1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন

নকলার ২ পুলিশ সদস্যসহ ৭ জন সুস্থ্য হলেও আইসোলেশনে আছেন স্বাস্থ্য বিভাগের ১ জন

  • Update Time : সোমবার, ১৮ মে, ২০২০
  • ৭৭ Time View

মো. মোশারফ হোসাইন, শেরপুর:

শেরপুরের নকলা থানার দুই পুলিশ সদস্যসহ ৭ জন সম্পূর্ণ সুস্থ্য হয়ে করোনা আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র পেলেও নতুন করে আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে আছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক (এএইচআই) মো. মফিদুল ইসলাম। ফলে উপজেলায় এ পর্যন্ত ৮ জনের শরীরে কভিট-১৯ এর উপস্থিতি পাওয়া গেলো! এদের মধ্যে ৭ জন সুস্থ্য হয়েছেন আর নতুন আক্রান্ত সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা আইসোলেশনে আছেন।

সোমবার (১৮ মে) দুপুরের দিকে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা আইসোলেশন থেকে করোনা যুদ্ধে বিজয়ী দুই পুলিশ সদস্য মো. নাসির উজ্জামান ও মোখলেছুর রহমানকে ছাড়পত্র প্রদান করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমান। উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমানের অফিস কক্ষে কয়েকজন চিকিসৎক ও সাংবাদিকদের উপস্থিতে এ ছাড় পত্র প্রদান করা হয়। ছাড় পত্র পাওয়ার পরে তাদেরকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আমিনুল ইসলাম ও নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন শাহসহ উপস্থিত অনেকে। আইসোলেশন থেকে ছাড় পত্র পেলেও তাদেরকে নিজ বাসায় কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ শেষে তথা কিছু দিনের মধ্যে তাঁরা নিজের কর্মস্থল নকলা থানায় স্ব-দায়িত্বে যোগদান করবেন বলে জানিয়েছেন নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন শাহ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. আমিনুল ইসলাম জানান, পুুিলশ সদস্য মো. নাসির উজ্জামান ও মোখলেছুর রহমানের নিজ বাড়ি অন্য জেলাতে হলেও তাঁরা শেরপুর জেলার নকলা থানায় কর্মরত অবস্থায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হন। গত ৭ মে বৃহস্পতিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে নকলা থানায় কর্মরত বেশ কয়েকজনের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। ১০ মে রোববার উক্ত দুই পুলিশ সদস্যদের শরীরে নভেল করোনা ভাইরাস (কভিট-১৯) শনাক্ত হওয়ার পর থেকে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমানের ত্বত্তাবধানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমান জানান, পুলিশ সদস্য মো. নাসির উজ্জামান ও মোখলেছুর রহমান আইসোলেশনে থাকাবস্থায় ১২ মে মঙ্গলবার ও ১৪ মে বৃহস্পতিবার দুই দফায় নমুনা পরীা করায় তাদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি নেগেটিভ আসে। এখন তাঁরা সম্পূর্ণ সুস্থ্য আছেন, তাই আজ ১৮ মে সোমবার দুপুরে কোয়ারেন্টিন থাকার পরামর্শ দেওয়াসহ করোনা আইসোলেশন থেকে তাদেরকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

নকলা হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগে কর্মরত মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট আবু কাউসার বিদ্যুত জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে করোনা আক্রান্তের সন্দেহে উপজেলার ৩০০ জনের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করার পরে তা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে নকলা হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. সৌরভ কুমার সরকার, ডা. আব্দুল্লাহ আল নোমান, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক (এএইচআই) মো. মফিদুল ইসলাম ও বাগানের মালী রমজান আলী, পুলিশ সদস্য মো. নাসির উজ্জামন ও মোখলেছুর রহমান এ ৬ জনের নমুনায় কভিট-১৯ পজেটিভ আসে। তাছাড়া নকলা উপজেলার নাগরিক হলেও ময়মনসিংহে কর্মরত মো. রনি মিয়া ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি থাকা সরুফা বেগমের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হলে তাদের শরীরেও করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়। ফলে উপজলোয় এপর্যন্ত ৮ জনের শরীরে কভিট-১৯ এর উপস্থিতি পাওয়া গেলো। সুসংবাদের বিষয় হলো এদের মধ্যে ৭ জনই সম্পূর্ণ সুস্থ্য হয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন এবং নতুন আক্রান্ত সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা আইসোলেশনে আপাতত বেশ ভালো আছেন বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমান।

প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন “সি” জাতীয় ফল ও শাক সবজি খেলে, কিছুক্ষণ পর পর লবন বা ভিনেগার মিশ্রিত গরম পানি দিয়ে গড়া গড়া করলে, সম্ভব হলে আধা ঘন্টা পর পর গরম পানি পান করলে এবং আইসোলেশনের সকল নিয়ম কানুন মেনে চললে করোনা ভাইরাস দ্রুত সেড়ে যায়। কভিট-১৯ (করোনা ভাইরাসে) আক্রান্ত হলে এতে চিন্তার কিছু নেই। সচেতনতা অবলম্ভন করলে ও আইসোলেশন নিয়ম মেনে চললে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে করোনা ভাইরাস মুক্ত হওয়া যায়। আমরা এমনটা করেছি বলেই আমরা দুইজন কয়েকদিনের মধ্যেই সম্পূর্ণ সুস্থ্য হয়ে উঠেছি; এভাবেই বললেন করোনা বিজয়ী পুলিশ সদস্য মো. নাসির উজ্জামান ও মোখলেছুর রহমান। সকলের প্রতি তাদের আহবান- ‘নভেল করোনা ভাইরাস (কভিট-১৯) থেকে সুরক্ষা পেতে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হওয়া জরুরি। এই ভারাস আক্রমণ করার পরে সচেতনতার অভাব হলে সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ মজিবুর রহমান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com