রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

সুনামগঞ্জ সদরে নৌকা না লাঙ্গল?

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ জুলাই, ২০১৭
  • ১৪৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র অভ্যন্তরীণ কোন্দল দীর্ঘদিনের। আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়নকেন্দ্রীক ¯œায়ুদ্বন্দ্ব বাড়তে শুরু হয়েছে দুই দলেই। বর্তমানে আসনটি জাপা’র দখলে। বিগত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এই আসনে সংসদ সদস্য হন জাপা’র অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্। আগামী জাতীয় নির্বাচনে আসনটি আওয়ামী লীগের হাতে থাকছে, না কী জাপা (এরশাদ)সহ জোট হলে জাপাকেই ছেড়ে দেওয়া হবে? এই নিয়েই মূলত. আলোচনা রয়েছে আওয়ামী ভোটার সমর্থকদের মধ্যে।
এবার এই আসনে আওয়ামী লীগের ৩ প্রার্থীসহ ৮ সম্ভাব্য প্রার্থী আলোচনায়। বিএনপি’র সম্ভাব্য ৪ প্রার্থী এবং জাপা’র বর্তমান সংসদ সদস্যকে ঘিরেই যত আলোচনা।
আলোচিতরা হলেন, বর্তমান সংসদ সদস্য জেলা জাপা’র আহ্বায়ক অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্, জেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি সাবেক হুইপ ফজলুল হক আসপিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহসভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ুব বখ্ত জগলুল, জেলা বিএনপি’র সহসভাপতি বিএনপি নেতা আব্দুল লতিফ জেপি ও আবুল মুনসুর শওকত।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন ইতিমধ্যে শো-ডাউন করে প্রার্থীতা ঘোষণা দিয়েছেন। সংগঠনের জাতীয় কমিটির সদস্য সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুলও এই আসনে মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন। এই ইস্যুতে সরকারদলীয় এই সংগঠনটির কোন্দল আরো বাড়তে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয় রাজনীতিকরা।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান গত ৬ এবং ৯ জুলাই সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দায়িত্বশীলদের নিয়ে সভা করেছেন এবং তাঁর সমর্থকরা তাকে প্রার্থী হবার দাবি করেছেন। তিনি নিজেও মনোনয়ন চাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।
ঈদের আগে গত ১৭ জুন বিশ্বম্ভরপুরে ও ১৮ জুন সুনামগঞ্জ সদরে ইফতার মাহফিলের মাধ্যমে দলীয় নেতা-কর্মীদের শো-ডাউন করে এই আসনে নৌকা নিয়ে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। তাঁর সমর্থকরা বিলবোর্ড ও পোস্টারের মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেছে।
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কোন্দল ২০ বছরের। কমিটির কার্যক্রম ২০ বছর কেটেছে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সম্পাদক দিয়ে। এই দীর্ঘ সময়ে জেলার বেশিরভাগ উপজেলায়-ই সংগঠন ছিল দ্বিধাবিভক্ত। ২০ বছর পর ঘটা করে সম্মেলন করে সভাপতি ও সম্পাদকের দুই পদ ঘোষণা হয়। প্রায় ১০ মাস দুই পদের (সভাপতি ও সম্পাদক) সমন্বয় থাকলেও এখন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উত্তরমেরু এবং দক্ষিণমেরু’র মতো। অর্থাৎ সভাপতি ও সম্পাদক দুজনেই উল্টোপথে হাঁটছেন। অভ্যন্তরীণ কোন্দলে দুই জনের অবস্থান দুই বলয়ে।
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল শুরু হয় ১৯৯২-৯৩ সালে। মূলত. প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও সুরঞ্জিত সেন গুপ্তকে ঘিরে দুই বলয়ের এই গ্রুপিং শুরু হয়েছিল। জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর জেলার রাজনীতি নিয়ে প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত কম জড়ালেও গ্রুপিং বন্ধ হয়নি।
গত বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলা সম্মেলনের আগে সুনামগঞ্জের ৫ সংসদ সদস্য এবং যুবলীগের জেলা আহ্বায়কের নেতৃত্বে একাংশ নিজেদের পক্ষে জেলার নেতৃত্ব আনার লড়াইয়ে নামেন। অন্যদিকে, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট ভারমুক্ত হবার জন্য মরিয়া হয়ে চেষ্টা করতে থাকেন। এই পক্ষে ঐ সময় যুক্ত হন সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আয়ুব বখ্ত জগলুলও।
সম্মেলনে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ সভাপতি হিসাবে মতিউর রহমানের নাম এবং সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের নাম ঘোষণা করেন।
সম্মেলনের পর প্রায় ১০ মাস জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক একসঙ্গে কর্মসূচী পালন করলেও গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দূরত্ব তৈরি হয়। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে দলীয় সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার ইমন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে ঐ সময় কেন্দ্রে নালিশও করেন।
এরপর থেকে সুনামগঞ্জের ৫ সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন একপক্ষে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট ও সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র, সংগঠনের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ুব বখ্ত জগলুল আরেক পক্ষের হয়ে কাজ করছেন। জেলায় আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গসংগঠনগুলোতে চলছে গৃহদাহ। এই দ্বন্দ্বের প্রভাব পড়েছে জেলার প্রায় সব কয়টি সাংগঠনিক ইউনিটে।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগও দ্বিধাবিভক্ত। সভাপতি আবুল কালাম মতিউর রহমানের বলয়ের সঙ্গে কাজ করেন। সম্পাদক মোবারক হোসেন আছেন ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের বলয়ে।
সুনামগঞ্জ পৌরসভা আওয়ামী লীগের কমিটি দুটি। অ্যাড. জাফরান কুসুম ও অ্যাড. মলয় চক্রবর্তী রাজুকে ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের বলয়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে পরিচয় দেওয়া হয়। আবার সংগঠনের জাতীয় কমিটির সদস্য পৌর মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুলের উপস্থিতিতে বিকাশ কান্তি দে বাবুলকে সভাপতি এবং সাজিদুর রহমান সাজিদকে সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে কার্যক্রম চালানো হয়।
অবশ্য. সুনামগঞ্জ সদর আসনে যেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয় এই ইস্যুতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন একই সুরে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও গণমাধ্যমে বক্তব্য দিচ্ছেন। দুজনেই বলছেন,‘সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুরে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী সংগঠন রয়েছে। জেলা সদরের এই আসন শরিকদের দেওয়া যাবে না।’
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন,‘আমি অবশ্যই মনোনয়ন চাইবো। আমি এই আসনের এমপি থাকাকালীন সময়ে এই জেলার সর্ববৃহৎ প্রকল্প মিছাখালী রাবারড্যাম, গজারিয়া রাবারড্যাম, বর্ডারহাট ও ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট হয়েছে। এই আসনের অনেক কাজ-ই আমার কর্মের পরিচয় দিচ্ছে। নির্বাচনী এলাকার দলীয় নেতা-কর্মীরাও চাচ্ছেন এই আসনেই যেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করি। আমি মনে করি আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে ভোটাররা আমার কর্মের প্রতিদান দেবেন।’
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বলেন, ‘যুব লীগের আহ্বায়ক ছিলাম, জেলা পরিষদের প্রশাসক থাকা অবস্থায় মানুষের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করেছি। সুনামগঞ্জে জেলার সবচেয়ে বড় প্রায় ২০০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প পাওয়ার গ্রীড সাবস্টেশন আমার প্রচেষ্টায় হয়েছে। নান্দনিক সুনামগঞ্জ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে আমি কাজ শুরু করেছিলাম। তরুণ জ্যেষ্ঠ সকলেই আমাকে ভালবাসেন। দল এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের বাইরে, আমার বা আমার পরিবারের অবস্থান কখনোই ছিল না, এজন্য আওয়ামী পরিবারের সকলেই আমাকে ভালবাসেন। মনোনয়ন পেলে অবশ্যই বিজয়ী হবো।’
সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ুব বখ্ত জগলুল বলেন,‘আমি মনোনয়ন চাইবো এবং দলীয় মনোনয়ন বোর্ড পর্যন্ত যাব। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান দিরাই-শাল্লায় মনোনয়ন পেলে আমি এই আসনে মনোনয়ন চাইবো। আমি দুই বার-ই বিপুল ভোটে পৌর মেয়র নির্বাচিত হয়েছি। আমাকে মনোনয়ন দিলে আওয়ামী লীগের ভোটাররা ঐক্যবদ্ধ থাকবেন।’
আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী কিংবা জোটের শরিক জাপাকে এই আসন ছেড়ে দেওয়া হলেও আওয়ামী লীগের বিবদমান দ্বন্দ্বের অবসান না হলে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী। বিএনপি’তেও অভ্যন্তরীণ কোন্দল রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের মতো দলীয় প্রতীকের বিরুদ্ধে আটঘাট বেঁধে প্রতিপক্ষ দলের হয়ে কাজ করার অতীত উদাহরণ নেই দলটির নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে।
জেলা বিএনপি’র সভাপতি ফজলুল হক আসপিয়া বলেন-‘আমার নির্বাচন করার ইচ্ছা রয়েছে। দলীয় মনোনয়নও চাইবো। বাকীটা দলীয় সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করে।’
জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহসভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন বলেন,‘দলীয় মনোনয়ন চাইবো, ভোটের রাজনীতিতে বার বারই পরীক্ষিত আমি। ভোটাররা আমাকে ভালবাসেন। দল মনোনয়ন দিলে ইনশাল্লাহ্ বিজয়ী হবো।’
জেলা বিএনপি’র সহসভাপতি আব্দুল লতিফ জেপি বলেন,‘দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাজ্যে এবং দেশে সক্রিয়ভাবে বিএনপি’র রাজনীতি করছি। দলীয় মনোনয়ন পেলে আমার পক্ষে দলের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ থাকবে। সাধারণ ভোটাররাও আমাকে মূল্যায়ন করবেন।’
জেলা বিএনপি’র সহসভাপতি আবুল মুনসুর শওকত বলেন,‘আমি দীর্ঘদিন ধরে বিএনপি’র রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে এই আসনের বিএনপি নেতা কর্মীরা উজ্জীবিত হবে এবং ঐক্যবদ্ধভাবে ধানের শীষের পক্ষে কাজ করবে।’
২০১৪’এর ৫ জানুয়ারি’র নির্বাচনে এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন ৩ জন। এরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট এবং তখনকার জেলা পরিষদ প্রশাসক জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। দলীয় মনোনয়ন পান ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। পরে জাপা (এরশাদ)’র সঙ্গে আসন সমঝোতায় এই আসন জাপাকে ছেড়ে দেয় আওয়ামী লীগ। বাছাই পর্বে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের মনোনয়ন বাতিল হয়। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন এবং বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুটের মনোনয়ন বৈধ হলেও সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে এরা দু’জনই মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন।
যুবলীগের কেন্দ্রীয় শিক্ষা-গবেষণা ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ মনোনয়ন প্রদানের কয়েকদিন আগে জাপায় যোগদান করে এই আসনে জাপা’র কোটায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
স্থানীয় ভোটারদের মতে, ভোটের অংকে আওয়ামী লীগ বা মহাজোট ঘরানার ভোট এবং বিএনপি জোটের ভোট এই আসনে সমানে সমান। নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে এই আসনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থীকে মোকাবেলা করতে আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়তে হবে।
সংসদ সদস্য জেলা জাপা’র আহ্বায়ক পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ বলেন,‘গত সংসদ নির্বাচনের পর থেকে সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচনী আসনের মানুষের সঙ্গে সার্বক্ষণিক থেকেছি। ঢাকা থেকে সুনামগঞ্জে এসে রাজনীতি করি না। সুনামগঞ্জে থেকেই মানুষের পাশে ছিলাম। আমার আসনের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে জাতীয়পার্টির শক্তিশালী কমিটি রয়েছে। যেভাবেই নির্বাচন হোক না কেন, জনগণের ভোটে ইনশাল্লাহ্ বিজয়ী হবো।’
সুত্র-সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24