রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের!

হাওরের পিআইসি’র বিরুদ্ধেও তদন্ত করছে দুদক

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৫ জুলাই, ২০১৭
  • ৫৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে কেবল ঠিকাদারদের অনিয়ম নিয়ে নয়, প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি’র) দুর্নীতিরও তদন্ত চলছে। অনিয়মের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দুদক’র একজন কর্মকর্তা এই তথ্য জানিয়েছেন।
গেল বোরো মৌসুমে জেলার ৩৭ টি বড় হাওরসহ মোট ৪২টি হাওরে ২২৫ টি পিআইসি (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) এবং ৭৬ টি প্যাকেজে ঠিকাদারদের মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করার কথা ছিল পানি উন্নয়ন বোর্ড’এর (পাউবো’র)। মোট বরাদ্দ ছিল পিআইসিতে প্রায় ২০ কোটি টাকা এবং দরপত্রের মাধ্যমে (ঠিকাদারের মাধ্যমে) কাজ আদায়ের জন্য ৪৮ কোটি টাকা। এছাড়া সুনামগঞ্জের হাওর এলাকার বাঁধ উন্নয়ন ও সংরক্ষণে ৬. ৫ মিটার (পিডব্লিউডি) উচ্চতায় ডুবন্ত বাঁধ ডিজাইন করে ২০১১’এর জুলাইয়ে আগাম বন্যা প্রতিরোধ ও নিস্কাশন উন্নয়ন প্রকল্প নামের আরেকটি প্রকল্পের কাজ হয়। এই প্রকল্পের কাজ ২০১৫ ইংরেজি তারিখে শেষ হবার কথা ছিল। এই প্রকল্প নিয়ে দুদক রোববার ১৫ জন কর্মকর্তা এবং ৪৬ জন ঠিকাদারসহ ৬১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। এই মামলায় সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তৎকালীন নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন এবং ঠিকাদার বাচ্চু মিয়া ঢাকার সেগুন বাগিচা থেকে গ্রেপ্তার হয়েছেন।
বিগত বোরো মৌসুমে পিআইসি’র কাজ ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এবং ঠিকাদারের কাজ ৩১ মার্চের মধ্যে শেষ করার কথা ছিল। কিন্তু কোথাও সময়মত কাজ শেষ হয়নি। যদিও সুনামগঞ্জ পাউবো কাগজে-ফাইলে দেখিয়েছে পিআইসি সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ এবং সর্বনি¤œ ৫০ শতাংশ বাঁধের কাজ করেছে।
দুদক’র একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন পিআইসি’র বাঁধ রক্ষা কাজেরও তদন্ত করছে। তদন্তে দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
দুদক’র তদন্তকারী দলের প্রধান এবং কমিশনের পরিচালক বেলাল হোসেন মঙ্গলবার বিকালে এ প্রতিবেদককে বলেন,‘পিআইসি’র বাঁধ রক্ষা কাজেরও তদন্ত চলছে। তদন্ত চলাকালীন পর্যায়ে কোন মন্তব্য করা যাবে না।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24