সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

সিলেটে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আ’লীগ নেতা বিজিত চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::টাকা আত্মসাত ও হত্যার হুমকির অভিযোগে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বিজিত চৌধুরীর বিরুদ্ধে দু’টি মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার নগরীর মিরাবাজারের মেসার্স সিটি ফার্নিচার’র স্বত্বাধিকারী রাঙ্গা সিংহ ও তার স্বামী নগেন্দ্র চন্দ্র বর্মণ বাদী হয়ে সিলেট মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলা দু’টি দায়ের করেন।

আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক সাইফুল ইসলাম মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাজ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার ব্যাপারে বিজিত চৌধুরী বলেন, নগেন্দ্র বর্মন আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মচারী ছিলেন। পরে তিনি একটি ফার্নিচারের দােকান দেন। যাতে আমিও কিছু টাকা বিনিয়োগ করি। কিন্তু এই টাকার কোনো হিসেব আজ পর্যন্ত পাইনি। এখন উল্টো আমার নামেই টাকা আত্মাসাতের মামলা করেছেন।

এসব মামলাকে ষড়যন্ত্রমূলক আখ্যা দিয়ে তাঁর অভিযোগ, রাগীব আলীর কাছ থেকে তারাপুর চা বাগান উদ্ধার তৎপরতায় সম্পৃক্ত থাকায় ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলার অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে- ‘২০০৯ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বাদীদ্বয়ের কাছ থেকে বড় অংকের টাকা চাঁদা হিসেবে নেন বিজিত চৌধুরী। এছাড়া তারাপুরের ভূমি জোরপূর্বক বিক্রির টাকাসহ ৪ কোটি টাকা আত্মসাত করেন বিজিত চৌধুরী। তিনি অর্থমন্ত্রীসহ বিভিন্ন মন্ত্রী, মোল্লা আবু কাওছার, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের, কখনো ক্রীড়া সংস্থার, কখনো মন্ত্রীদের বন্ধু, কখনো পত্রিকার সম্পাদকসহ বিভিন্ন পরিচয় দিয়ে চাঁদা আদায় করেন। পাওনা টাকার বিপরীতে বাদীকে চেকও দেন বিজিত। কিন্তু ব্যাংকে টাকা তুলতে গেলে চেক ফেরত আসে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24