1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
  3. ali.jagannathpur@gmail.com : Ali Ahmed : Ali Ahmed
  4. amit.prothomalo@gmail.com : Amit Deb : Amit Deb
নলুয়ার হাওরে বাঁধ সিন্ডিকেট চক্রের বাঁধ ফেটে হাওরে চুই চুই করে পানি ঢুকছে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪০ অপরাহ্ন

নলুয়ার হাওরে বাঁধ সিন্ডিকেট চক্রের বাঁধ ফেটে হাওরে চুই চুই করে পানি ঢুকছে

  • Update Time : বুধবার, ২০ এপ্রিল, ২০২২
  • ৬৯২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি –
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরে বাঁধ সিন্ডিকেট চক্রের একটি ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধে ফাটল দেখা দিয়ে চুই চুই করে হাওরের পানি ঢুকে পড়েছে। ফলে কৃষকরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। স্হানীয়
কৃষক, ও পাউবো সূত্র জানায়,উপজেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর নলুয়ার হাওরের ফসল রক্ষায় বেতাউকা গ্রামে একটি ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ রয়েছে। ১৩ লাখ টাকা বরাদ্দে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন বেতাউকা গ্রামের বাসিন্দা সাবেক চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সহ সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমদের চাচাতো ভাই রেজাউল করিম বাদশার নামে। অভিযোগ রয়েছে গত ৫ বছর ধরে জুয়েল আহমদ নিজে ও তার ভাই আত্বীয় স্বজনদের নামে ৫ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে করে যাচ্ছেন। পাউবোর মাঠ কর্মকর্তা সাথে যোগসাজশে হাওর রক্ষার নামে ওই চক্র লুটপাট করে যাচ্ছে। এবারও ওই চক্রের হাওরে ৪ টি ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ রয়েছে। তার একটি ১৪ নং প্রকল্প। অন্য প্রকল্পগুলো হলো জুয়েল আহমদের ভাই আবুল কাশেমের নামে ভেড়াখালি বেড়িবাঁধ ১২নং প্রকল্প বরাদ্দ ১২ লাখ টাকা। ১১ নং প্রকল্পে তার চাচা আব্দাল মিয়া টংগর বেড়িবাঁধ ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ।
১৩ নং প্রকল্প তার চাচাতো ভাই খলাপাশা এলাকায় সুহেল মিয়ার নামে ১২ লাখ টাকা বরাদ্দ।

বেতাউকা গ্রামের বাসিন্দা চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মফিজ আলী বলেন ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ সঠিকভাবে না হওয়ায় বাঁধে ফাটল দেখা দিয়েছে।বেতাউকা স্কুলের সামনের বেড়িবাঁধটে ফাটল দেখা দিয়ে চুই চুই করে পানি ঢুকছে।এতে কৃষকরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।
হাওর বাঁচাও আন্দোলন জগন্নাথপুর উপজেলার কমিটির আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন, হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ প্রকল্প কমিটি গঠনে অনিয়ম রয়েছে। একটি চক্র বাঁধ নির্মাণের সময় পাউবোর কর্মকর্তার সাথে যোগসাজশে প্রকল্প হাতিয়ে নিয়ে সঠিকভাবে কাজ না করে লুটপাটে মেতে উঠে হাওরকে ঝুঁকিতে ফেলে। তিনি বলেন বেতাউকা গ্রামের জুয়েল আহমদ সহ আরও অনেকেই রয়েছে ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির চক্রে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সাধারণ সম্পাদক সাবেক ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জুয়েল আহমদ বলেন, আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। আমি নিজে কোন বেড়িবাঁধ প্রকল্পে সম্পৃক্ত নয়। আমার আত্বীয় স্বজনের নামে কোন প্রকল্প নেই। শুধু আমার ভাইয়ের নামে একটি প্রকল্প রয়েছে।সেটি আমি দেখাশোনা করছি।
১৪নং প্রকল্প কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম বাদশা বলেন, আমি নিজে আমার প্রকল্পের কাজ করছি।৫ বছর ধরে হাওরে কাজ করছি। বাঁধে ফাটল দেখা দিলেও কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর উপজেলার মাঠ কর্মকর্তা হাসান গাজী বলেন, জুয়েলের আত্বীয় স্বজন ও প্রতিবেশী কয়েকজন প্রকল্পের দায়িত্ব পালন করলেও কোন চক্র ও প্রভাব বিস্তারে প্রকল্প দেওয়া হয় নি। জুয়েল আহমদ নিজে কাজ দেখাশোনা করছেন জানিয়ে বলেন, ১৪ নং প্রকল্পের বাঁধে ফাটল দেখা দিয়ে চুই চুই করে পানি ঢুকলেও তা বন্ধ করতে অতিরিক্ত শ্রমিক লাগিয়ে কাজ চলছে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: