শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

সুনামগঞ্জবাসীকে কি ম্যাসেজ দিতে চান মতিউর ?

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ৫৩ Time View

আজিজুর রহমান:: সাম্প্রতিক সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুটের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মতিউর রহমান প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন। তখন সুনামগঞ্জ -৩ আসনের এমপি অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানকে উদেশ্য করে তিনি বলেন“২০১৪ সালের নির্বাচনে সুনামগঞ্জ -৩ আসনে জগন্নাথপুর উপজেলার মরহুম আব্দুস ছামাদ আজাদের নাবালক ছেলে আজিজুস ছামাদ ডনের কাছে ১০ হাজার ভোটে পরাজিত হয়েছিল। কিভাবে তিনি নির্বাচিত হয়েছিলে তা কেবল এম এ মান্নান ও তৎকালীন ডিসি ইয়ামিন চেীধুরী জানেনা, সকলের জানা”। উক্ত বক্তব্যকে কেন্দ্র করে জাতীয় দৈনিকসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ চাপা হয়। এ ম্যাসেজের মাধ্যমে মতিউর রহমান কি বুঝাতে চেয়েছেন?

সাংসদ এমএ মান্নান যদি ভোট চুরি করে নির্বাচিত হয়ে থাকেন, আওয়ামীলীগের সজ্জন রাজনৈতিক হিসাবে,তখনকার সময় তিনি এ আওয়াজ তুললেন না কেন? এখনইবা কেন এ কথা আনছেন? এম এ মান্নান যদি ভোট চুরি করে নির্বাচিত হয়ে থাকেন আর পালামেন্ট যদি তাকে গ্রহন করে, তাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আওয়ামীলীগ সরকার অবৈধ। কেননা দেশের প্রধান ও গুরুত্বপূর্ন অর্থ মন্ত্রনালয়। আর এম এ মান্নান এমপিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এমন একটি মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন। প্রকৃত দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক ব্যাক্তি হলে তৎকালিন সময়ে দূর্ণীতির বিরোদ্ধে সোচ্ছার হয়ে মান্নান বিরোধী আন্দোলন করার কথা ছিল।এসব বলায়, আম-জনতা কিন্তু আপনাদের রাজনীতিকে পরিহার করবে। আপনাদের প্রতিহিংসার রাজণীতির কারণে অন্য দলগুলো ফাইদা লুটার চেষ্টা করবে।

মতিউর রহমান সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অথাৎ আওয়ামীলীগের মাথা। অপর দিকে এম এ মান্নান সুনামগঞ্জ আওয়ামীলীগ সরকারের দায়িত্বশীল সাংসদ ও প্রতিমন্ত্রী।সুনামগঞ্জ আওয়ামীলীগের জন্য উভয়ই গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্টিত।এমন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থেকে দলের বিরোদ্ধে কথা বলে কি বুঝাতে চাইছেন? স্পষ্ট করে ম্যাসেজটি সুনামগঞ্জ তথা দেশবাসীর সামনে তুলে দরুন? কেননা গনতন্ত্র জনগনকে নিয়ে,দেশের রাজনৈতিক বিষয়ে জানার অধিকার তাদের আছে।

আপনি যখন রাজনীতিতে নামছেন তখন আপনার সবচেয়ে ভালো করে জানতে হবে, রাজনীতি মানে কি ? রাজনীতি মানে কি, যেমনি জানা দরকার তেমনি জানা দরকার মানুষের অধিকারের বিষয়গুলো । রাজনীতির সাথে সবচেয়ে বেশী জড়িয়ে আছে মানুষের অধিকারের কথাটিই । কারও গীবত গাওয়া নয়।

পরাধিন দেশের কোন রাজনীতির দরকার নেই । পরাধিন দেশকে বলা যায় স্বাধীতার জন্য মরিয়া মানুষের আকুতির কথা । কিন্তু যখনই কোন দেশ স্বাধীন তখনই রাজনীতির প্রয়োগের কথা চলে আসে । মানুষ রাজনীতি করবে কিসের জন্য ? হ্যা রাজনীতি এমন একটি ব্যপার যা গন মানুষের কথাগুলোই একজনের মুখ থেকে উচ্চারিত হতে হবে, দেশের সার্বোভৌমতা রক্ষার বিষয়গুলো জানতে হবে, দেশের অর্থনীতি গতিশীল রাখার জন্য কাজ করতে হবে এবং সর্বপরি উভয়ের দেশের কথা, দলের কথাই বার বার চিন্তা করতে হবে । যেমন চিন্তা করছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের জনগনকে ভালবেসে নিজের জীবন প্রতিনিয়ত উৎসর্গ করছেন। জনগনও তার প্রতিদান দিচ্ছে।

কাঁদা ছোড়াছুড়ি করে নয় জনগনকে ভালবেসে।

বাঙ্গালি জাতি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করে পাকিন্তানি পরাশক্তির বিরোদ্ধে সংগ্রাম করে দেশ আজ স্বাধীন। এ স্বাধীন দেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা সবার আছে। তবে এমন মত প্রকাশ নয় যেখানে জাতীগত সংঘাত,কোলাহল লেগে থাকবে।বর্তমান তরুন সমাজ,যারা ভবিষতে দেশ পরিচালনা করবে,তাদেরকে সঠিক দেশপেমিক হিসাবে গড়ে উঠতে সাহায্য করতে হবে।

আপনারা রাজনৈতির শিক্ষক। আপনাদের কাছে সমাজ কাদা ছোড়াছুরি আশা করে না। আর সঠিক নেতৃত্ব গুণে গনান্বিত তরুন সমাজ না হলে পরবর্তীতে রাজনীতি হবে হাওয়া ছাড়া চাকার মত।

এক সময় রাজনৈতিক নেতা সম্মৃদ্ধ আমাদের এ বাংলাদেশে রাজনৈতিক নেতার সংকট তৈরী হওয়ার বড় কারণ হচ্ছিল, বড় রাজনীতিবিধদের দিয়ে নিজেকে পরিচিত করার কৌশল অবলম্বন! মাননীয় প্রধান মন্ত্রি বা আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহার করে নেতা হয়ে যাওয়া যায়,তবে মুন্ডহীন নেতা। এ সকল নেতা দ্বারা জাতি কিছু আশা করতে পারেনা। নেতা চাই জাতীর জনকের নেতৃেত্বর অনুরুপ। তাহলে বঙ্গবন্ধু উপাধি আশা করা যাবে।

নেতৃত্বের জন্য গন মানুষের রাজনীতি শেখাতে হবে প্রথম সারির নেতৃত্বদানকারী নেতাদেরই। যারা শুধু মাত্র নেতার প্রতিচ্ছবিতেই নিজেদের চেহারা অংকন করে ভাবতে শুরু করে দিচ্ছেন আমি বোধহয় রাজনীতিবিদ হয়ে গেছি।

রাজনীতির নোংড়া খেলা ছেড়ে আপনারা মানুষের কাছে যান, মানুষই আপনাদের নেতৃত্বের স্বাদ দেবে । রাজনীতি করার আসল মানেই হচ্ছে মানুষের জন্য কাজ করা, দেশের সার্বোভৌমত্ব রক্ষায় কাজ করা, অর্থনীতি গতিশীল করার জন্য কাজ করা,সর্বপরি একটি সুন্দর দেশের জন্য কাজ করা। গীবত,পরনিন্দা,অহমিকা ও বল প্রয়োগ করা নয়।

কাজেই কাজি,জনগনকে ভালবাসা দিন,জনগনও আপনাদের ভালবাসার প্রতিদান দেবে। প্রতিহিংসা করে রাজনীতিবিদ হওয়া যায় না। গনতন্ত্রের মানে বুঝে রাজনীতি করুন। জনগন আপনাদের উপযুক্ত আসনে বসাবে। অন্যথায় নিজেও ধ্বংশ হবেন,জাতীকেও ধ্বংশ করবেন। লেখক-সাংবাদিক স্টাফ রিপোর্টার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ও উপজেলা প্রতিনিধি দৈনিক যায়যায় দিন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24