেলা যুবলীগের ত্রাণ সম্পাদক শাকির আহমদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নুর আলম, ধর্ম সম্পাদক রোশন আলী, সহ সম্পাদক জুসেন আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা ছদরুল আহমদ, রয়েল আহমদ, আল-মাহমুদ সুহেল, এমরান হোসেন, আলী শাহান, জাহিদুল ইসলাম সহ প্রমূখ।
সংবর্ধনা সভায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে লোকজন দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে উপজেলা সদরের শান্তিগঞ্জ বাজার মিছিল নিয়ে আসেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24