সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের!

শিক্ষিকার অপ্রস্তুত ঘুমন্ত ছবি ভাইরাল করার কী দরকার ছিল?

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭
  • ১০৬ Time View

অধ্যক্ষ মো.আব্দুল মতিন::
সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার খলাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা দীপ্তি রানী বিশ্বাস মডেল টেস্ট পরীক্ষার হলে টেবিলে মাথা রেখে ঘুমানোর ভাইরাল ছবিতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে শিক্ষিকা জীবন ও পরিবারে বোঝায় ক্লান্ত- শ্রান্ত, অসুস্থ, বিশ্রাম কাতর এবং অপ্রস্তুত বসনে। উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন সেই অপ্রস্তুত ঘুমন্ত শিক্ষিকার একপাশে দাঁড়িয়ে অন্যপাশ দিয়ে ছবি তুলিয়ে দায়িত্ববান জন প্রতিনিধির চেষ্টায় রত। অন্যদিকে শিক্ষিকাকে দায়িত্বজ্ঞানহীন, কান্ডজ্ঞানহীন প্রমাণের অপরাধ বিজ্ঞানের ‘লেবেলিং’ তত্ত্ব প্রমাণের চেষ্টা করে যাচ্ছেন অবচেতনে বা চেতনে। এ নিয়ে গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আলোচনা সমালোচনা ঝড় বইছে। দৈনিক কালের কন্ঠ ঠিকই লিখেেেছ, কটাক্ষ কেন? তিনি একজন মা এবং শিক্ষকা।
ইদানিং কত কিছু ভাইরাল হয়;উপজেলা চেয়ারম্যান ছাত্রদের উপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন, বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগীতার জন্য এভ্রিলের কাহিনী ভাইরাল হয়, মার্কিন অভিনেত্রী অ্যালিসা মিলানোর হলিউডের মুভি মুঘল হার্ভে উইনস্টেইনের কেলেঙ্কারির খবর ফাঁসের প্রতিক্রিয়ায় তাঁর এই উদ্যোগ মিটু (#সব ঃড়ড়) ভাইরাল হয়েছে। শুধু ভাইরাল হয়না ভদ্রলোকের সমাজে ঘটে যাওয়া নিরব সত্য কথনের দুঃখ মাখা স্মৃতি গুলোর ছবি! ঘুম আর মৃত্যু কখন, কিভাবে, কেন আসে সেটা জানার উপায় নেই বলেই শিক্ষকা দীপ্তিরানী বিশ্বাসের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করেছে ঘুম! নইলে চেয়ারম্যান সাহেব আসলে শিক্ষিকা ঘুম কী আসতো?
ঘুম হচ্ছে মানুষ এবং অন্যান্য প্রাণীর দৈনন্দিন কর্মকান্ডের ফাঁকে বিশ্রাম নেওয়ার একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া, যখন সচেতন ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া স্থিমিত থাকে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশনের ১৮ জন ঘুম বিশেষজ্ঞ গবেষকের একটি দল বয়সভিত্তিক এই ঘুমের যে নির্দেশনা তৈরি করেছেন
৩২০টি গবেষণা প্রতিবেদন পর্যালোচনার মাধ্যমে সেই নির্দেশনা মতো দীপ্তি রানীর রাতে ৭-৯ ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন। এই গবেষক দলটির অন্যতম সদস্য শিকাগোর লয়োলা ইউনিভার্সিটির লিডিয়া ডনকারলোস বলেছেন, সারকাডিয়ান ক্লক বা দেহঘড়ির প্রভাবে টিনেজারদের সাধারণত রাতে একটু দেরিতে ঘুম পায় এবং ওরা দেরি করে ঘুম থেকে উঠতে চায়। কিন্তু যখনই ঘুমাক আর যখনই উঠুক, নিয়মিত পর্যাপ্ত ঘুমানোটা খুবই জরুরি। তিনি আরও বলেন, ছুটির দিনে ঘুম পুষিয়ে নেওয়ার চিন্তা অনেকেই করে বটে কিন্তু আসলে ‘বকেয়া ঘুম কখনোই পুষিয়েনেওয়া যায় না। এছাড়া ইউনিভার্সিটি অব ব্রাসেল ইন সুইজারল্যান্ড এর একদল গবেষক দল ঘুমের উপর পূর্ণিমা – অমাবস্যার প্রভাব দেখতে পান ( সুত্র- গার্ডিয়ান পত্রিকা)।
কিন্তু একজন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সেই কাক ডাকা ভোর থেকে কাজ শুরু করতে হয়। সকাল ৯:০০টার মধ্যে স্কুলে গিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে সমাবেশ করে সকাল ৯:৩০ থেকে বিকাল ৪:৩০ ঘটিকা পর্যন্ত পাঠদান করতে হয়। ৩০ মিনিট মধ্যাহ্ন বিরতি থাকে। বিকাল ৪:৩০ এ বিদ্যালয় ত্যাগ করে বাড়ি ফিরতে ফিরতে কখনো সন্ধ্যা নেমে আসে! এখানেই কি শেষ? রান্নাকরা, সন্তান পালন, সংসারের সুখ দুঃখের পাহারা দেয়া, সংসারের সাপ-লুডো খেলায় শোক, অসুখ তো আছেই। এত কিছুর পরেও অনেক সময় অসুস্থ সন্তান, স্বামী, পরিবারের সদস্যের জন্য নিজের ঘুমের কথা টুকু ভুলতে হয়; মানুষ হিসেবে নিজেরওতো অসুখ বিসুখ থাকতেই পারে? আর ঘুমতো এইসব বুঝেনা!
এইগুলো যুক্তিভিত্তিক প্রাণী মানুষ কেই বুঝতে হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এর সাবেক শিক্ষক, কবি, প্রাবন্ধিক আবুবকর সিদ্দিক তনয়া বিদিশার
সাবেক স্বামী (বর্তমানে মহান জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদের স্বামী)ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের চালু করা উপজেলা পরিষদ স্বৈরাচারীর পরিষদ বলে বাতিল হয়েছিল রাজনৈতিক কারণে; আওয়ামীলীগ সরকার এরশাদ সাহেবকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত সহ রাজনৈতিক কারণে উপজেলা পরিষদ জীবিত করেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেব উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি; চেয়ারম্যান হতে গেলে আবার দলীয় মনোনয়ন পেতে হয়। সুতরাং উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবের ক্ষমতা আছে; এমপি সাহেবের পরেই উনি জননেতা, জনপ্রতিনিধি। অফিসাররা যেখানে স্যার, স্যার ডাকেন; সেখানে দীপ্তিরানী বিশ্বাস উনার পরিদর্শন কালীন পরীক্ষা কেন্দ্রের হলে অবিশ্বাস্যভাবে টেবিলে ঘুমিয়ে পড়বেন? এত স্পর্ধা ঘুমের ও শিক্ষিকার?
সেটা হতেই পারেনা!এটা দুর্ঘট! আর এই দুর্ঘটের ছবি না তুললেই কি হয়? শিক্ষিকা ঘুমিয়ে পড়েছেন,যেন কোন মানুষ ঘুমাননি! তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থার জন্য অপ্রস্তুত ঘুমন্ত ছবি তুলে দীপ্তি রানীর দায়িত্ব হীনতার বিশ্বাস না করালে জনগণ কেনইবা ভোট দিল? স্কুলে পড়াতে গিয়ে ছাত্র- ছাত্রীদের শাসন করে অনেক অভিভাবকের কষ্টের কারন হয়েছেন দীপ্তি; আর নির্বাচন আসলে অভিভাবকরাইতো ভোটার! দীপ্তিরানীরা কয়েকজন আনসার- পুলিশে ঘেরা পুলিং অফিসার ছাড়া কিছু না! তারপরও শিক্ষিকা দীপ্তি রানী বিশ্বাস কে সজাগ থাকা উচিৎ ছিল। জনাব উপজেলা চেয়ারম্যান আপনার উপজেলার প্রত্যেকটি কাজে যেন আপনাকে সৎ, নির্ভিক, অতন্দ্র দেখতে পাই ;তবেই শিক্ষিকা দীপ্তিরানীর অপ্রস্তুত ঘুমন্ত ভাইরাল ছবি তোলার জন্য আপনার নামটিও ভাইরাল হবে!
আপনার মেয়াদ শেষ হবে, শুধু এই শিক্ষিকার সেই ভাইরাল ছবিটি তাঁকে সারা জীবন কষ্ট দিবে নিরবে; তাঁর কোন শিক্ষার্থী ও সেটি মনে রেখে বড় হবে।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, শাহজালাল মহাবিদ্যালয়, জগন্নাথপুর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24