মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

মোদির রাত্রীযাপনে ব্যয় ১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৭ জুলাই, ২০১৭
  • ২৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ভারতের ক্ষমতাসীন প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে গত মঙ্গলবার তিন দিনের ‘ঐতিহাসিক’ সফরে ইসরায়েল গেছেন নরেন্দ্র মোদি। এ সফরে মোদি দেশটির জেরুজালেমের কিং ডেভিড হোটেলে থাকবেন। বলা হচ্ছে, সারা বিশ্বে এতটা সুরক্ষিত ‘হোটেল স্যুট’ আর কোথাও নেই। কিন্তু প্রশ্ন হলো, এত নিরাপত্তার জন্য কত ব্যয় হবে? হোটেলের একটি কক্ষে থাকার জন্য প্রতি রাতে ব্যয় হবে ভারতীয় মুদ্রায় ১ কোটি ৭ লাখ রুপি। বাংলাদেশি মুদ্রায় তা ১ কোটি ৩৪ লাখ ১৮ হাজার টাকা।
নিরাপদ কক্ষ
হোটেলের যে কক্ষে নরেন্দ্র মোদি ঘুমাবেন, সে কক্ষে রাতে ভালো ঘুম না হওয়ার নাকি কোনো অজুহাত থাকবে না। বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ হোটেল স্যুট হিসেবে যা যা থাকা দরকার, এর সবই সেখানে আছে। সেখানে বোমা হামলা চালানো কোনোভাবেই সম্ভব নয়। এমনকি রাসায়নিক হামলা চালানোও অসম্ভব। মোদির জন্য বরাদ্দ ওই বিশেষ স্যুটটি তাক লাগানো স্থাপত্যকলায় তৈরি। হোটেলটি একটি প্রধান সড়কের পাশে এবং সেখানে সীমিত পরিসরে যানবাহন চলতে দেওয়া হয়।
একই কক্ষে ট্রাম ছিলেন
মোদি যে হোটেল থাকছেন, তিন সপ্তাহ আগে ইসরায়েল সফরে এসে সেখানেই ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন, জর্জ ডব্লিউ বুশ, বাবার ওবামা—সবাই এ হোটেলে থেকেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টদের পছন্দের কারণ হলো, এ হোটেল নিরাপত্তার সঙ্গে কোনো আপস করে না।

নিরাপত্তা কেন এত গুরুত্বপূর্ণ
১৯৪৬ সালে এ হোটেলে হামলা চালানো হয়েছিল। সেখানে থাকা ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের লক্ষ্য করে বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। তারা হোটেলের দক্ষিণ অংশে ছিলেন। ওই বিস্ফোরণের পর হোটেলটি পুনরায় সংস্কার করা হয়। সংস্কারের সময় নিরাপত্তার ব্যাপারটিতে জোর দেওয়া হয়।
হোটেল ফাঁকা
নরেন্দ্র মোদি থাকবেন বলে হোটেলে থাকা অন্যান্য অতিথি ও হোটেল থাকা অন্য ব্যক্তিদের আগেই চলে যেতে বলা হয়েছিল। হোটেলের ১১০টি কক্ষ মোদির সফরের আগেই ফাঁকা করা হয়েছে। পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণে সুবিধার জন্যই এমনটি করা হয়েছে।

নিরাপত্তাব্যবস্থা
এ হোটেলের বাইরের অংশ কংক্রিট ও ইস্পাতে গড়া। জানালাগুলো রকেট হামলা প্রতিরোধে সক্ষম। মোদি যে কক্ষে থাকবেন, এর শীতাতপনিয়ন্ত্রিত যন্ত্রগুলো গ্যাস নিরোধক। এই হোটেলের কর্মচারী প্রত্যেকে ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনী শিন বেট নিরাপত্তা বাহিনী দ্বারা যাচাই–বাছাই করা ব্যক্তি।

নিরাপত্তার ব্যয়
এই হোটেলের এক একটি কক্ষের ভাড়াও অনেক। গড়ে প্রতি রাতে একটি কক্ষের জন্য গুনতে হবে ১ হাজার ৫০০ ডলার। কিন্তু এ হোটেলের বুকিং মানি অনেক বেশি। আর তা হলো ১ লাখ ৬৫ হাজার ডলার। সে হিসেবে ভারতীয় রুপিতে এই হোটেলে প্রতি রাতের খরচ দাঁড়াবে ১ কোটি ৭ লাখ।
অন্যান্য খাতেও আরও ব্যয় হবে। যেমন—অতিরিক্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা, ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনী এবং নিরাপত্তা–সংক্রান্ত অন্য পরিষেবাও যুক্ত।
সূত্র : প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24