মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

যথাযথ উপলক্ষ পাওয়া গেলে বিচার বিভাগের সমালোচনা করা যেতে পারে-প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০১৫
  • ১৬১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:যথাযথ উপলক্ষ পাওয়া গেলে বিচার বিভাগের সমালোচনা করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা।শনিবার ঢাকায় একটি কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন।
প্রধান বিচারপতি বলেন, একটা দেশের জন্য আইনের শাসন গুরুত্বপূর্ণ যেখানে সব সিদ্ধান্ত আইনের শাসনে হতে হবে।
“উপলক্ষ চাইলে অন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মতো বিচার বিভাগও স্বচ্ছ সমালোচনার বিষয় হতে পারে। কিন্তু সমালোচনা যদি অবৈধ ও দায়িত্বহীন হয়, তাহলে সেটা বিচার বিভাগের বিশাল ক্ষতি হবে।” কিছু ক্রটি সত্ত্বেও বিচার বিভাগকে এখনও মানুষ সম্মানের জায়গায় রাখায় সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধান বিচারপতিসুপ্রিম কোর্ট ও ইউএনডিপির যৌথ আয়োজনে এই কর্মশালায় প্রধান বিচারপতি ‘ই-জুডিশিয়ারি’র প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন।
৬৪ জেলা আদালতে ইন্টারনেট, ওয়াইফাই সংযোগ, মামলার অনলাইন তথ্য, ওয়েব/এসএমএসভিত্তিক কার্যতালিকা, জেলা আদালতগুলোর সঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের ভিডিও কনফারেন্স সিস্টেম, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সাক্ষ্য নথিভুক্তকরণ, ইলেকট্রনিক কেইস ফাইলিং সিস্টেম, জেলা আদালতের মামলা ব্যবস্থাপনা, সব আদালতের ডিজিটাল ডিসপ্লে, রায় আর্কাইভ, রেকর্ড ডিজিটালাইজেশন, ই-লাইব্রেরি, অ্যাকাউন্টিং সফটওয়ার, জেলা আদালতের তথ্যকেন্দ্র, বায়ো মেট্রিক অ্যাটেন্ডেন্স সিস্টেম, তথ্য প্রযুক্তিভিত্তিক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ট্রেনিংয়ের কথা বলেন তিনি।
বিচারপতি সিনহা বলেন, “তথ্য প্রযুক্তি চালু করলেই আমাদের সব সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে না। তথ্য প্রযুক্তি চালু করার পূর্বে কিছু মৌলিক ও কাঠামোগত পদক্ষেপ নিতে হবে।”
কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বিচার বিভাগের নানা পদক্ষেপে সরকারের সহযোগিতার কথা জানান।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতও অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বিচার বিভাগের সমস্যা সমাধানে তথ্য প্রযুক্তিকে কার্যকরভাবে ব্যবহার করতে হবে।পুরো বিচার বিভাগকে ডিজিটালাইজড করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে বলেও জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এবং ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধি রবার্ট ওয়াটকিনসও বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানে।

উদ্বোধনী বক্তব্যে বিচার বিভাগের জন্য একটি সমন্বিত আইসিটি নীতিমালা করা দরকার বলে জানান সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম।

কর্মশালায় সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচারকদের পাশাপাশি আইন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাও অংশ নেন।

আপিল বিভাগের বিচারকদের মধ্যে বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি মো. ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী উপস্থিত ছিলেন।

হাই কোর্ট বিভাগের বিচারকদের মধ্যে ছিলেন বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার, বিচারপতি মো. নিজামুল হক, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম, বিচারপতি নাইমা হায়দার, বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24