বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১১:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কলকলিয়া ইউনিয়ন আ,লীগ সেক্রেটারী দীপাল বাবুর শ্রাদ্ধ আজ মীরপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী কে কত ভোট পেলেন

মহান মুক্তিযুদ্ধ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার-এডভোকেট জিয়াউর রহিম শাহিন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ, ২০১৫
  • ২৯৪ Time View

এডভোকেট জিয়াউর রহিম শাহিন::ঊনিশ শত একাত্তর। এ জাতির আত্মপরিচয়ের বছর। সেই সাতচল্লিশ থেকে ক্রমাগত লাঞ্চনা-বঞ্চনার প্রতিবাদে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম। ১৭৫৭ সনের পলাশি বিপ্লব, ১৮৫৭ সনের ব্রিটিশ বিরোধি আন্দোলন, ১৯০৫ সনের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন এর ফলশ্রুতিতে পাকিস্তান ও ভারত রাষ্ট্রের উৎপত্তি। পশ্চিম পাকিস্তানের সু-পরিকল্পিত সাংস্কৃতিক আগ্রাসন একদা ভাবিয়ে তুললো পূর্ব পাকিস্তানের আপামর জনসাধারণকে। উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় পশ্চিমারা। রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে কেন্দ্রিয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেট পথিকৃতের ভূমিকা পালন করে। ৫২এর রাজপথের তীব্র গণআন্দোলনে পশ্চিমাদের ক্ষমতার মসনদে কম্পন সৃষ্টি হলো। সালাম, রফিক, জব্বার, বরকত সহ এ জনপদের সম্ভাবনাময় অনেকের আত্মত্যাগে বাংলা ভাষার দাবি সু-প্রতিষ্ঠিত হয়। ৫২ এর ২১শে ফেব্রুয়ারিতে আমরা আমাদের শেকড়কেই খোঁজে পেলাম। ভাষা আন্দোলন একটি সাংস্কৃতিক আন্দোলন হলেও বাংলাদেশের সমগ্র বর্ণিল ইতিহাসে রয়েছে এর সূদুরপ্রসারি প্রভাব-প্রতিপত্তি। আত্মাকে জানতে পারলেই পরমাত্মাকে জানা যায়। মূলতঃ আত্মার মাঝেই পরমাত্মার বসবাস। অনেক ভয়, দূর্যোগ, দূর্বিপাক, দূর্ঘটনা আর সীমাহীন আত্মত্যাগে অর্জিত ভাষা আন্দোলনের সফলতাই আমাদেরকে ধাবিত করে মহান মুক্তিযুদ্ধে। দেশের সাধারণ নাগরিকই ছিল মুক্তিযুদ্ধের প্রাণ শক্তি। একাত্তর কিন্তু একদিনেই আসেনি। ৫৪, ৬৯ এবং ৭০ এর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এ অঞ্চলের জনসাধারণ ৭১ এর দিকে ধাবিত হয়। সে এক দীর্ঘ ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধের আড়ালে রয়েছে কত ডিগবাজির রহস্যময় নাটকিয়তা। অধ্যাপক আবুল ফজল তার ‘দূর্দিনের দিনলিপি’তে উল্লেখ করেছেন, ‘পাকিস্তান সরকারের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা ছিল তারা কোন সমালোচনা মোটেই বরদাশত করতে পারত না’। আর এটি সকল সরকারের জন্য সময়ের ব্যবধানে বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাড়ায়। সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবিতে একদিকে চললো আন্দোলন অন্যদিকে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পাক-সরকারের সাথে আপোষ আলোচনাও অব্যাহত থাকলো। সুচতুর পশ্চিম পাকিস্তানিদের ‘উর্বর’ মস্তিষ্কে প্রহসন ও কুটকৌশলে আত্মবিশ্বাসী পূর্ব পাকিস্তানের শীর্ষ নেতৃত্ব ক্রমেই চরম মানসিক চাপের সম্মুখিন। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরে বাংলা এ.কে ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, শেখ মুজিবুর রহমান, তাজ উদ্দিন আহমদ প্রমূখের নেতৃত্বে গোটা জাতিই স্বাধীকার, স্বাধীনতার দাবিতে উদ্গ্রীব। সুগভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ২৫ মার্চ রাত্রে শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হলেন। নানা কারণে পূর্ব পাকিস্তান অনেকটা নেতৃত্ব শূন্য। মাঠের রাজনীতিতে নাটকিয় পরিবর্তন। দেশের সাধারণ জনগণ জীবন বাজি রেখে মাঠে ময়দানে নেমে পড়লো। জাতি কিংকর্তব্য বিমূঢ়। মানবতা বিপন্ন। চারিদিকে হিং¯্র অশোভ চক্রান্ত। মানুষ বিভ্রান্ত, অসহায়-নিপতিত নির্ঘাত মৃত্যুর দ্বারে।

পাক-বাহিনীর পৈশাচিক উল্লাস আর সীমাহীন ঔদ্ধত্যে আঁধার প্রহেলিকায় ৫৫৫৯৮ বর্গমাইলের সর্বত্রই বীভৎস নাশকতায় রক্তের ¯্রােত, মা বোনেরা চরম অপমানিত। জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরির লাভায় সুখের পায়রাগুলোর দিকবিদিক ছুটাছুটি। সত্যের পথে উদ্যত উন্নত শির নিয়ে সীমার-খাদকদের বিরুদ্ধে আত্মপ্রত্যয়ী পূর্ব বাংলার বীর জনতা আঘাত হানতে চায় পাক-দস্যুদের চরম বর্বরতায়। শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি। বুলেটের আঘাতে প্রতিনিয়ত কোন না কোন মায়ের বুক খালি হচ্ছে, কোন না কোন বোন স্বামী হারা হচ্ছেন। রাইফেল গ্রেনেড আর স্টেনগানের বিরুদ্ধে বাঁশের লাঠি, ইমানী শক্তি আর দৃঢ় মনোবলই আমাদের সম্বল। বোশেখী রোদ্দুরে এবার যেন হালকা বৃষ্ঠির হাতছানি। গণজাগরণে উত্তাল পুরো মার্চ। এমনই সময়ে জাতির চরম ক্রান্তিলগ্নে চট্টগ্রাম কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে মেজর জিয়ার স্বাধীনতার ঘোষনায় হতবিহ্বল পূর্ব পাকিস্তানিরা ঘুরে দাড়ালো। বিশ্ববাসী চমকে উঠলো। পশ্চিম পাকিস্তানের এদেশীয় কিছু এজেন্ট ছাড়া গোটা পূর্ব পাকিস্তানিরা ঐক্যবদ্ধভাবে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়লো। লেঃ জেনারেল বিএম কাউলের মতো ফুটলিকার বা পদলেহনকারী সবসময় সবদেশে ছিল, আছে এবং থাকবে। এরা এমন প্রজাতির যে, তারা পন্ডিত জহরলাল নেহরুর মতো ঝানু স্টেটসম্যানকেও ঘোল খাওয়াতে পারঙ্গম। অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে চূড়ান্ত স্বাধীনতার জন্য শিকড় সমৃদ্ধ মুক্তিপাগল মানুষেরা মৃত্যুকে সাদরে আলিঙ্গন করে নেমে এসেছিল উত্তপ্ত রাজপথে। এমএজি ওসমানী সহ অনেক বীর সেনানীরা এ জাতির অহংকার। ২৬ শে মার্চ আমাদের স্বাধীনতা দিবস দীর্ঘ আন্দোলন, রক্তপাত। ৭১ এর ১৬ই ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হলো, আমরা বিজয়ী হলাম। কবি দিলওয়ারের ভাষায় তখন চারিদিকে চিরজীবী সাম্যের ধী-আওয়াজ।

পৃথিবীর ইতিহাসে বিচিত্র এ জনপদ যেখানে রয়েছে ‘স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবস’। কত প্রানের বদৌলতে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম তার হিসেবই বা কে রাখছে। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান অনেক মুক্তিযোদ্ধাদের দৈন্যদশায় মনটা অনেক সময় কাঁদে। দেশ স্বাধীন হলো প্রায় চুয়াল্লিশ বছর। আমরা এখনও অনেকটা অগোছালো। কাংঙ্খিত অনেক কিছু থেকেই বঞ্চিত। হিংসা হানাহানি আর রক্তের হোলিখেলা থেকে এখনও মুক্ত হতে পারলাম না। মানবাধিকার, মৌলিক অধিকার, টেকসই গণতন্ত্র, বিচার বিভাগের পূর্ন স্বাধীনতা, উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা এখনও নিশ্চিত হলো না। দেশ সেবায় নিয়োজিত বিরোধী রাজনীতিবিদরা ঘূর্ণায়মান পদ্ধতিতে বার বার আক্রান্ত। পেট্রোল বোমা আর বিনা বিচারে হত্যা এবং বন্দীর লোমহর্ষক ঘটনা প্রবাহ জাতি হিসেবে আমাদেরকে কলংকিত করেই যাচ্ছে। অবৈধ টাকার নেশায় মহল বিশেষ বিষধর সাপের মতো ফণা মেলছে। রক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ থেকে ভক্ষক সাজলে সাধারণের কিই বা করার থাকে। দেশের বিভিন্ন স্থানে এ যেন ছোয়াচে রোগের আকার ধারণ করছে। সিলেটের রায়নগর থেকে জগন্নাথপুরের খাশিলা গ্রামের স্কুল ছাত্র আবু সাঈদকে অপহরণ করে হত্যা করার পৈশাচিক ঘটনায় মহান আল্লাহর আরশ কাঁপছে। এ হত্যাকান্ডের সু-বিচার নিশ্চিত হওয়া খুবই প্রয়োজন। অত্যন্ত নিষ্ঠুর ও নির্মম এ বর্বরোচিত ঘটনায় সভ্য সমাজে লজ্জা নিবারণের আর কি কোন পথ খোলা রইলো? গ্রামে গঞ্জে এবং শহরের অভিভাবকরা স্কুল পড়–য়া নিষ্পাপ ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে মারাত্মক শংকায় ভুগছেন। দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি আসলেই ভয়াবহ। একটি স্বাধীন দেশ এভাবে চলতে পারে না। আজ রাজনৈতিক ও সামাজিক সহমর্মিতার বড়ই প্রয়োজন। দেশে শান্তিময় পরিবেশ বজায় রাখা সকলেরই নৈতিক দায়িত্ব জাতি রাজনৈতিক পরিমন্ডলে হিংসা হানাহানি আর জেদাজেদির পরিত্রাণ চায়। সততা ও মর্যাদার ভিত্তিতে রক্তক্ষয়ী ৭১ এর চেতনায় রাজনৈতিক পরিমন্ডলে আসলেই বৃহত্তর সমঝোতার কোন বিকল্প নেই। ক্ষমতাসীনদের চোখ বুজে উটপাখির মতো বালিতে গড়াগড়ি থেকে বিরতি দিয়ে বাস্তববাদী হওয়ার সময় এসেছে। এক্ষেত্রে সকল বিরোধীদলকেও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের যথেষ্ঠ গুরুত্ব রয়েছে। বায়ান্ন কিংবা একাত্তরে এ ভূখন্ডে রূপের যে উজ্জ্বলদ্যুতি ফুটে উঠেছিল জাতি এর পুনরাবৃত্তি চায়। সত্যকে বলি দিয়ে মিথ্যার বেসাতী কখনও দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে না। জুলুম নির্যাতন থেকে বিরত থাকতে রয়েছে বিশ্বনবীর সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা।

সৃষ্টি জগতের খালিক ও মালিক জালিম ও জুলুমকে মোটেই পছন্দ করেন না। জুলুম নির্যাতন আর অসীম লালসা মানুষকে পাপ পঙ্খিলতার আস্তাকুড়েই নিক্ষিপ্ত করে। বরেণ্য আলেম উলামা এবং গুনীজনদের অপমান করে কেউ কখনও সম্মানের আসনে অধিষ্টিত হতে পারে না। ‘মোম জ্বলে জ্বলে আলো দেয় অতঃপর এক সময় একেবারে নিঃশেষ হয়েই তার পরিসমাপ্তি’। মহান মুক্তিযুদ্ধ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। অন্তরের সকল শ্রদ্ধা আর ভালবাসা দিয়ে একে লালন করতেই হয়। আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও কষ্টার্জিত গণতন্ত্রকে সু-দৃঢ় ভিত্তির উপর সু-প্রতিষ্ঠিত করতে এবং মানবতা ও দেশ প্রেমে উদ্ভুদ্ধ হয়ে নতুন প্রজন্মের শান্তির নীড় গড়ার শান্তিপূর্ন সংগ্রামে এখনই এগিয়ে আসতে হবে দেশের বরেণ্য রাজনৈতিক নেতৃত্বকে। আর এতেই জাতির মুক্তি-এতেই রয়েছে জাতির সুদূর প্রসারি কল্যাণ।
(লেখক, কলামিষ্ট, সাংবাদিক)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24