বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৪ আগস্ট, ২০১৭
  • ৭৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। সুরমা নদীর সুনামগঞ্জ পয়েন্টে পানি রোববার বিকাল ৩ টায় বিপদ সীমার ৮২ সে.মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বখর সিদ্দিক ভুইয়া জানিয়েছেন,‘রোববার সকাল থেকে বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় পানি বাড়েনি।’
এদিকে, সুরমা নদীসহ ভারতের মেঘালয় থেকে নেমে আসা যাদুকাটা, রক্তি ও চেলা নদীর কুল উপচে পানি প্রবেশ করায় জেলাজুড়ে বন্যা দেখা দিয়েছে।
তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ, বিশ্বম্ভরপুর – সুনামগঞ্জ, দোয়ারাবাজার – ছাতক সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশন সংকট দেখা দিয়েছে।
আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ থেকে দেখা যায় জেলার বিভিন্ন উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি ক্রমাবনতিশীল। তাঁদের পাঠানো রিপোর্ট।
ছাতক
ছাতকে বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি ঘটেছে। উপজেলা নতুন-নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। শহরের মাছবাজার, পুরাতন কাষ্টমসহ অলি-গলিতে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ সড়কের পেপারমিল সংলগ্ন সড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। বর্তমানে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৬০ সেন্টিমিটার, চেলা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার ৯০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নতুন করে আমন জমি ও বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় মৎস্য খামারীরা পড়েছেন বিপাকে। তলিয়ে যাওয়ার ভয়ে খামারের মাছ ধরে বাজারে বিক্রি বিক্রি করে দিচ্ছেন বলে একাধিক খামারী জানিয়েছেন। উপজেলার প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ
হয়ে পড়েছেন পানিবন্দী। এসব পানিবন্দী মানুষের জন্য এখনো সরকারী-বেসরকারী ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করার খবর পাওয়া যায়নি। খোলা হয়নি কোন আশ্রয় কেন্দ্র। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে বন্যার পানিতে এখন পর্যন্ত রোপা- আমন ৫৫০ হেক্টর ও ২১০ হেক্টর বীজতলা তলিয়ে গেছে। উপজেলার বঙ্গবন্ধু সড়ক, মুক্তিরগাঁও সড়কসহ অন্তত অর্ধশতাধিক কাঁচা-পাকা সড়ক বন্যার পানিতে তলিয়ে গিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।
জামালগঞ্জ
কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢল আর উজান থেকে নেমে আসা পানিতে জামালগঞ্জে ৬টি ইউনিয়নে কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে ও কয়েকশত ঘরবাড়ী ক্ষতিগস্ত হয়েছে। বন্যার পানির প্রবল ¯্রােতে জামালগঞ্জের অভ্যন্তরিণ অনেক সড়ক ভেঙ্গে গেছে ও নতুন নির্মিত কয়েকটি সড়কও হুমকির মুখে রয়েছে। এভাবে দ্রুত পানি বৃদ্ধি পেলে জামালগঞ্জের নি¤œাঞ্চলের পাশাপাশি উপরের গ্রাম গুলিও দু-একদিনের মধ্যে বন্যার পানিতে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে।
পাশাপাশি বন্যার কারণে স্থগিত করা হয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় সাময়িক পরীক্ষা। বন্ধ ঘোষণা করেছে সকল বিদ্যালয়।
সাচনা-সুনামগঞ্জ সড়কের অধিকাংশ স্থানেই পানি, উপজেলা সদরের সাথে সংযোগ রক্ষাকারী অধিকাংশ রাস্তায় বন্যার পানি উঠে গেছে। সাচনা-বেহেলী সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ
পাহাড়ি ঢল আর ভারী বর্ষণে ক্রমশ: বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জে। ইতোমধ্যে বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে উপজেলার শতাধিক গ্রাম। পানির নিচে চলে গেছে কৃষকের আমন ধানের বীজতলা। গ্রামের সাধারণ মানুষ আবারও দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। একে তো ঘরে খাবার নেই তার উপর বন্যায় ঘর বাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়া ও বীজতলা তলিয়ে যাওয়ায় তারা এখন ভীষণ চিন্তার মাঝে দিনানিপাত করছে। রবিবার দুপুরে দেখার হাওরের আসামপুর এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রবল বৃষ্টি, ঢেউ আর বাতাস উপেক্ষা করে জালের গুন টানছেন কয়েকজন যুবক জেলে। তারা প্রত্যেকেই আবার কৃষক। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ বছর প্রত্যেকেই কম বেশি করে জমি চাষ করেছিলেন। বোরো জমি তলিয়ে যাওয়ার পর তারা নিয়মিত মাছ ধরছেন। এখন হাওরে পানি বেশি। বাতাস আর টানা বর্ষণের জন্য মাছ ধরতে পারছেন না তারা। তবু যা পান তা দিয়েই কোনোমতে চলে তাদের সংসার।
হাওর থেকে ফেরার পথে একটি লম্বা ঘর পানির নিচে তলিয়ে যেতে দেখা যায়। সেখানে ইরফান আলী বলেন, অনেক উঁচু করে বাড়ি বানিয়েছিলাম। ছেলে মেয়ে ভাতিজা নাতিদের নিয়ে মাছ ধরি, তা বিক্রি করে চলে সংসার। পানিতে ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে রান্নাঘর, টয়লেট আর পুকুর ঘাট। মূল ঘরটা বাকী।
তার ভাতিজা মৎসজীবী কৃষক ছালেক মিয়া বলেন, সরকারী সহযোগিতা এখন আমাদের দরকার। আমরা কোনো রকম টিকে আছি। আজ রাতই থাকতে পারবো কি না তাও সন্দেহ আছে।
পশ্চিম পাগলার বাবুল সূত্রধর ও পূর্ব পাগলার চিকারকান্দি গ্রামের ফারুক মিয়া জানান, আমরা আমন জমিন চাষ করার জন্য যে বীজ তলা বুনেছিলাম তা ইতোমধ্যে পানিতে তলিয়ে গেছে। আমাদের বাঁচার আর কোনো পথ নাই। উপরওয়ালাই ওকমাত্র ভরসা। আমাদের নসিবে যা আছে তা-ই হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24