শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৫৯ অপরাহ্ন

মিরাজ- বিশ্বনবীর মর্যাদা প্রতিষ্টায় এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত -এডভোকেট জিয়াউর রহিম শাহিন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ মে, ২০১৫
  • ২৭৩ Time View

মি’রাজ আরবী শব্দ। এটি উরুজ থেকে উদ্গত। শাব্দিক অর্থ উর্ধ্বারোহনের যান যাহা বিদ্যুতের চেয়েও দ্রুতগতি সম্পন্ন। এর আভিধানিক অর্থ সিড়ি, সোপান বা লিফ্ট। পবিত্র ক্বোরআনের সুরা বনি ইসরাইলে বর্ণিত আছে, ‘ সুবহানাল্লাজি আসরা বি আবদিহী লাইলাম মিনাল মাসজিদিল হারামি ইলাল মাসজিদিল আক্বসাললাজিই বারাকনা হাওলাহু লিনুরিয়াহু মিন আইয়াতিনা ইন্নাহু হুয়াস্ সামিউল বাছির অর্থাৎ পরম পবিত্র ও মহিমাময় সত্তা তিনি যিনি স্বীয় বান্দাকে রাত্রী বেলায় ভ্রমন করিয়েছিলেন মসজিদে হারাম থেকে মসজিদে আক্বসা যার চারিদিকে আমি পর্যাপ্ত বরকত দান করেছিলাম আমি তাকে আমার কুদরতের কিছু নিদর্শন দেখাবার জন্য-নিশ্চয়ই তিনি সর্বশ্রোতা ও সর্বদ্রষ্টা’। ইশরা শব্দের আভিধানিক অর্থ নৈশভ্রমন ইংরেজীতে নাইটমার্চ। মসজিদে হারাম থেকে মসজিদে আক্বসা পর্যন্ত ভ্রমনকেই ইশরা বা মেরাজ বলা হয়। নবুয়তের দশম বর্ষে রমজান কিংবা শাওয়াল মাসে বিশ্বনবীর জীবন সঙ্গীনি হযরত খাদিজা (রাঃ) ও ক্বোরাইশদের অন্যতম নেতা নবীজির চাচা খাজা আবু তালেবের ইন্তেকালের পর অসত্যের কোপানলে মক্কা যখন উত্তপ্ত ঠিক তখন কাফেররা নবিজীর উপর নির্যাতনের মাত্রা বৃদ্ধি করতে থাকে। নবীজি তার পালক পুত্র জায়েদকে নিয়ে পদব্রজে মক্কা থেকে প্রায় ৬০ মাইল দুরে অবস্থিত তায়েফে পৌছান। বিশ্বনবী ধুলির এ ধরায় শুভাগমন করেছিলেন সোমবার দিনে। তার হিজরত, মদিনা শরীফে প্রবেশ এবং তার উপর ওহী নাযিল হয়েছিল সোমবার দিনে। নানা কারনে মহিমান্বিত সোমবারকে ফার্সি ভাষায় দো-শম্বা এবং উর্দ্দুতে পীর বলা হয়। সোমবার অন্য সকল দিনের পীর-সপ্তাহের মধ্যবর্তী দিন।

মুহাম্মদ (সা:) এর জন্ম থেকেই নবী। দুনিয়ার জীবনে তার নবুয়তের সময় কাল মাত্র ২৩ বৎসর। এর মাঝামাঝি অর্থাৎ সাড়ে এগারো বৎসরেই তার মেরাজ সংঘটিত হয়। রজব মাসটি আরবী বছরের প্রায় মাঝামাঝি মাস। উম্মত হিসাবে আমরাও মাঝামাঝি অবস্থানে। মুহাম্মদ (সাঃ) এর সন্তান হযরত আদম (আ:) এর মেরাজ হয়েছিল জান্নাতে, ইব্রাহিম (আঃ) এর উন্মুক্ত মরুপ্রান্তরে, ইসমাইল (আ:) এর চতুর্থ আসমানে, ইদ্রিস (আ:) এর জান্নাতে, মুসা (আ:) এর মেরাজ হয়েছিল তুর পাহাড়ে। বায়ান্ন বৎসর বয়সে নবুয়তের দ্বাদশ বর্ষে ৬২২ খৃষ্টাব্দের ২৬ রজব দিবাগত রাত্রে অর্থাৎ ২৭ রজব সোমবারে বিশ্বনবির মেরাজ হয়েছিল পবিত্র আরশে মোয়াল্লায়। মহানবীর জাগতিক জীবনে এটি ছিল সবচেয়ে অলৌকিক ঘটনা। ঘটনা বহুল পবিত্র এ রজনিতে আল্লাহর নির্দেশে জিব্রাইল (আ:) চাঁদের আলোর সঙ্গে সূর্যের আলোর অংশ মিশিয়ে এবং তারার সঙ্গে চাঁদের আলোর অংশ মিশিয়ে আঁকাশকে করেছিলেন নতুন রূপে আলোকময়। তখন আবু তালেবের কন্যা উম্মে হানির ঘরে নবিজী বিশ্রাম নিচ্ছেন। কেই কেই বলছেন নবিজী এ সময়ে ক্বাবার নিকটবর্তী কোন স্থানে আবার কেউ কেই বলছেন সুবয়ে আবু তালেব এ শায়িত ছিলেন। এমনি সময় বেহেশতি ফেরেস্থা জিব্রাইল (আ:) হাজির হলেন। দাড়িয়েই অত্যন্ত বিনয়ী আহবান। নবিজী জাগলেন। দেখলেন একটু দুরেই বেহেশতি বাহন বোরাক। এটি দেখতে ঘোড়ার মতো, মুখ মানুষের ন্যায়, উজ্জল আলোকময় দুটি ডানা, রং সাদা, লেজ পালক ও বুকের অংশ তারার মতো উজ্জল পাথরের তৈরী, আকার খচ্ছরের চেয়ে ছোট, গতি বিদ্যুতের ন্যায়। কাওছারের পানি দিয়ে নবিজী গোসল করলেন-সাজলেন নতুন সাজে। জান্নাতি পোষাক পরিধান করানো হলো। এবার বোরাক নবিজীর সামনে হাজির। হায়াতুন্নবী বোরাকের পিটে আরোহন করলেন। জিব্রাইল (আ:) বোরাকের লাগাম ধরলেন, ইসরাফিল (আ:) পেছনে দাড়ালেন, ফেরেস্থারা বোরাকের চারিদিকে ঘিরে দাড়ালেন। আল্লাহর পিয়ারা মাহবুব শাফিউল মুজনিবিন মক্কা হতে রোয়ানা হলেন। বায়ুগতিতে চলছে বোরাক। ইয়াসরিব,সানাই প্রান্তর, বায়তুলাহাম স্পর্ষ করে মূহুর্তেই মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আক্বসা অর্থাৎ বায়তুল মুক্বাদ্দাসে। নবীজী হাইকেলে সুলাইমানিতে প্রবেশ করলেন। সকল নবী রাসুল ও ফেরেস্তারা সংবর্ধনা জানালেন। শামী কিতাবে বর্ণিত আছে, হযরত জিব্রাইল (আ:) মোয়াজ্জিনের ভূমিকায় অবতির্ণ হলেন-আযান, ইক্বামত দিলেন। বাবা আদম থেকে শুরুকরে সকল নবী রাসুলের উপস্থিতিতে সায়্যিদুল মুরসালিন মুহাম্মদ (সা:) এর ইমামতিতে দুরাকাত নামাজ সমাপ্ত হলো। আসমান সফরের প্রস্তুতি চললো। নবিজীর সামনে এবার হাজির হলো একটি মিরাজ বা স্বয়ংক্রিয় সিড়ি। আরবীতে সিড়িকে মিরাজ বলা হয়। এজন্য ২৭ রজবের উক্ত ঘটনা মিরাজ নামে সূপ্রসিদ্ধি লাভ করেছে। জিব্রাইল (আ:) নবিজীকে নিয়ে এ বাহনে করেই ১ম আসমানে পদার্পন করলেন। সাক্ষাৎ হলো আদম (আ:) এর সাথে। বেহেস্ত দোযখ সহ অনেক কিছু নবিজীর দৃষ্টি গোচরে এলো। ২য় আসমানে হযরত ইয়াহইয়া (আ:) ও ঈসা (আ:) ৩য় আসমানে ইউসুফ (আঃ) ৪র্থ আসমানে হযরত ইদ্রিস (আ:) ৫ম আসমানে হারুন (আঃ) ৬ষ্ট আসমানে মুসা (আ:) এর সাথে নবিজীর সাক্ষাৎ হলো। সপ্তম আসমানে নবিজী একটি মনোরম অট্রালিকা দেখতে পেলেন। বায়তুল মামুর নামক এ অট্রালিকায় উপবিষ্ট ছিলেন হযরত ইব্রাহিম (আ:)। বায়তুল মামুর মূলতঃ ক্বাবা গৃহের টিক উপরে সপ্তম আঁকাশে অবস্থিত আসমানী ক্বাবা। সপ্তম আঁকাশে দিগন্ত বেষ্টিত সবুজ গালিচা বিশিষ্ট রফরফ এর উপস্থিতি। অতঃপর নবিজী ছিদ্রাতুল মুন্তাহা বা প্রান্ত সীমার কুল গাছ পর্যন্ত পৌছলেন। এ স্থানটি স্রষ্টা ও সৃষ্টি জগতের মধ্যবর্তী সীমা রেখা যেখানে জিব্রাইল (আ:) এর জ্ঞানের শেষ সীমা। অতঃপর হাজার হাজার নুরের পর্দা অতিক্রম করে নুর নবিজী ‘তখতে তাউস’ ভেদ করে আরশে আযিমে। মহান মালিকের নৈকট্য লাভ যাহা ছিল স্থান কালের উর্র্ধ্বে। এখানের দৃশ্যের ঔজ্জল্য এতই প্রখর ছিল যাহা চর্ম চক্ষু দিয়ে দেখা মোটেই সম্ভব নয়। তৎপর আল্লাহ তায়ালা তার প্রিয় বন্ধুকে একেবারে কাছে টেনে নিলেন যার দুরত্ব আও আদনা বা দুটি ধনুকের দুরত্বের চেয়েও কাছাকাছি। মুহাম্মদ (সা:) এবং মহান আল্লাহ তায়ালার মধ্যে চললো গোপন কথোপকতন। পবিত্র ক্বোরআনে বর্ণিত আছে, ‘ মেরাজে আল্লাহ পাকের সাথে রাসুল (সাঃ) এর মহা মিলনের সময় আল্লাহ পাক তাকে যা কিছু দান করার নিমিত্ত ডেকে পাঠিয়েছিলেন তার সব কিছুই দান করলেন’।

বিশ্বনবী মক্কা থেকে মদিনা হিজরত করে একটি ইসলামী রাষ্ট্রের গোড়া পত্তন করবেন আর এ জন্য একটি সমৃদ্ধ সংবিধানের প্রয়োজন। আল্লাহর একত্ববাদ, পিতা-মাতার খেদমত করা, গরীব মিসকিনের হক্ব আদায় করা, অন্যায় পথে অর্থ ব্যয় না করা, মিতব্যয়ী হওয়া, সন্তানদের হত্যা না করা, জিনা ব্যভিচার থেকে মুক্ত থাকা,মানুষকে হত্যা না করা, এতিমদের মালামাল ভক্ষন না করা, ওয়াদা পালন করা, ব্যবসায় সততা বজায় রাখা, তথ্যানুসন্ধানে সতর্ক থাকা, অহংকার থেকে বিরত থাকা এবং আল্লাহর সাথে শিরক না করা সংক্রান্ত চৌদ্দ দফা বিশিষ্ট পৃথিবীর সর্বোত্তম সংবিধান নিয়ে স্ববিস্থারে আলোচনা হয় মে’রাজ রজনিতে আরশে মোয়াল্লায়। আল্লাহর দিদার পেতে সকল নবী রাসুল ব্যাকুল ছিলেন সব সময়। অন্যদিকে জগতের খালিক ও মালিক নবিজীর দর্শন পেতে ছিলেন উদগ্রীব। ইহকাল ও পরকালের কল্যাণে জীবনের সকল ক্ষেত্রে কেবলমাত্র মহানবীর আদর্শ অনুসরণ করা আমাদের অপরিহার্য। তুর পাহাড়ে মুসা নবীর সাথে মহান মালিকের যে কথাবার্তা হয়েছিল তা সূরা তাহা’র মাধ্যমে বিশ্ববাসীকে অবহিত করা হয়। কিন্তু মেরাজ রজনীতে আল্লাহ এবং তার প্রিয় হাবিবের মধ্যে যে কথোপকতন হলো তা গোপনই রইলো। উম্মতে মুহাম্মদির জন্য পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ এ রজনির বদৌলতে শ্রেষ্ট উপহার। মূলতঃ বিশ্ব নবীকে বেদনা মুক্ত করে তার মর্যাদাকে সুউচ্চ আসনে প্রতিষ্টিত করতেই স্বশরীরে নবীজীর মেরাজ। আশি হাজার বছরের পথের সফর নিমিষেই সমাপ্ত। আরশে মোয়াল্লা থেকে ছিদ্রাতুল মুন্তাহা, ছিদ্রাতুল মুন্তাহা থেকে মিরাজে সপ্তম আঁকাশ অতিক্রম করে বিশ্ব মানবতার নবী চলে এলেন বায়তুল মোক্বাদ্দাসে। নবিজীর ইমামতিতে জামাতে নামাজ হলো। অতঃপর বোরাকে ফজরের নামাজের পুর্বেই মক্কায়। গতি বিজ্ঞান, মাধ্যাকর্ষণ তত্ত ও আপেক্ষিক তত্তের পর্যালোচনায় মেরাজের বৈচিত্রতা সহজেই অনুমেয়। এ ঘটনা ইসলামের ইতিহাস তথা ঈমানদার মুসলমানদের জন্য ঐশ্বর্য মন্ডিত। মিরাজ বিশ্বাসীদের ভীত আরো মজবুত করলো। ঐতিহাসিক এ ঘটনা শুনে আবুবকর (রা:) বিশ্বাস স্থাপন করেই সিদ্দিক উপাধী পেলেন। কাফের রা কুৎসা রটনা করতেই থাকলো। মিরাজ বিশ্বনবীর মর্যাদা প্রতিষ্টায় এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এর সাথে ঈমানের গভীরতম সম্পর্ক ওৎপ্রোত ভাবে জড়িত। মিরাজের ঘটনাবলী আমাদের চিন্তা চেতনা ও কল্পনাকে উর্ধ্বমুখি করে। দু জাহানের সর্দার মহানবী (সা:) এর জীবন কোমল কঠোর, নিত্যনৈমিত্তিক প্রাত্যাহিকতা থেকে চরম আধ্যাতিœকথায় মোড়ানো। যে যেমন ভাবে তাকে দেখবে, জানবে, সম্মান করবে তার কাছে তেমন ভাবেই তিনি আবির্ভূত হবেন। (প্রাক্তন প্রভাষক, হবিবপুর ও কেশবপুর ফাযিল মাদ্রাসা, লেখক, সাংবাদিক)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24