রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২০, ০১:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সমাজে শান্তি বজায় রাখতে যেসব স্বভাব ত্যাগ করতে বলে ইসলাম জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে প্রবাসির অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ জগন্নাথপুরের বিএন হাইস্কুলের শতবর্ষ উৎসবে-পরিকল্পনামন্ত্রী, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বিশ্বমানের শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে:পানিসম্পদ উপমন্ত্রী জগন্নাথপুরে বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে শতবর্ষ উৎসব আজ ক্ষোভের পর আনন্দে ভাসছে ইউনিয়নবাসি জগন্নাথপুরে শতবর্ষ অনুষ্ঠানে যারা থাকছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে শনিবার আসছেন জগন্নাথপুরে বেপরোয়া অটোরিকশার চাপায় প্রাণ গেল শিশুর সিলেটে প্রভূপাদ বিশ্বরূপ গোস্বামীর দীক্ষা প্রদান ও ভাগবতীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী বিক্ষোভে জনসমুদ্র

সিলেট ল’ কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে স্থান পেয়েছেন সরকারী কর্মচারী , অছাত্র ও সন্তানের বাবারা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০১৫
  • ১০৭ Time View

সিলেট সংবাদদাতা:সিলেট ল’ কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে এবার যুক্ত হয়েছে সরকারী কর্মচারী ও অছাত্র ও বিবাহিতরা। গত ২৫ জুন ২০১৫ সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রাহাত তরফদার ও সাধারণ সম্পাদক এমরুল হাসান, ল’ কলেজের কমিটিতে বিবাহিত ও ছাত্রত্ব শেষ হয়ে যাওয়া মোস্তাক আহমদকে সভাপতি ও বসন্তের কোকিলের মত অনুপ্রবেশকারী হাফিজুল হককে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি দেন। যা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে অনেক লজ্জাকর এবং যারা সিলেট বিভাগের ছাত্রলীগের রাজনীতিতে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
একজন বিবাহিত লোক ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ২৩ বিধিতে ছাত্রলীগের সদস্য হতে পারে না। এদিকে হাফিজুল হক এম.সি কলেজে ৮ বছর পড়াকালীন সময়ে কখনও জয় বাংলা শ্লোগানে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে দেখা না গেলেও বসন্তের কোকিলের মত অনুপ্রবেশকারী হাইব্রিড হিসাবে ম্যানেজ করে কমিটিতে স্থান করে নেয়।
সিলেট শহরে আল মারজান মার্কেটে নিজস্ব একটি কাপড়ের দোকান রয়েছে, সে একজন ব্যবসায়ী। গঠিত কমিটি ফেসবুক ও মহানগর ছাত্রলীগ এর ফেইজে দেখা যায়। মোঃ ছালিক আহমদ ওরফে নয়ন সে একজন সরকারী কর্মচারী। সে বর্তমানে দক্ষিণ সুরমার কায়েস্থরাইল পোষ্ট অফিসের কেরানী।তার ফেইসবুক ফেইজেএ সে সরকারী কর্মচারী তা স্পষ্ট লিখা আছে। যা গঠনতন্ত্রের ৫(গ) ধারায় বাতিলযোগ্য। এদিকে উপ বিভাগীয় সম্পাদক জুলহাস আহমদ বিবাহিত এবং ফেঞ্চুগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত স্বত্বে কিভাবে ছাত্রলীগের কমিটিতে কিভাবে ঢুকলো তা বোধগম্য নয়। এদিকে এই কমিটির সিনিয়র সহ সভাপতি কাওছার খান ও সহ সভাপতি সজীব পাল ইতিমধ্যে এল.এল.বি পাশ করে এবং বর্তমানে তারাও কলেজের ছাত্র নয়। এদিকে সহ সভাপতি ইউনুছ আলী সেও বিবাহিত এবং দুই সন্তানের জনক এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আওতাধীন একটি পদে কর্মরত আছে। যা ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র বিরোধী। এই কমিটিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়সল আহমদ গোয়াইনঘাটের একটি কলেজে প্রভাষক পদে কর্মরত আছেন যা ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র বিরোধী।
বিবাহিত ও অছাত্রের পর এবার সরকারী কর্মচারী ও সন্তানের বাবারাও ল’ কলেজ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে কিভাবে স্থান পান তা সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের মনে বিভিন্ন প্রশ্নের উদ্বেগ করেছে। ছাত্রলীগের ইতিহাসে এরকম নজীরবিহীন ঘটনা আজ পর্যন্ত ঘটেনি। তাই অতি তাড়াতাড়ি এই অবৈধ কমিটি বাতিলের দাবীতে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের হস্তেক্ষেপ কামনা করছেন ল.কলেজের ছাত্রলীগ নেতারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24