1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

বাবা মায়ের দ্বিতীয় বিয়ে নির্যাতনের শিকার শিশু ইমন

  • Update Time : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫৬০ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি – -পারিবারিক সন্মতিতে বিয়ে করেন সিলেটের বিয়ানীবাজারের আব্দুর রহিম ও জকিগঞ্জের রুশিয়া বেগম । সাত বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয়। এর মধ্যে রুশিয়া বেগম পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে স্বামী মাইক্রোবাস চালকের সংসার ছেড়ে অটোরিকশা চালক রুমেল চৌধুরী কে বিয়ে করে২০১৪ সাল থেকে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা সদরের একটি কমিউনিটি সেন্টারের দ্বিতীয়তলায় ঘর ভাড়া নিয়ে সংসার পাতেন। এ সংসারে তার প্রথম বিয়ের চার বছর বয়সী ছেলে ইমন মিয়া রয়েছে । অপরদিকে মেয়ে কে নিজের কাছে রেখে আব্দুর রহিমও দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সম্প্রতি মা রুশিয়া বেগম ছেলে ইমন মিয়ার ওপর শারিরীক নির্যাতন শুরু করেন। শারিরীক নির্যাতনের চিত্র দেখে প্রতিবেশীরা অনেক খোঁজাখুঁজির পর তার বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করলে রোববার তিনি এসে থানায় এসে ছেলেকে উদ্ধার করে নিজের জিন্মায় নেওয়ার আবেদন করেন। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে থানায় এনে উভয়পক্ষে নিয়ে সমঝোতা বৈঠকে বসে।

জগন্নাথপুর থানায় শিশু ইমন মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টি ফোর ডটকম  কে জানায়,সে গত আট বছর ধরে মায়ের সঙ্গে রয়েছে। গত কয়েক মাস ধরে মা তাকে অহেতুক খুব বেশি মারধর করছে। সে খুব কষ্টে আছে দেখে প্রতিবেশীরা তাঁর বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি তাকে নিতে আসেন।
শিশুর বাবা আব্দুর রহিম বলেন,আমি মাইক্রোবাস চালক হিসেবে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরাঘুরি করায় সুযোগে প্রতিবেশী অটোরিকশা চালক রুমেলের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে আমার সংসার থেকে আমার ছেলে কে নিয়ে পালিয়ে যায় আমার প্রথম স্ত্রী পরে মুঠোফোন পরিবর্তন করে ফেলায় ছেলের কোন খবর নিতে পারিনি।ছেলের সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখে খুব কষ্ট পাচ্ছি। তাই ছেলেকে আমার জিম্মায় নিতে আবেদন করছি। পুলিশ বয়স বিবেচনায় ছেলেকে আমার জিম্মায় না দিয়ে মারধর না করার অঙ্গীকার আদায় করেছে।
উপজেলা সদরের কমিউনিটি সেন্টারের বাসিন্দা হলিয়ার পাড়া মাদ্রাসার সহকারী অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টি ফোর ডটকম  কে জানান ছেলেটির কান্না আমাদেরকে ব্যথিত করেছে। তাই অনেক খোঁজাখুঁজির পর ছেলের বাবা কে বিষয়টি জানালে তিনি থানায় আসেন।

জগন্নাথপুর থানার উপ পরিদর্শক রাজিব রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টি ফোর ডটকম  কে বলেন,বাবা- মায়ের দ্বিতীয় বিয়েতে শিশু ইমন অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে  হয়েছে। শিশুর বয়স বিবেচনায় তাকে মায়ের কাছে রাখা হয়েছে। আর মায়ের কাছ থেকে অঙ্গীকার রেখেছি ছেলে কে মারধর না করতে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: