বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০১ অপরাহ্ন

স্বামী বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি তাই শিক্ষিকা স্ত্রী অগ্রিম হাজিরা দেন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৩০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: স্বামী বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি তাই স্ত্রী সহকারী শিক্ষিকা মনগড়া বিদ্যালয়ে আসেন। একদিন বিদ্যালয়ে এসে তিন দিনের অগ্রিম স্বাক্ষর দেন। এসব ঘটনার প্রতিবাদ করলে সভাপতি প্রধান শিক্ষককে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেন। ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের বাউধরন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এ ঘটনায় বুধ্বার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশে সহকারী শিক্ষিকা (বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির স্ত্রী) জলি বেগমের অগ্রিম হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর নেয়ার কপি জব্দ করেছেন। জানা গেছে, বাউধরন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি দুদু মিয়া নিজ প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে তার স্ত্রী জলি বেগমকে দিয়ে বিদ্যালয়ের পড়ালেখার পরিবেশ বিনষ্ট করার চক্রান্তে দীর্ঘদিন ধরে লিপ্ত রয়েছেন। সভাপতির স্ত্রী হওয়ার কারণে সহকারি শিক্ষিকা জলি বেগম নিজের খেয়াল খুশি মতো বিদ্যালয়ে যাওয়া আসা করেন। প্রধান শিক্ষিকার কথা না শুনে উল্টো স্বামীকে দিয়ে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখান। গত সোমবার জলি বেগম সর্বশেষ বিদ্যালয়ে গিয়ে অগ্রিম তিন দিনের স্বাক্ষর দিয়ে চলে যান। মঙ্গলবার বিদ্যালয়ে না আসায় যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি তার বদলে তার স্বামীর বোন (ননদ) কে বিদ্যালয়ে পাঠাবেন। প্রধান শিক্ষিকা এতে সন্মত না হওয়ায় স্বামীকে দিয়ে প্রধান শিক্ষিকাকে মুঠোফোনে হুমকি দেন। এঘটনা এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্র্থামিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অবহিত করলে বিষয়টির সত্যতা জানার জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা তাহমিনা বেগম জানান, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি স্ত্রী সহকারি শিক্ষিকা জলি বেগমের পক্ষ নিয়ে প্রায়ই আমাদের সাথে অশালীন আচরন করেন। মঙ্গলবার ফোন করে জলি বেগমের স্বামী জলি বেগম বিদ্যালয়ে আসতে পারবেনা বলে আমাকে জানান। আমি কেন আসতে পারবেনা জানতে চাইলে তিনি আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন। বুধবার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশে হাজিরা খাতা নিয়ে শিক্ষা অফিসে হাজির হই। বিষয়টি দেখবেন বলে শিক্ষা কর্মকর্তা জানান।
অভিযোগ প্রসঙ্গে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি দুুদু মিয়া জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি জানি আমার স্ত্রী ছুটি নিয়েছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে শোকজ করে আইনানুগ পদক্ষেপ নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24