বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২:১০ অপরাহ্ন

রাধারমণের গানে মনে স্থিরতা আসে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৯৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:;
বিপুল বৈচিত্র্যময় লোকসংগীতে সমৃদ্ধ সংস্কৃতির এক অনন্য দেশ বাংলাদেশ। কয়েক হাজার বছরের পুরোনো এবং অনন্য এই সংস্কৃতি-বৈষ্ণব, সহজিয়া বৌদ্ধ এবং সর্বোপরি বাউলদের উদার মানবতাবাদ, অসাম্প্রদায়িক ও পরমতসহিষ্ণু আর সমন্বয়বাদী চেতনায় পুষ্ট। তারই এক সাধক সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুরে ১৮৩৩ সালে জন্মগ্রহণকারী রাধারমন দত্ত পুরকায়স্থ। যাকে আমরা রাধারমন দত্ত হিসেবে জানি। এবছর তার ১০২-তম প্রয়াণবর্ষ। বৈষ্ণব সাধক ও লোকসংগীতের অন্যতম পুরোধা এই মরমী কবি’র এ প্রয়াণবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল রাজধানী ঢাকায় ৭ম বারের মতো শুরু হয়েছে ‘রাধারমন সংগীত উৎসব-২০১৭’।
বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্ত মাঠে শুরু হয়েছে তিন দিন সময়সীমার এই ‘রাধারমণ সংগীত উৎসব।’ যৌথভাবে এই উৎসবের আয়োজন করেছে-বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও রাধারমণ সংস্কৃতিচর্চা কেন্দ্র। এবারের এ উৎসব উৎসর্গ করা হয়েছে প্রয়াত রাজনীতিবিদ সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ও সংগীতগুণী অধ্যাপক করুণাময় গোস্বামীকে। এ উপলক্ষে অগ্রহায়ণের দ্বিতীয় দিনে বৃষ্টিস্নাত সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্তমাঠের পার্শ্ববর্তী মঞ্চে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী আয়োজন। এই আয়োজনের শুরুতেই ঢাক-ঢোল আর দোতারার বাদ্যের সঙ্গে প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রাধারমনসংগীতের বর্ষিয়ান শিল্পী সুষমা দাশ। এসময় উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দীন। বিশেষ অতিথি-পিএসসির সদস্য সমর পাল, সাবেক সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল-মামুন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার ও নাসির উদ্দীন ইউসুফ।
এরপরেই শুরু হয় উদ্বোধনী আলোচনা অনুষ্ঠান। রাধারমণ সংস্কৃতি কেন্দ্রের সভাপতি মাহমুদ সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এতে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ রায়। এরপর একে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথিরা। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফরাস উদ্দীন বলেন, নানা কারণে কখনও কখনও মানুষের মন বিক্ষিপ্ত হয়। ক্ষত-বিক্ষত হয়। মানুষ বিমর্ষ হয়। সে সময় সাধক রাধারমণের গান শুনলে মনে এক ধরনের স্থিরতা আসে। তার গানের ভেতর প্রেমের পাশাপাশি মানুষ ও অসাম্প্রদায়িকতা উঠে এসেছে। তরুণ প্রজন্মরা তার এ সব গানের দর্শণ থেকে শিক্ষা নিলে বাংলাদেশে একদিন অসাম্প্রদায়িকতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবে।
অন্য বক্তারা বলেন, রাধারমণ দত্ত কিশোর বয়স থেকে সৃষ্টিত্বত্ত নিয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। সৃষ্টিকর্তার স্বরূপ অনুসন্ধানে মনোনিবেশে করেন। এজন্য তিনি বিভিন্ন সাধুসন্তের আদেশ উপদেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করার চেষ্টা করতেন। শাক্ত, বৈষ্ণব, শৈব মতবাদের ওপর ব্যাপক পড়াশোনা করেন। সবশেষে তিনি সহজিয়া মতে সাধন-ভজন করেন। তিনি কৃষ্ণভাবে বিভোর হয়ে রাধাকৃষ্ণ প্রেমলীলা নিয়ে লোকগান রচনা করেন। তিনি ভজন সংগীতে বিভোর হয়ে গান রচনা করে নিজেই তা গাইতেন। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে ভাবরসে বিভোর হয়ে গীতরচনা করতেন।
আলোচনা অনুষ্ঠান শেষেই লঘুচাপের কারণে সৃষ্ট বৃষ্টিবিঘিœত অগ্রহায়ণের সন্ধ্যায় শুরু হয় উৎসবের মূল আয়োজন সংগীত পরিবেশন পর্ব। এর প্রথমেই সংগীত পরিবেশন করেন উৎসব উদ্বোধক রাধারমণসংগীত ও লোকসংগীতের অনন্য কণ্ঠশিল্পী সুষমা দাশ।
বৈরি আবহাওয়ায় গান শোনার অভিলাষে গান পাগল মানুষের আশাতীত উপস্থিতির মাঝে মুগ্ধতা ছড়িয়ে দিতে তিনি পরিবেশন করেন-‘ও আমার শ্যাম বিনে প্রাণ বাঁচে না’ ও ‘কতদিনে হবে দেখা ওরে শ্যাম’ শীর্ষক দু’টি গান। এর পর গানের পালায় একে একে সংগীত পরিবেশন করেন ঢাকা অঞ্চলের ১৮জন শিল্পী ও দুইটি সাংস্কৃতিক দল। এতে বিশ্বজিৎ রায় পরিবেশন করেন ‘গৌর নামে চলছে গাড়ি’ ও ‘হরি গুণাগুণ কৃষ্ণ গুণাগুণ’। আবু বকর সিদ্দিক গাইলেন ‘কারে দেখাবো মনের দুঃখ’ ও আমার বন্ধু দয়াময়’, আকরামুল ইসলাম ‘ও প্রাণে বিন্দে’, শাহনাজ বেলী ‘যুগল মিলন হইল গো’ ও ‘পিরিতি বিষম জ্বালা’, অনিমা মুক্তি গোমেজ শোনান ‘আমার গলার হার’ ও ‘জলের ঘাটে দেইখ্যা আইলাম’, দিল আফরোজ রুবা ‘শ্যাম দাও আনিয়া বৃন্দে গো’ ও ‘কালার প্রাণটি নিল বাঁশিটি’, দিপ্তী রাজবংশী ‘বাঁশিতে পরানের বাঁশি’ ও ‘আমার বন্ধুয়ার মনে নাই’। এ ছাড়া আরও গান পরিবেশন করেন নওশিন লায়লা, খগেন সরকার, সন্দীপন, সুতপা রায়, চম্পা বণিক, খায়রুল ইসলাম, মুগ্ধ সরকার, শরীফা নাজনীন তৃপ্তি, সালাম, মানিক, ও মুক্তা। দলীয় সংগীত পরিবেশনায় অংশ নেয় দুইটি দল। রাধারমণ সংস্কৃতিচর্চা কেন্দ্রের শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘সজনি তোরা জল আনিতে যাবেনি’ ও ‘সুরধনির কিনারায়’। মন্দিরা শিল্পী গোষ্ঠী ‘বলগো বলাগো সখি’ ও ‘প্রাণসখিরে ওই শোন কদম্বতলে’। উৎসবের দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন সিলেট, হবিগঞ্জ ও নবীগঞ্জের শিল্পীরা। আজ শনিবার সমাপনী অনুষ্ঠান শুরু হবে বিকেল ৫টায়। সূত্র- সু.খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24