1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
  3. ali.jagannathpur@gmail.com : Ali Ahmed : Ali Ahmed
  4. amit.prothomalo@gmail.com : Amit Deb : Amit Deb
জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডব, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেল স্কুল শিক্ষার্থী সেলিনা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডব, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেল স্কুল শিক্ষার্থী সেলিনা

  • Update Time : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২
  • ১০২৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::

বেঁচে আছি বিশ্বাস হচ্ছিল না। আমার পাশেই মামি ও মামির ছোট ছেলে ও মেয়ের নিথর দেহ পড়ে আছে। কিভাবে মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম বুঝতেই পারিনি। বৃহস্পতিবার বিকেলে এসব কথা বলছিল, কালবৈখাশী ঝড়ের তাণ্ডব থেকে অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া স্কুল শিক্ষার্থী সেলিনা বেগম (১৩)।
গত বৃহস্পতিবার ভোরে জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের সোলেমানপুর গ্রামে কালবৈশাখী ঝড়ে গাছচাপায় বসতঘরের শোয়ার খাটে তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ওই বসতঘরে সেলিনা বেগম তার মামি নিহত মৌসুমী বেগম (৩৫), মামাতো ভাই হোসাইন মিয়া (১) ও বোন মাহিমা বেগম (৪) এর সঙ্গে একই খাটে ছিল।
সে জানায়, সাহরি খেয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। হঠাৎ প্রচণ্ড ঝড় ও একের পর এক বিকট বজ্রশব্দে ঘুম ভেঙে যায় আমার ও মামির। তখন ভয় কাঁপছিলাম। হঠাৎ ঝড়ে গাছ আমাদের ঘরের খাটের (চৌকি) ওপর আছড়ে পড়ে। গাছের মূল অংশ মামি ও মামির ঘুমন্ত দুই শিশুর ওপর পরে ঘরটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। মূর্হুতের মধ্যে মনে হয়েছিল মরে গেছি। হঠাৎ করে জ্ঞান ফিরে পাওয়ায় চিৎকার করতে থাকি। বাঁচার চেষ্টা করি। মামি ও তাঁর দুই সন্তানের নিথর দেহ পড়ে আছে। কিছুক্ষণ পর সামান্য ফাঁকা জায়গা পেয়ে ঘর থেকে কোনভাবে বেরিয়ে আসি। গাছ ও চাল আমার শরীরের সামান্য ওপরে ছিল। তবে নিজে বেঁচে গেলেও মা হারা সেলিনা মামির কাছে মায়ের আদরেই ছিল। তাকে ও তার সন্তানদের হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পরে সে।
মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসা সেলিনা ছোটকালে তার মাকে হারিয়ে মামা হারুন মিয়া ও নানা ইয়াংরাজ ও নানী নুরজাহানের কাছে বেড়ে উঠে। তাদের গ্রামের বাড়ীর নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার চকবানিয়াপুর গ্রামে। তার বাবা দিলু মিয়া দেশের বাড়ীতেই থাকেন। সেলিনা নানা, নানী ও মামার সঙ্গেই জগন্নাথপুরে বসবাস করে আসছে। স্থানীয় পাটলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সে। এসব তথ্য তার স্বজনরা জানিয়েছেন।
সেলিনার নানাভাই ইয়াংরাজ উল্লা জানান, ঝড়ের সময় আমি ও আমার স্ত্রী পাশের একটি কক্ষে ছিলাম। হঠাৎ করেই আমাদের পাশের আরেকটি কক্ষে গাছ পড়ে আমার ছেলের বউ, নাতি ও নাতনি ঘটনাস্থলেই মারা যায়। আমরা ঝড়ের মধ্যে বের হয়ে তাদেরকে উদ্ধারের চেষ্টাকালে দেখতে পায় আমার মেয়ের ঘরের নানতি কাঁদতে কাঁদে বের বেরিয়ে আসছে। ভাগ্যক্রমে সে বেঁচে গেলেও বৌমা ও নাতি ও নাতনির মৃত্যুতে আমি বাকরুদ্ধ।
এদিকে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হারিয়ে পাগল প্রায় সেলিনার মামা হারুন মিয়া। তিনি জানান, ঝড়ে আমার সব শেষ হয়ে গেছে। আমি কেন বাঁচলাম। তাদের সঙ্গে মরে গেলাম না কেন, বলে কাঁদতে থাকেন। ঝড়ের সময় তিনি ফজরের নামাজের অন্য একটি কক্ষে ছিলাম।
প্রসঙ্গত, জগন্নাথপুরের সোলেমানপুর গ্রামের যুক্তরাজ্যপ্রবাসী বুলু মিয়ার বাড়িতে কেয়ারটেকার হিসেবে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার চকবানিয়াপুর গ্রামের হারুন মিয়া তার স্ত্রী ও দুই শিশুসন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। তিনি প্রবাসীর বাড়ি দেখাশোনার পাশাপাশি স্থানীয় মিনহাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘প্যারা শিক্ষক’ (খন্ডখালিন) হিসেবে কাজ করছেন। বৃহস্পতিবার ভোর ৫টার দিকে কালবৈশাখী ঝড়ে গাছচাপায় কাঁচা বসতঘরে হারুনের স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তানের মৃত্যু হয়।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: