বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

সুমনকুমার দাশের লোকগান লোক সংষ্কৃতি শেকড়ের সন্ধানে ফেরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১১৪ Time View

বশির আহমদ জুয়েল :: ‘আবহমান কাল ধরে প্রবাহিত বাঙালির সংগীত-সংস্কৃতির নানান ধারা যেন ক্রমশ সংকুচিত হয়ে আসছে। সামাজিক, রাজনৈতিক ও ভৌগলিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে বিচিত্র বাংলাগান, মেলা, উৎসব এবং পার্বণাদি আজ বিলুপ্তির পথে। অথচ অজস্র শিল্পী, সাধক, কীর্তনিয়া, বাউল, ফকির ও সাধুসন্তদের বিচরণক্ষেত্র ছিল এই বদ্বীপ। গ্রামীণ জনপদ মাতানো বহুবর্ণিল সেই সুর আর গান কেমন যেন আপন চেহারা হারিয়ে পাংশুটে ও বিবর্ণ হয়ে পড়েছে। আগের মতো লোকগানের পরিবেশ নেই, সেই সমঝদার কিংবা শ্রোতাও নেই। তবে এখনো কিছু লোকগায়ক নীরবে-নিভৃতে ক্লান্তিহীন ভাবে সুর ফেরি করে চলেছেন। গ্রামীণ পদকর্তারা লিখে যাচ্ছেন গান।’ তাঁদের নিয়ে এবং লোকঐতিহ্যের নানা বিষয় নিয়ে পরম মমতায় লিখে চলেছেন লোকসংস্কৃতি গবেষক ও প্রাবন্ধিক সুমনকুমার দাশ।

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার সুখলাইন গ্রামে জন্ম নেওয়া এই গবেষক বারীন্দ্রকুমার দাশ ও যমুনাবালা চৌধুরীর চার সন্তানের কনিষ্ঠ সন্তান। সুমনের বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও মা একজন শিক্ষিকা। সুমনকুমার দাশ প্রাকৃতজনদের আচার-কৃষ্টি-সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করে ইতোমধ্যেই ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন। হাওরাঞ্চলসহ দেশের নানা প্রান্ত ঘুরে সংগ্রহ করেছেন অসংখ্য লোকগান, লোকনাট্য ও প্যাঁচালির পা-ুলিপি। তাঁর সংগ্রহে পঞ্চাশ হাজারেরও বেশি লোকগান রয়েছে। বেদে-বাইদ্যানিদের গান, ভিক্ষুক-সংগীত, ধামাইলগান, জারি-মার্সিয়া, পল্লিগীতি, মাজার-সংগীত, ঢপযাত্রা থেকে শুরু করে বাউল-ফকির পদাবলি কোনোটাই তাঁর চোখ এড়ায়নি। বাংলার বিচিত্র লোকগান ও লোকসংস্কৃতি নিয়ে গবেষণা করে বিশিষ্টতা অর্জন করেছেন। গ্রামীণ মানুষের সাংস্কৃতিক জীবনযাপনকে নাগরিক সমাজে নিরন্তর পরিচয় করিয়ে চলছেন। তাঁর রচিত ও সম্পাদিত বইয়ের সংখ্যা ৪২টি। তিনি সম্পাদনা করছেন বাংলাদেশের একমাত্র গানের কাগজ দইয়ল। এ পত্রিকাটি ইতিমধ্যেই নিজস্ব স্বকীয়তায় দেশ-বিদেশে প্রশংসা কুড়িয়েছে।

অমর একুশে বইমেলা ২০১৫-তে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণামূলক গ্রন্থ ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’। প্রকাশ করেছে ঢাকার উৎস প্রকাশন। দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছটি করেছেন এ প্রজন্মের প্রতিভাবান প্রচ্ছদশিল্পী অরূপ বাউল। চমৎকার বাইন্ডিং ও সুসজ্জিতমুদ্রণে ১৪৪ পৃষ্ঠার এ গ্রন্থটির মূল্য রাখা হয়েছে ২৭০ টাকা। গ্রন্থটি উৎসর্গ করা হয়েছে কবি সাজ্জাদ শরিফকে। গ্রন্থটি সারা দেশের মতো সিলেটের সৃজনশীল বইয়ের লাইব্রেরি জিন্দাবাজার রাজা ম্যানশনের দোতলায় অবস্থিত ‘বইপত্র’-এও পাওয়া যাচ্ছে।

‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটিকে লেখক দুটি পর্বে ভাগ করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে সুমনকুমার লেগে রয়েছেন আবহমান বাংলার লোকজ সংস্কৃতিকে উদ্ঘাটনের লক্ষ্যে। এক্ষেত্রে তিনি সফলতাও অর্জন করেছেন। ইতোমধ্যে প্রকাশিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে লোক গবেষণা ও বাউল গবেষণা সংক্রান্ত গ্রন্থই বেশি। এবারের ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটিও এর বাইরের নয়। দুই পর্বে সাজানো গ্রন্থটির প্রথম পর্বে দশটি প্রবন্ধ রয়েছে। প্রবন্ধগুলোর বিষয় বস্তুই বলে দিতে পারে এর ভেতরের খবর। তারপরও সুমনকুমার দাশ নিজেই তাঁর ভুমিকায় উল্লেখ করেছেন, ‘গ্রন্থভুক্ত প্রবন্ধগুলোকে দুইটি পর্বে বিভক্ত করা হয়েছে। প্রথম পর্বের ১০টি লেখায় গ্রামীণ মানুষের উৎসব-আচার-সংস্কৃতির অতীত থেকে বর্তমান হালহকিকতের কিছুটা ধরা রইল। দ্বিতীয় পর্বের ১০টি লেখা আটজন গুণী সংগীতজ্ঞ এবং একজন সংগীত-অনুরাগীর গানের পথে সতত পথচলা নিয়ে। প্রবন্ধগুলো পাঠকমনে সামান্যতম সাড়া জাগালে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করব।’

‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ বইয়ের সংকলিত প্রবন্ধে বাংলার লোকজ সংস্কৃতির অনালোকিত উপাদানসমূহ মননশীল, কৌতূহলী ও স্বাদু গদ্যভাষায় প্রকাশ করেছেন সুমনকুমার দাশ। এ বই লোকসংস্কৃতির অনুরাগী পাঠকবৃন্দের কৌতূহল নিবৃত্ত করবে, এটা বলা যায়। অনেক পরিশ্রমের ফসল যে এ গ্রন্থটিÑএরও প্রমাণ পাওয়া যায় লেখকের নিজস্ব ভুমিকা থেকে। তিনি সহজ-সরল সাবলীলভাবেই বলেছেনÑ‘গ্রামে ঘুরতে-ঘুরতে যা দেখেছি, মনে হয়েছেÑলোকগান, লোকনাট্য, লোকমেলা, লোকক্রীড়া এসব আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির এক অফুরান সম্পদ। কত কত গান আর লোকনাট্যের ধারা এসব মানুষের হাত দিয়ে জন্ম হয়েছে, তার কোনো হিসেব-নিকেশ নেই! গ্রামীণ মানুষের জীবনযাপনে আপন গতিতে যেমন গান তৈরি হয়েছে, তেমনি নীরবে-নিভৃতে অনেক গানের ধারা হারিয়েও গেছে। গ্রামীণ জীবনের বর্ণিল গান, উৎসব, আচার ও সংস্কৃতির ধারাই ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ বইটির বিষয়বস্তু। এ বইয়ে গ্রামীণ মানুষের লোকায়ত জীবনাচরণ যেমন স্থান পেয়েছে, তেমনি গানের সঙ্গে সম্পৃক্ত নাগরিক ও গ্রামীণ উভয়ধারার শিল্পীদের নিয়ে মূল্যায়নধর্মী কিছু লেখাও রয়েছে।’

বাংলা লোকসাহিত্যের মননশীল পাঠকদের জন্য অত্যন্ত সহায়ক গ্রন্থ হিসেবে কাজ করবে সুমনকুমার দাশের ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটি। গ্রন্থটির প্রথম পর্বে যে প্রবন্ধগুলো স্থান পেয়েছে সেগুলো হচ্ছেÑ ‘হাওরের গান : সেকাল-একাল’, ‘লোকায়ত জীবনাচরণ ও তার অন্তর্গত সংস্কৃতি’, ‘মনসার গানের ভেলায়’, ‘সোমেশ্বরী মেলার অতীত-বর্তমান’, ‘মুসলিম বিয়ের গীত’, ‘বাউলগানে মানুষ-ভজনা’, ‘গ্রামীণ মানুষের প্রাণশক্তি’, ‘জালালি-গান’, ‘গ্রামীণ সংস্কৃতি ও রুচির বিবর্তন’, ‘কোকা প-িত ও তাঁর বৃহৎ ইন্দ্রজাল’।

‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটি নিয়ে নতুন করে কিছু না লিখে প্রতিটি প্রবন্ধ থেকে উদ্ধৃতি টানাটাই শ্রেয় হবে। এতে করে সুমনের শক্তিশালী লেখনী শক্তির বিষয়টি অনুধাবন করা যাবে। ‘হাওরের গান : সেকাল-একাল’ প্রবন্ধে সুমনকুমার দাশ তাঁর নিজের বেড়ে ওঠার পাশাপাশি পুরো হাওরাঞ্চলের চিত্রায়ন করেছেন চমৎকারভাবে। তাঁর এ প্রবন্ধটি থেকেই জেনে নেয়া যাবে ভাটির মানুষদের নানা কিছু। তিনি লিখেছেন, ‘ভাটি অঞ্চলের আশি ভাগ মানুষের পেশা কৃষিকাজ কিংবা মৎস্যশিকার। সঙ্গত কারণেই দিনে হাড়ভাঙা পরিশ্রম এঁদের সার্বক্ষণিক সঙ্গী। কিন্তু সেই পরিশ্রমী মানুষদের কাছে দিনের সূর্য ডোবার মুহূর্তটুকু যেন নতুন আমেজে হাজির হয়। দিনমান কাজ শেষে বাড়ি ফিরে সেই মানুষেরা অনাবিল আনন্দে মেতে ওঠেন। গ্রামে গ্রামে বসে বিচিত্র সব গানের আসর, উৎসবের রং ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। একই অঞ্চল হওয়ার সুবাদে এখানকার প্রায় আড়াই কোটি মানুষের গানের ভুবনও প্রায় অভিন্ন। যেহেতু আমি ভাটি অঞ্চলের মানুষ, তাই এখানকার আচার-অনুষ্ঠানের অনেক কিছুই আমার নখদর্পণে।’

একইভাবে তাঁর লেখনি ক্ষমতাটি প্রকাশ পেয়েছে ‘লোকায়ত জীবনাচরণ ও তার অন্তর্গত সংস্কৃতি’ শিরোনামের প্রবন্ধে। তিনি যে লেখার প্রয়োজনে কত স্থান আর কত জনের শরণাপন্ন হয়েছেন তা বলাও মুশকিল। প্রবন্ধটির একটি অংশে তিনি লিখেছেনÑ‘রণেশের গান গাওয়ার এ ধরনটা লক্ষ করে একদিন তাঁকে বললাম, ‘রণেশদা, শাহ আবদুল করিম তো তাঁর গানে “ওস্তাদ” শব্দটা লিখেননি। তবে কেন আপনি বাড়তি এই শব্দটা প্রতিটি গানেই জুড়ে দিচ্ছেন?’ আমার প্রশ্ন শুনে রণেশ বললেন, ‘দাদা, ওস্তাদ শব্দটা শ্রদ্ধার সঙ্গে উচ্চারণ করি। আমার মুর্শিদ তিনি, কেবল নাম উচ্চারণ করতে ঠোঁট কাপে, তাই এর আগে ওস্তাদ শব্দটা জুড়ে দিই।’ প্রতিউত্তরে বলি, ‘কিন্তু এটাও তো এক ধরনের গানের বিকৃতি। তাই এই শব্দটা এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।’ আমার কথায় রণেশ বলেছিলেন, ‘আর এমন হবে না দাদা’।’

‘মনসার গানের ভেলায়’ শীর্ষক প্রবন্ধে লেখক উল্লেখ করেছেন আমাদের অনেক না জানা তথ্য। সুমনকুমার দাশ এ প্রবন্ধে উল্লেখ করেছেন যেÑ‘সিলেট তথা হাওর অঞ্চলের বাসিন্দারা দাবি করে আসছেন, সুনামগঞ্জসহ হাওরাঞ্চল একসময় কালীদহ সাগরের নিচে ছিল। ‘পদ্মপুরাণ’ কাব্যে সেই কালীদহ সাগরের উল্লেখ রয়েছে। ফলে পদ্মপুরাণ এ অঞ্চলেরই কাহিনি। অন্যদিকে চট্টগ্রাম অঞ্চলের বাসিন্দাদের দাবিও অনুরূপ। তাঁদেরও দাবি, ‘বাইশকবি পদ্মপুরাণ’ রচয়িতার প্রায় প্রত্যেকেই চট্টগ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। এ নিয়ে এখনো গবেষকদের মধ্যে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মতান্তর রয়েছে। পদ্মপুরাণ-এর ‘নেতার জন্ম ও পদ্মার জন্ম বিবরণ’ পর্বে কালীদহ সাগরের উল্লেখ পাওয়া যায়। সে পর্বে বলা হচ্ছেÑ‘উপনীত হয়ে শিব কালীদহ তীরে।/বিলবৃক্ষ তলে বসে প্রফুল্ল অন্তরে ॥’ এর বাইরেও কয়েকবার কালীদহ সাগরের নাম উল্লেখ রয়েছে।’

গবেষক-প্রাবন্ধিক সুমনকুমার দাশ এভাবেই নানা তথ্যবহুল প্রবন্ধে সাজিয়েছেন ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থের প্রথম পর্বটি। দ্বিতীয় পর্বের প্রবন্ধগুলো আরও গুরুত্বপূর্ণ। এ পর্বটি পাঠে আমি যেমন অনেক না জানা তথ্য সম্পর্কে অবগত হলাম ঠিক তেমনি যে কোনো পাঠকমাত্রই অনেক কিছু জানার উপায় হবে। দ্বিতীয পর্বের প্রবন্ধগুলোর শিরোনামেই পাঠককে প্রতিটি প্রবন্ধ পাঠে আগ্রহী করতে সক্ষম হবে। প্রবন্ধগুলোর শিরোনাম হচ্ছে-‘হেমাঙ্গ বিশ্বাস : জন্মশতবর্ষ পেরিয়ে, ‘মান্না দে : বিরহ ও ভালোবাসার গানের অমর স্রষ্টা’, ‘শাহ আবদুল করিম : তাঁর স্মৃতি, তাঁর কথা’, ‘প্রতাপবান্ধা’, ‘আমীরী সঙ্গীত’, ‘হুমায়ূন আহমেদের গান’, ‘রামকানাই দাশ : লোকগানের সর্বশেষ কিংবদন্তি’, ‘লোকগানের শেষ নবাব রামকানাই দাশ’, ‘লোকগায়ক বিদিতলাল দাস’ ও ‘কৈশোরের নায়ক নকুল বিশ্বাস’।

এসব প্রবন্ধে লেখক যেমন গুনী ব্যক্তিদের কথা খোলামেলাভাবে বলেছেন ঠিক তেমনি উল্লেখ করেছেন তাঁদের কীর্তিময় কর্মগুলোর ব্যাপক আলোকপাত। এ পর্বের প্রথম প্রবন্ধটি-‘হেমাঙ্গ বিশ্বাস : জন্মশতবর্ষ পেরিয়ে’। প্রবন্ধের একাংশে লেখক বলেছেন যেÑ‘হেমাঙ্গ বিশ্বাসের রচিত গণসংগীত এখনো বাঙালিকে দ্রোহী চেতনায় উজ্জীবিত করে। হেমাঙ্গর উদ্দীপনাসঞ্চারী পঙ্ক্তিতে তরুণ প্রজন্ম বুঁদ হয়ে থাকে। এখনও সভা-সমাবেশে গণসংগীতের আসরে শিল্পীরা বিরামহীম গেয়ে চলেন ‘কাস্তেটারে দিও জোরে শান’, ‘উদয় পথের যাত্রী’, ‘প্রাণের বদলে চাই প্রতিদান’, ‘আজব দেশের আজব লীলা’, ‘মাউন্ট ব্যাটেন মঙ্গল কাব্য’, বাঁচবো রে বাঁচবো’, ‘আজাদী হয়নি আজও ভোর’, ‘আমরা তো ভুলি নাই শহিদ’ প্রভৃতি গান।’

সত্যি কথা বলতে ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থের প্রতিটি প্রবন্ধ নিয়েই পৃথক এক একটি আলোচনা বা পাঠ মূল্যায়ন করা যেতে পারে। গবেষক সুমনকুমার দাশ কালের প্রয়োজনে কলমকে চালিয়েছেন সুচারুভাবেই। লেখকের বাউল গবেষণার শুরুটা ছিল বাউলস¤্রাট শাহ আবদুল করিমকে নিয়ে। বাউলস¤্রাটকে নিয়ে তাঁর গবেষণা প্রাণিধানযোগ্য, এ পর্যন্ত বাউলস¤্রাটকে নিয়ে তাঁর আটটির মতো বইও প্রকাশিত হয়েছে। এ গ্রন্থেও রয়েছে ‘শাহ আবদুল করিম : তাঁর স্মৃতি, তাঁর কথা’ শীর্ষক একটি প্রবন্ধ। এখানে তিনি বাউলস¤্রাটকে উপস্থাপন করেছেন এভাবে-‘২০০৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর শাহ আবদুল করিম দেহত্যাগ করেছেন। কিন্তু এখনো তাঁর গানের ধরন, ভঙ্গি ও স্বাতন্ত্র্য হাওরবাসীর নিয়মিত আড্ডার মুখ্য বিষয়। করিম যখন গাইতেন, তখন তন্ময় হয়ে শুনতেন হাজারো শ্রোতা। সেসব শ্রোতা এখন করিমের শূন্যতা অনুভব করে আফসোস করেন। প্রবীণ ব্যক্তিদের অনেককেই বলতে শুনি, ‘করিম নিমাই সন্ন্যাস পালা খুব চমৎকার গাইতেন।’ কিন্তু কেমন ছিল তাঁর নিমাই সন্ন্যাস পালা গাইবার কণ্ঠ? সেটা কি তাঁর অপরাপর গানের মতন? জানি না, কারণ কখনো তাঁর নিমাই সন্ন্যাস পালা শুনিনি। তাই কেবল অনুভব করিÑদরাজ গলায় করিম গাইছেন বিষ্ণুপ্রিয়ার দুঃখগাথা।’

বাউল ও লোকগবেষক সুমনকুমার দাশ জীবন্ত কিংবদন্তীদের হারিয়ে যাওয়া বা বর্তমান প্রজন্মদের কাছে অচেনা থাকার গল্পও বলেছেন নিখুতভাবে। ‘আমীরী সঙ্গীত’ প্রবন্ধে গবেষক ক্বারী আমীর উদ্দিনকে নতুন প্রজন্মের কাছে উপসস্থাপন করেছেন। তিনি লিখেছেন- ‘আলমপুরের পাশ দিয়ে বহে চলা সুরমা নদীর শাখা তেতইখালি যেমন দিনে দিনে নাব্যতা ও অস্তিত্ব হারিয়ে ম্লান ও ধূসর হয়ে পড়ছে, তেমনি আমীর উদ্দিনও তরুণ প্রজন্মের কাছে এখন এক বিস্মৃতপ্রায় নামে পরিণত হয়েছেন। অথচ সিলেট তথা হাওরাঞ্চলে সেই আমীর উদ্দিনের গানের জলসা আয়োজন করা হতো অনেকটা উৎসবমুখরতার মধ্য দিয়ে। সেই কবেকার কথা। লেটার প্রেসে এবড়ো-খেবড়ো লাল হরফের এক রঙা পোস্টার সাঁটিয়ে আর সয়াবিন তেলের খালি টিনে লাঠি পিটিয়ে আমীরের গানের জলসার খবর পৌঁছে দেওয়া হতো গ্রাম-গঞ্জ-বন্দরে।’

দ্বিতীয় পর্বে লেখক গুনিব্যক্তিদের পর্ব হিসেবে পৃথক করেছেন। তবে উল্লেখিত প্রবন্ধগুলোর শিরোনাম থেকেই বুঝা যায় যে একজন মাত্র ব্যক্তিকে নিয়ে লেখকের দুটি প্রবন্ধ রয়েছে। প্রবন্ধ দুটি ‘রামকানাই দাশ : লোকগানের সর্বশেষ কিংবদন্তি’ ও ‘লোকগানের শেষ নবাব রামকানাই দাশ’। দুটি প্রবন্ধের মধ্যে দ্বিতীয়টিতে লেখক রামকানাই দাশের পরিচয়টি এভাবেই লিখেছেন- ‘রামকানাই দাশের জন্ম সুনামগঞ্জে, ১৫ এপ্রিল ১৯৩৫-এ। সুনামগঞ্জ মানেই ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা বিশাল-বিশাল হাওর। ঢেউয়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এখানকার মানুষের বুক চিতিয়ে বেড়ে উঠতে হয়। সন্ধ্যার পর প্রতি রাতে এখানে বসে নানা ধরনের লোকগান ও লোকনাট্যের আসর। তাই কোটি মানুষের মতোই রামকানাই হাওরের সংস্কৃতি-গান-বিনোদন দেখে-দেখেই কৈশোর পেরিয়ে যুবক হয়েছেন। মাঝে-মধ্যে নিজেও শামিল হয়েছেন সেসব আসরে। আরো অনেকের মতো দারিদ্র্যের কারণে তাঁরও পড়াশোনা হয়নি, আবার অনেকের মতো তিনি ‘দেখা থেকে শেখা’Ñএ পদ্ধতিতে একজন সুদক্ষ শিল্পী হয়ে উঠেছিলেন। আপন খেয়ালে গান গাইতেন। গাইতে-গাইতেই হয়ে উঠেছিলেন লোকগানের একজন জহুরি। সেই জহুরির আলো-জ্বলানো সময়ের অবসান ঘটল ২০১৪ সালের ৩ সেপ্টেম্বর। মৃত্যুর মধ্য দিয়ে চলে গেলেন না-ফেরার দেশে। তাঁর সৃষ্টিই এখন কেবল তাঁর পরিচয়, তাঁর কণ্ঠই এখন কেবল তাঁর পরিচয়।’ এর পরেই যে প্রবন্ধ রয়েছে ‘লোকগায়ক বিদিতলাল দাস’ শীর্ষক। এ প্রবন্ধের সব শেষে তিনি লিখেছেন- ‘বিদিতলাল দাস অজ্ঞাত গীতিকারদের রচিত প্রাচীন সব লোকগানে সুরারোপের পাশাপাশি দীন ভবানন্দ, রাধারমণ, হাসন রাজা, আরকুম শাহ, একলিমুর রাজা, ফকির ভেলা শাহসহ হালের গিয়াসউদ্দিন আহমদের গানে সুর দিয়েছেন। তাঁর সুরকৃত গানগুলো ব্যাপক জনপ্রিয়তাও পেয়েছে। প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ তো বিদিতলাল দাসের সুর-করা একটি গানে আমৃত্যু মজে ছিলেন। গিয়াসউদ্দিন আহমদের লেখা ওই গানটি ছিলÑ‘মরিলে কান্দিস না আমার দায়’। এ গান প্রসঙ্গে হুমায়ূন বলেছিলেন, ‘গানটি শোনার সময় আমার মধ্যে একটা অদ্ভুত ঘোর তৈরি হয়’। লোকগায়ক বিদিতলাল দাস এমনই, তাঁর সুরকৃত গান এমনইÑযা শোনামাত্র ‘ঘোর তৈরি’ হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাঁর সুরের এমনই মায়া, এমনই জাদু।’

বাউল ও লোক গবেষক সুমনকুমার দাশ আবহমান বাংলার হারিয়ে যাওয়া, চলমান বা নুয়ে পড়া লোকসংস্কৃতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। এ রকমটিই বলা যায় তাঁর ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটি পাঠে। আউল বাউল লালনের দেশে তো বটেই সাথে বলবো বাউলস¤্রাট, প-িত আর সুর ¯্রষ্টাদের ভুবনে সুমনকুমার দাশের ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটি প্রত্যেক সচেতন পাঠকের গভীরভাবে পাঠ করা আবশ্যক। কেননা লোক গবেষক সুমনকুমার দাশের ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ গ্রন্থটির পাঠক মাত্রই শেকড়েরর সন্ধানে ফিরে যেতে বাধ্য হবেন। পরিশেষে যে কথা বলা আবশ্যক, গ্রন্থটির প্রকাশক উৎস প্রকাশের মোস্তফা সেলিম সম্পুর্ণ নতুন ও ভিন্ন আঙ্গিক-বিন্ন্যাসে বইটি পাঠকদের জন্য প্রকাশ করেছেন। তাই তিনিও অভিনন্দন পাওয়ার দাবিদার। বইয়ের লেখক ও প্রকাশক উভয়ের প্রতিই শুভকামনা। সবশেষে ‘লোকগান লোকসংস্কৃতি’ বইটির বহুল প্রচার ও প্রসার কামনা করছি।
লেখক- বশির আহমদ জুয়েল:: সম্পাদক- ছন্দালাপ (ছড়াসাহিত্যের ছোটকাগজ), নির্বাহী পরিচালক- ছড়া নিকেতন সিলেট

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24