বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জ জেলার সবকটি উপজেলায় আওয়ামীলীগের সন্মেলনের উদ্যাগ নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন ২০০০ উইরো ফেরত দিয়ে প্রশংসিত বাংলাদেশি তরুণ জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

সুনামগঞ্জে মোটরসাইকেল চুরি বেড়েছে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ১৯ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ শহরে আবারো মোটরসাইকেল চুরি বৃদ্ধি পেয়েছে। মোটর সাইকেল লক করে রেখে কয়েক মিনিটের জন্য সরে আসলেই চোরেরা মোটরসাইকেল নিয়ে পালাচ্ছে। একটি সংঘবদ্ধ মোটরসাইকেল চোরচক্র এই ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে মোটরসাইকেল মালিকরা জানিয়েছেন। চুরি যাওয়া একটি মোটরসাইকেলের মালিক জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেরেনুর আলীর দাবি গত ২ বছরে শতাধিক মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে। উদ্ধার হয়েছে খুবই কম। তিনি জানালেন, সিসি ক্যামেরা লাগিয়েও চুরি ঠেকানো যাচ্ছে না।
গত ১৭ ডিসেম্বর শহরের শহীদ আবুল হোসেন রোড (হাসননগর) থেকে পুস্তক কোম্পানী পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লিমিটেডের প্রতিনিধি আতিকুর রহমানের মোটর সাইকেল ( রেজি: নম্বর- সিলেট হ-১৩-৮৯৮৩) চুরি হয়েছে। এর আগে গত ১০ জুলাই একই এলাকা থেকে সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুল মান্নানের মোটর সাইকেল (নম্বর সুনামগঞ্জ হ-১৭৩১) চুরি হয়। ৮ মাস আগে শহরের পুরাতন বাসস্টেশন এলাকা থেকে জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেরেনুর আলীর মোটর সাইকেল (সুনামগঞ্জ-হ ১২১৯) চুরি হয়। একই সময়ে কালেক্টরেট চত্বর থেকে একজন উন্নয়ন কর্মীর আরেকটি মোটর সাইকেল চুরি যায়। এই দুটি মোটর সাইকেলের চুরির দৃশ্য সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ছিল। ফেইসবুকে এবং পুলিশকেও দেওয়া হয় ফুটেজ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,
মোটর সাইকেল চুরির পর অনেকেই পুলিশকে জানান না। সন্দেহভাজন বখাটে ও চোর সিন্ডিকেট প্রধানদের দ্বারস্ত হন মোটর সাইকেলটি বের করে দেবার জন্য। এই চোরেরা মোটরসাইকেলের মালিক অপরিচিত হলে অনেক সময় বড় অংকের টাকা নিয়ে মোটর সাইকেল ফেরৎ দেয়। কিন্তু পরিচিত মোটর সাইকেল মালিকদের ধরাই দেয় না।
জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেরেনুর আলী বললেন,‘গত দুই বছরে শতাধিক মোটর সাইকেল চুরি হয়েছে। পরিচিতদের কেউ মোটর সাইকেল ফেরৎ পেয়েছেন বলে জানা নেই আমার। আমি মামলা করেছিলাম। সিসি ক্যামেরায় মোটর সাইকেল চুরি করে নিয়ে যাবার ফুটেজও সরবরাহ করেছি পুলিশকে। পুলিশ তদন্ত শেষে চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয়। আমি নারাজি দেবার পর আদালত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে মামলা তদন্তের নির্দেশ দেন। কিন্তু তাতেও কোন অগ্রগতি হয়নি। প্রায় ৮ মাস হয় আমি এই মামলা চালিয়ে যাচ্ছি। শুনেছি চোর সিন্ডিকেটের প্রধানদের নিজস্ব গ্যারেজ রয়েছে। এরা চুরির মোটরসাইকেল নিয়ে গ্যারেজে রাখে। সময় সুযোগ হলে সাইকেল বের করে বিক্রি করে। অপরিচিতদের মোটরসাইকেল অনেক সময় বড় অংকের টাকার বিনিময়ে ফেরৎ দেয়। আমার সাইকেল চুরির পর মামলা করে আমি আরো হতাশ হয়েছি। তবে মামলা চালিয়ে যাব আমি। প্রয়োজনে হাইকোর্টে রীট করবো।’
সুনামগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শহীদুল্লাহ্ বলেন,‘আমি সদর থানায় যোগদানের পর ৩-৪ টি মোটর সাইকেল চুরি হয়েছিল। ঈগল বাহিনী গঠন করে দিয়েছিলাম। ২-৩ টি মোটর সাইকেল উদ্ধারও করেছিলাম। চুরিও বন্ধ হয়েছিল। ইদানিং আবার চুরি শুরু হয়েছে। আমরা অভিযান শুরু করেছি। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে অভিযান চালানো হবে। চোরের সন্ধান গোপনীয়ভাবেও যে কেউ আমাদের দিতে পারেন, আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24