সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব?

অধিকাংশ চেয়ারই আজ বে-দখলে- মোঃ আজিজুর রহিম মিছবা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮
  • ২৩৮ Time View

অসংখ্য বৈচিত্রের সমন্বয়ে গড়া এই পৃথিবী । এই পৃথিবীতে খোদার সৃষ্ট এমন কোন সৃষ্টিই নেই; জগতে যার কোন প্রয়োজন নেই । অপ্রয়োজনীয় কোন কিছুই খোদা এই পৃথিবীতে সৃষ্টি করেন নাই । পৃথিবীর প্রত্যেকটি প্রাণীরই কিছুনা-কিছু নির্ধারিত প্রয়োজন যেমন রয়েছে তেমনি তাদের প্রত্যেকেরই নিজস্ব গতিপথ ও কিছু মৌলিক কর্মপন্থাও নির্ধারিত আছে । উদ্যেশ্যহীন ভাবে কোন কিছুই এই পৃথিবীতে বিরাজমান নয় ।
মানুষ হলো খোদার সৃষ্টির শ্রেষ্টতম জীব আর এই মানুষকে নিয়েই আবৃত খোদার সৃষ্টির সকল পরিকল্পনা । পশু পক্ষী, কীট, পতঙ্গরাজি তথা সৃষ্টি জগতে যা কিছুই রয়েছে তার সবকিছুরই চলার মৌলিক ধরণটি সৃষ্টি কর্তা কর্তৃক নির্ধারিত । যার কিছু মানুষের চিন্তার অধীন আর কিছু হলো মানুষের কল্পনারও অতীত । কিন্তু একটি নির্ধারিত জীবন ব্যবস্থার অধীনে যে সৃষ্টিজগতের সব কিছুকেই থাকতে হয় এবং প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে হলেও ইহা যে সৃষ্টিকর্তা কর্তৃকই নির্ধারিত, এই সত্যটি সকলের কাছেই বদ্ধমুল এবং ইহাই চিরন্তন সত্য ।
খোদার সৃষ্টির শ্রেষ্ট জীব হিসাবে মানুষের জীবন পরিক্রমাও নিঃশ্চয়ই কোন একটি পরিকল্পনার আওতা বহির্ভুত হবার কথা নয়, কেননা যেহেতু এই মানুষই হলো পুরো পৃথিবীর নিয়ন্ত্রক । ছোট্ট আকৃতির এই মানুষই একমাত্র তার বুদ্ধিমত্তা দিয়ে বিশাল আকৃতির শক্তিধর জড়, জীব এই পৃথিবীর সবকিছুকেই নিয়ন্ত্রন করে । এই মানুষের মধ্য থেকেই কিছু মানুষকে আবার বিশাল মনুষ্য জাতিকে সুশৃংখল ভাবে পরিচালিত হওয়ার সুবিধার্থে প্রতিটি সমাজেই বিভিন্ন স্তর ভিত্তিক নেতৃত্বের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হয় । আর ইহাই হলো সৃষ্টি জগতের চিরাচরিত সুপ্রতিষ্টিত একটি বিধান । এই বিধান যখন স্বাভাবিক নিয়মে তার নির্ধারিত কক্ষ পথে অগ্রসর হতে প্রয়োজন অনুযায়ী দক্ষ চালকের নিয়ন্ত্রনে নিয়ন্ত্রিত হয় তখনই সবকিছুই হয় স্বাভাবিক,- আর এর ব্যতিক্রমই হলো অস্বাভাবিক । অর্থাৎ গাড়ি চলছে স্টেয়ারিংয়ে এমন কেউ বসা যার এখানে বসার কথা নয়, গাড়ি চালানোর জন্য সকল জ্ঞানে যিনি সমৃদ্ধ নন,- দুর্ঘটনা অনিবার্য ।
কোন একটি সমাজ পরিচালিত হওয়ার জন্য ঐ সমাজে অনেক প্রকৃতির, অনেক শ্রেনীর মানুষের প্রয়োজন হয় এবং সাধারনত একটি সমাজ পরিচালিত হওয়ার জন্য কম বেশী যোগ্য মানুষ ঐ সমাজেই বিদ্যমান থাকে । সমাজের প্রত্যেকটি মানুষেরই তার নিজস্ব কিছু বৈশিষ্ট থাকে, স্ব স্ব বৈশিষ্টের গুনাবলীর ধরনের উপর সমাজে মানুষের অবস্থান নির্ধারিত হয় ।
গ্রাম্য একটি প্রবাদ আছে “ ‘শ’ ছেদে লাঙ্গল আর এক ছেদে চেলি ” । অর্থাৎ একটি লাঙ্গলকে এক ছেদে চেলি বানানো যায় যা প্রায় সবাই পারে, এর জন্য খুব একটা বুদ্ধি খাটানোর প্রয়োজন হয়না । কিন্তু একটি লাঙ্গল বানাতে যথেষ্ট বুদ্ধি খাটিয়ে অনেক পরিশ্রম করতে হয় । সকলেই লাঙ্গল বানাতে পারে না, লাঙ্গল বানানোর জন্য আলাদা কিছু জ্ঞান ও দক্ষতার প্রয়োজন হয় । ঠিক তেমনি ভাবে সমাজের সকলেই নেতা হতে পারেনা । নেতা হওয়ার জন্য একজন মানুষের আলাদা কিছু গুনাবলীর প্রয়োজন হয়, যে গুনাবলী ঐ মানুষটিকে সমাজের অন্য সকলের কাছে আলাদা ভাবে উপস্থাপিত করে, যার কারনে সমাজে ঐ মানুষটি সমাদৃত হয়, মানুষ তাকে নেতা মানে । অর্থাৎ যে সমাজের যিনি নেতা তিনি তার স্বীয় বৈশিষ্ট গুনে সমাজের অন্য সকলের চাইতে কিছুনা-কিছু হলেও জ্ঞানী, প্রাজ্ঞ, দূরদর্শী কোন ব্যক্তি ।
আবার সমাজে এমন কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে যে প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তা ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে উল্লেখিত গুনাবলীর সাথে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার প্রয়োজনিয়তাটি অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িয়ে থাকে । ন্যুনতম একটি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়া এইসব প্রতিষ্ঠানের চেয়ারগুলোর দখল যে একেবারেই বেমানান অন্তরদৃষ্টিতে তা খুব সহজেই সকলের কাছেই অনুমেয় হয় ।
শিক্ষা বিস্তারে প্রযুক্তির স্বর্ণ শিখরে অবস্থান করা বর্তমান এই যুগে নাগরিক প্রতিষ্ঠান সমুহের যে কোন স্তরের কোন একটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি হওয়ার জন্য, প্রতিষ্ঠান বিবেচনায় স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ন্যুনতম একটি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাগত যোগ্যতাকে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির যোগ্যতার প্রাথমিক মানদন্ড হিসাবে বিবেচনায় আনা উচিত, বর্তমান সময়ে ইহা সময়ের দাবি । কারন পর্যাপ্ত শিক্ষাহীন নেতৃত্বের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে, যে সীমাবদ্ধতা কখনো কখনো উক্ত ব্যক্তিকেই শুধু বিব্রত করেনা বরং যে নাগরিক সমাজের তিনি নেতা উক্ত সমগ্র সমাজকেই লজ্জিত করে । শিক্ষার যে প্রয়োজন তা অভিজ্ঞতা, বুদ্ধি, দক্ষতা বা কোন কিছু দিয়েই এই ঘাটতি পূরণ হবার নয় । শিক্ষার বিকল্প কেবলই শিক্ষা । সমাজের সকল স্তরের মানুষের প্রতি আমার অসীম শ্রদ্ধা রয়েছে, কারো প্রতি অশ্রদ্ধা প্রদর্শন বা কাউকে হীন করার বিন্দু পরিমান কোন প্রয়াস আমার নেই । আমি এখানে সেই মানুষটির কথা বলছি যিনি নেতা, যিনি সমাজের সবচেয়ে মর্যাদাবান চেয়ারটির মালিক -তিনির কথা । তিনি কেন হবেন না অপেক্ষাকৃত বেশী গুনে গুনান্বিত সমাজের সবচেয়ে শ্রেষ্ট ব্যক্তি বা সমাজের শ্রেষ্ট ব্যক্তিদের মধ্য থেকে কোন একজন । এখানে একটি বিষয় পরিষ্কার করা উচিত, যে সম্মানিত মুরব্বিয়ান বা ব্যক্তিবর্গ বিভিন্ন সময়ে সমাজকে সামাজিক ভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন তারা আমার আলোচনার বিষয়বস্তু নন । যুগ পরিক্রমায় সময়ের পটপরিবর্তনে সমাজের প্রাতিষ্ঠানিক পদ গুলোই হলো আমার আলোচনার বিষয়বস্তু ।
ছোটবেলা থেকে আমরা সকলেই জেনে আসছি “শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড”, শিক্ষাহীন মানুষ অন্ধের শামিল । অথচ একটি সমাজে আইএ, বিএ, এমএ পাশ করা অসংখ্য শিক্ষিত যোগ্য ব্যক্তি থাকার পরও ঐ সমাজের প্রাতিষ্ঠানিক পদগুলোর নেতা কেন হবেন সমাজের অপেক্ষাকৃত কম শিক্ষিত, কোন কোন ক্ষেত্রে একেবারেই অল্পশিক্ষিত কোন ব্যক্তি । শিক্ষাহীন মানুষ কখনো পরিপূর্ণ জ্ঞান ও যোগ্যতার অধিকারী হতে পারেনা । তাছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক কিছু জ্ঞান রয়েছে, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যতিত যা অর্জন কোনভাবেই সম্ভব নয় । একজন মানুষ সার্বিক জ্ঞানে যত বেশী সমৃদ্ধ হবে সমাজ পরিচালনায় সে তত বেশী দক্ষ হবে এবং সমাজে তার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে ইহাই স্বাভাবিক, এতে কারোরই দ্বিমত থাকার কথা নয় ।
প্রাসঙ্গিক বিবেচনায় রবীন্দ্রনাথের শেষের কবিতা উপন্যাসের ঐতিহাসিক কিছু বক্তব্যের অবতারনা করতে চাই । শেষের কবিতার নায়ক অমিত ভালোবাসতো লাবণ্যকে কিন্তু সে যখন কেতকীকে বিয়ে করতে যাচ্ছিল তখন বন্ধু যতী প্রশ্ন করলো ভাই অমিত; বুঝলামনা, ভালোবাসো লাবণ্যকে বিয়ে করছো কেতকীকে, এটা কেমন হলো । অমিত উত্তরে বলল ভাই, “একদিন আমার সমস্ত ডানা মেলে পেয়েছিলুম আমার ওড়ার আকাশ; আজ আমি পেয়েছি আমার ছোট্ট বাসা, ডানা গুটিয়ে বসেছি । কিন্তু আমার আকাশও রইল ।” যতী বোধ করি কথাটা বুঝলনা । অমিত ঈষৎ হেসে বলল, “দেখো ভাই সব কথা সকলের নয় । আমি যা বলছি, হয়তো সেটা আমারই কথা । সেটাকে তোমার কথা বলে বুঝতে গেলেই ভুল বুঝবে । আমাকে গালি দিয়ে বসবে । একের কথার উপর আরের মানে চাপিয়েই পৃথিবীতে মারামারি খুনোখুনি হয় । এবার আমার নিজের কথাটি স্পষ্ট করেই না-হয় তোমাকে বলি । রূপক দিয়েই বলতে হবে নইলে এ-সব কথার রূপ চলে যায়..কথাগুলো লজ্জিত হয়ে ওঠে । কেতকীর সঙ্গে আমার সম্বন্ধ ভালোবাসারই, কিন্তু সে যেন ঘড়ায়-তোলা জল..প্রতিদিন তুলব, প্রতিদিন ব্যবহার করব । আর লাবণ্যর সঙ্গে আমার যে ভালোবাসা সে রইল দিঘি, সে ঘরে আনবার নয়, আমার মন তাতে সাঁতার দেবে ।”
অর্থাৎ কিছু কথা আছে রূপক দিয়ে না বললে স্পষ্ট হয়না । আলোচনার স্বার্থে এখানেও কিছু দৃষ্টান্তের প্রয়োজন হতে পারে । সামগ্রিক বিবেচনায় পরিলক্ষিত চিত্রই আমার আলোচনার উপলক্ষ্য । বক্তব্যগুলো একান্তই আমার নিজস্ব চিন্তাধারার বহিঃপ্রকাশ । সর্বত্রই কিছু লোক থাকে যার নিজের দ্বারা কোন সৃষ্টিকর্ম সম্ভব নয়, নিজের অসংখ্য সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও অন্যের বক্তব্যের মানের উপর নিজস্ব মানে চাপিয়ে দিয়ে টেবিল চাপড়িয়ে সমালোচনার ফেনা তুলতে অতি উৎসাহি । প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় মোটামুটি ভালো শিক্ষিত ছাড়া, কেবল মাত্র লিখতে পড়তে পারেন এমন ব্যক্তিগন আমার এই লিখাটি পড়ে এর মর্ম বুঝার চেয়ে না বুঝার এমনকি ভুল বুঝার ও সম্ভাবনা রয়েছে,- আর এর দায় নিঃশ্চয়ই আমার হবার কথা নয় ।
প্রায় দুই যুগ থেকে জাতীয় পর্যায়ে আমরা উত্তরাধিকার নেতৃত্বের কশাঘাতে পিষ্ট হচ্ছি । কোন জাতি যখন উত্তরাধিকার সুত্রে নেতৃত্ব প্রাপ্ত হতে বাধ্য হয় তখন সে জাতির পছন্দের কোন বিকল্প থাকে না, মন্দের ভালোতেই তাকে সন্তুষ্ট থাকতে হয় । এ জাতীয় পরিস্থিতিতে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই জাতির ঘাড়ে চেপে বসা নেতৃত্বগুলো প্রয়োজনমত যোগ্যতার অধিকারী হয় না । তাছাড়া ও একটি দেশের সর্বোচ্চ যে পরিষদের মাধ্যমে দেশের আইন রচিত হয় সেখানেও আইন তৈরীর কারিগরদের অনেকেরই আজ সংসদে দাঁড়িয়ে ভাল করে লিখিত বক্তব্য পাঠ করারও যথেষ্ট স্বামর্থের অভাব পরিলক্ষিত হয়, যা কেবল পিড়াদায়কই নয় জাতি হিসাবে লজ্জারও বটে ।
ছোট বেলায় যখন কোনভাবে একজন ‘এম পি’র প্রসঙ্গ আসত তখন Automatic ভাবেই মনে মনে একটি কল্পনার উদ্রেক হতো; না জানি কত বড় লেখাপড়া জাননে-ওয়ালা একজন মানুষ তিনি । এই মানুষটিকে সচরাচর আমাদের মত একজন মানুষ ভাবতেই ভয় লাগতো । অর্থাৎ মর্যাদাগত দিক থেকে একজন এম পি’র সর্বজন স্বীকৃত একটি সম্মানিত অবস্থান ছিল এবং বাস্তবেও তারা স্ব স্ব বৈশিষ্ট ও গুনাবলীতে উক্ত মর্যাদার অধিকার সংরক্ষন করতেন । সময় পরিক্রমায় টাকা নামক দৈত্যের কাছে আত্মসমর্পন, আর নৈতিকতার সর্বোচ্চ পর্যায়ের স্খলন আজ আমাদেরকে জাতি হিসাবে দুর্বিষহ অপমানের ভাগিদার হতে বাধ্য করেছে ।
দেশের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে প্রায় বিশ কোটি মানুষের মধ্য থেকে মাত্র ৩০০ জন প্রতিনিধি নির্বাচনে আজ যে-কেউ দাঁড়িয়ে যায় অতি মর্যাদাকর ঐ পদটিকে দখল করতে । খোঁজ নিলে এমনও অনেক সময় দেখা যায়, হয়ত টাকা বা অন্য যে কোন পেশী শক্তির শক্তিতে যে তার নিজের বাস্তব খবর ভুলে গিয়ে অতি গুরুত্বপূর্ণ এই পদটির জন্য নিজেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ করে, সে ‘এম পি’ নামক এই পদটি কি এবং ইহা কেন, কিভাবে ইহা বানান করে লিখতে হয় তাও সঠিক ভাবে জানে কি না তাতেও সন্দেহের অবকাশ থেকে যায় । অপ্রত্যাশিত হলেও আমাদের দেশের রাজনৈতিক দলগুলো তাদের প্রতিানধি নির্বাচনে অনেক সময় এই লোকগুলোকে বেছেও নেয় । বঞ্চিত হয়,- রাজনীতি করে করে সারাজীবনের শিক্ষা, শ্রম, মেধা সব বিলিয়ে দিয়ে তীলে তীলে যে নিজেকে গড়ে তুলেছে ঐ পদটির জন্যে সে । জয়ী হয় টাকা, জয়ী হয় অশুভ পেশী শক্তি । পদদলিত হয় যোগ্যতা, পদদলিত হয় নৈতিকতা । আর এখান থেকেই শুরু হয় চেয়ারের বে-দখল । চেয়ারটি গুমরে গুমরে কাঁদে অযোগ্য জবর দখলের অভিশাপ থেকে ভারমুক্ত হতে, কিন্তু চেয়ারের কি আর সাধ্য আছে ভারমুক্ত হবার….!!
স্থানীয় প্রশাসনের ‘ওয়ার্ড ’ হলো শাসনতন্ত্রের সর্বনিম্ন নাগরিক প্রতিষ্ঠান । দেশের সবকটি ওয়ার্ড যদি ভাল থাকে দেশ ভাল থাকবে ইহাই স্বাভাবিক । তাই একটি দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থানীয় সরকারের দুই একটি নাগরিক প্রতিষ্ঠান বিষয়ক আলোচনা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্বের রূপক হিসাবেই পরিগনিত হতে পারে ।
গ্রাম্য একটি প্রবাদ আছে “ ‘শ’ দাঁড়ি মিলে এক সরদার মিলে না ” । আগেকার প্রচলিত প্রবাদ গুলো যে নিছক কোন কথার কথাই ছিল না, তখনকার প্রবাদগুলোর নিগুঢ় তাত্মিক মুল্যের প্রতিষ্ঠিত চিরন্তন সত্য রূপটি যুগ যুগ ধরে তারই যথার্থতা বহন করে চলেছে । এই প্রবাদটি দ্বারা ইহাই প্রতিয়মান, সমাজে অগনিত অসংখ্য মানুষ থাকে কিন্তু অগনিত অসংখ্য সরদার থাকে না । এই অগনিত মানুষদের মধ্য থেকে কিছু সংখ্যক ব্যক্তিগনই কেবল সরদার হবার যোগ্যতা সংরক্ষন করেন । সরদার যিনি তার নিজস্ব কিছু বিশেষ গুনাবলী ও বৈশিষ্ট থাকে যার কারনে তিনি সরদার হয়ে উঠেন । আর এই বিশেষ গুনগুলোই তাকে সমাজে অন্য সকল সাধারণ মানুষ থেকে আলাদা ভাবে উপস্থাপিত করে । যে সমাজ যত উন্নত সে সমাজের নেতা বা সরদার ততোই উন্নত হবেন এটাই স্বাভাবিক । কিন্তু অপ্রত্যাশিত হলেও বর্তমান বাস্তবতায় সচরাচর তা পরিলক্ষিত হয়না । একটি সমাজে অসংখ্য শিক্ষিত, প্রাজ্ঞ, যোগ্য ব্যক্তি থাকার পরও ঐ সমাজের শীর্ষ নেতৃত্বে কাঙ্ক্ষিত যোগ্য ব্যক্তিটিকে আজ আর দেখা যায়না ।
যারা সমাজকে নেতৃত্ব দেবার কথা, যাদের কাছ থেকে সমাজ কিছু পেতে পারে, বৃহত্তর স্বার্থে এই মানুষ গুলোকে যেখানে সমাজেরই পৃষ্টপোষকতা করার কথা, সেখানে পৃষ্টপোষকতাতো দুরে থাক বরং পরিকল্পিত উপায়ে তাদেরকে কোনঠাসা করে প্রতিহত করার মানসে- কেবলমাত্র ধনে, জনে ক্ষমতাধর নেতৃত্বজ্ঞানে আনাড়ী, অর্ধান্ধ, অশোভন ব্যক্তিদের নেতা বাননোর স্বার্থের পুজায় সমাজের মানুষজন আজ বড়ই ব্যস্ত । প্রতেক সমাজেই যোগ্য মানুষ গুলোর সাথে কিছু মানুষের অসম মানসিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা, ব্যক্তিগত, গোষ্টিগত প্রতিহিংসাই এর পিছনের মুল কারন । আর এতে যোগ্য ব্যক্তিরা যে নেতৃত্ব থেকে দুরে থাকছে শুধু তাই নয় বরং অযোগ্য নেতৃত্বের দাপট ক্রমেই বেড়ে চলেছে । আর তাতে তীলে তীলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে পুরো সমাজ । যে মানুষ গুলোর কাছ থেকে সমাজ কিছু পেতে পারতো অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই মানুষ গুলো আজ মানসম্মান বিবেচনায় নিজেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখি দাড় করাতে রীতিমত ভীত সন্ত্রস্ত । নিজেকে গুটিয়ে রাখাকেই তারা আজ নিরাপদ মনে করে । সমাজ আজ টাকা আর অসুস্থ পেশী শক্তির কাছে মাথা নত করেছে । ফলে নাগরিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারগুলো তার কাঙ্ক্ষিত মানুষ হারাচ্ছে আর সমাজ হারাচ্ছে তার ঐতিহ্যগত গুনগত অবস্থান । আর এরই ফলশ্রুতি দেশের বিভিন্ন নির্বাচনে সর্বজন স্বীকৃত একজন অযোগ্যের কাছে যোগ্যের শিখরে আরোহনকারী ব্যক্তিটির জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে আর ইহাই ঘটে চলেছে অনবরত । যোগ্যতা আজ অপমানে নীরবে নিভৃতে কাঁদে । ( ব্যতিক্রমও যে আছে তাও অনস্বীকার্য )
ছোট বেলায় সকলের মা-বাবাই তাদের সন্তানদেরকে বলেছেন লেখাপড়া করে বড় হতে হবে, মানুষের মত মানুষ হতে হবে । সমাজকে, জাতিকে উন্নত করতে হলে লেখাপড়ার বিকল্প নেই । যে পিতা-মাতা নিজে লেখাপড়া করতে পারেননি, চরম অর্থকষ্টে দিনাতিপাত করছেন, তাদেরও একমাত্র ব্রতই ছিল নিজের সন্তানটিকে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ করে গড়ে তোলা । যুগ পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তন হয়েছে অনেক কিছুই, কিন্তু আজও পিতা মাতার এই একটি বিশ্বাসে কোন পরিবর্তন আসেনি । তাই এখনো প্রত্যেক পিতা-মাতা শত প্রতিকুলতার মাঝেও তাদের সন্তানটিকে লেখাপড়া করানোর জন্য যেকোন প্রকার ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকেন । আর এতে এই সত্যই প্রতিষ্ঠিত হয় একজন মানুষকে; মানুষের মত মানুষ হওয়ার জন্য যতো শর্ত প্রয়োজন তার মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য শর্তটি হলো শিক্ষা অর্জন করা । শিক্ষা অর্জন ছাড়া কোন মানুষ পরিপূর্ণ মানুষ এমনকি পরিপূর্ণ দৃষ্টিশক্তি সম্পন্ন মানুষ হতে পারেনা,- সে হলো একজন অর্ধান্ধ মানুষ । আর একজন অর্ধান্ধ মানুষের দ্বারা চাইলেই অনেক কিছুই সম্ভব নয় । শিক্ষা অর্জনেরও প্রকার নিশ্চয়ই রয়েছে । প্রাইমারি বা তার চেয়ে দুই এক ক্লাস উচু নিচু পর্যন্ত লেখাপড়া হয়ত কারোর নিজের চলার জন্য যথেষ্ট হতে পারে, কিন্তু একথা বোধ করি সকলেই স্বীকার করবেন প্রযুক্তির চুড়ায় অবস্থান করা বর্তমান সমাজ ও জাতির উন্নয়নে ভুমিকা রাখার জন্য একজন মানুষের লেখাপড়াও যে মোটামুটি একটি গ্রহনযোগ্য পর্যায় পর্যন্ত হওয়া একান্তই জরুরি ।
লেখাটি অনেক দীর্ঘ হয়ে যাচ্ছে যদিও চেয়েছিলুম সংক্ষিপ্ত করতেই । প্রাসঙ্গিক বিষয়গুলো ছেটে ফেললে লিখা সংক্ষিপ্ত হয় বটে কিন্তু বক্তব্য স্পষ্ট করে বুঝার ক্ষেত্রে খুব একটা সহজবোধ্য হয়না । তাই যথাসম্ভব সংক্ষিপ্ত ভাবে কিছু বিষয়ের অবতারনা করেই শেষ করতে চাই ।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলো ভবিষ্যত প্রজন্মের মানুষ হয়ে গড়ে উঠার চারণ ভুমি । শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনুকরণীয় সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টিতে, প্রতিষ্ঠানের উপযোগী যথাযথ ব্যক্তিদের এর সাথে সমপৃক্ত করে, শিক্ষার অগ্রযাত্রাকে নিশ্চিত করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোকে সহযোগিতা করা সকলেরই একান্ত কর্তব্য । তাই প্রত্যেকেরই উচিত ব্যক্তিগত সংকীর্ণ স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে বৃহত্তর স্বার্থে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোকে সকল প্রকার হীন রাজনীতি ও দলাদলি থেকে মুক্ত রাখা । অথচ সমাজে আজ ক্রমাগত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোই কখনো স্থানীয় প্রতিহিংসার দাবানলে, কখনো জাতীয় রাজনীতির পক্ষপাত দুষ্ঠ অন্ধ আচরণে ক্ষত বিক্ষত হচ্ছে ।
আইএ, বিএ, পড়ানো হয়, এমন একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের কর্তা ব্যক্তির শিক্ষাগত যোগ্যতা ২য়, ৪র্থ , ৫ম, বা ৭ম, এ জাতীয় কোন এক শ্রেনী, কোন কোন ক্ষেত্রে এমনও দেখা যায় যে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তির শিক্ষাগত যোগ্যতা হলো কোন মতে স্বাক্ষর দিতে পারেন । শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলো এমন এক বিচরণ ক্ষেত্র যেখানে কেবল শিক্ষারই খেলানেলা । যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ( হউক প্রাইমারী, হউক মাধ্যমিক, হউক উচ্চ মাধ্যমিক ) প্রতিটি পদে পদে এমন মানুষদেরই থাকার কথা যাদেরকে দেখে, যাদেরকে অনুসরণ করে ছেলে মেয়েরা অনুপ্রানিত হবে । যে মানুষ নিজে ন্যুনতম কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা অর্জন করতে পারলো না ( যে কোন কারনেই হউক ) সর্বজন স্বীকৃত ভাবেই সে একজন দুর্ভাগ্যবান মানুষ । এমন একজন মানুষকে যেখানে বসানো হলো বা তার নিজের আগ্রহে যেভাবেই হউক সে যেখানে বসলো, যে বিষয়ের উন্নতিকল্পে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ পদে তার এই অবস্থান- ঐ বিষয়টি সম্বন্ধে তার নিজেরই কোন পরিপূর্ণ জ্ঞান তথা কোন অর্জন নেই । যার নিজেরই কোন সম্বল নেই সে অন্যকে কি দিতে পারে ? যে বিষয়ে যার কোন অর্জন নেই এই বিষয়ে ঐ মানুষ সমাজকে স্বপ্ন দেখাবার জন্য একজন অযোগ্য মানুষ । এমন মানুষ কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই ধরনের পদে আসীন হওয়া যেনো শিক্ষাকে অশিক্ষার বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে উপহাসের অট্টহাসিতে বিদ্রুপ করার মতোই । আর ইহাই হয়ে চলেছে অবিরত দুর্ভাগা আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় । চেয়ারটি এখানেও নিরাপদে নেই,- বে-দখলেই ।
ইহা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই যে, একটি এলাকার জনপ্রতিনিধি এবং ঐ এলাকার শীর্ষ প্রাতিষ্ঠান গুলোতে প্রতিনিধিত্ব করা নাগরিক প্রতিনিধিদের গুনগত মানের উপর এলাকার মান মর্যাদাও যে অনেকখানি নির্ভর করে । যে এলাকা যত বেশী উন্নত ঐ এলাকার নেতৃত্বগুলো তত বেশী নান্দনিক হবে এটাই স্বাভাবিক । একটি এলাকার শীর্ষ প্রতিষ্ঠান গুলোর নেতা, জনপ্রতিনিধিদের গুনগত মান দেখেই মানুষ বাহির থেকে ঐ এলাকার গুনগত অবস্থান বিবেচনায় নেয় । কোন একটি প্রগতিশীল উন্নত এলাকাও কেবল মাত্র তাদের অদক্ষ, অযোগ্য নেতৃত্বের কারনে মানুষের কাছে সেইভাবে বিবেচিত হতে বাধ্য ।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, তৎকালীন সময়ে জনাব আব্দুর রহমান বিশ্বাস ছিলেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি । জাগরণী সাহিত্য পাঠাগার হবিবপুর থেকে আমরা একটি প্রতিনিধি দল রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাৎ করতে বঙ্গভবনে গিয়েছিলাম । কথা প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতি আমাদের এলাকার সংসদ সদস্যের নাম জানতে চেয়েছিলেন, আমরা যখন তিনিকে জনাব আব্দুস সামাদ আজাদের নাম বলেছিলাম, একথা শুনেই তিনি দাঁড়িয়ে গিয়েছিলেন আর বলেছিলেন আপনারা হলেন লিডারের এলাকার মানুষ । সেদিন গর্বে আমাদের বুক ভরে গিয়েছিল একজন রাষ্ট্রপতি যাকে দাঁড়িয়ে লিডার বলে সম্মান প্রদর্শন করেন সেই মানুষটি আমাদের এলাকার সন্তান । প্রযুক্তির শীর্ষে অবস্থান করা বর্তমান এই যুগে নান্দনিক লোকেরাই নেতৃত্ব দিবে ইহাই হওয়া উচিত,- শিক্ষা ছাড়া কোন মানুষ নেতৃত্ব গুনে-ই সমৃদ্ধ হতে পারেনা আর নান্দনিক হওয়াতো দুরের কথা ।
আমার কথা গুলো কতদুর পৌছবে হয়তো তারও একটা গন্ডি রয়েছে, হয়তো পৌছবে না কোথাও । আজকে যদি এমন হতো,- যে মানুষটি ২০ কোটি মানুষের জন্য আইন তৈরিতে ভুমিকা রাখতে নির্বাচিত হবে ঐ পদটির জন্য প্রাথমিক যোগ্যতা হিসাবে যদি ন্যুনতম শিক্ষাগত যোগ্যতার কোন বিধান থাকতো ! যে প্রাতিষ্ঠানিক পদগুলোর সাথে শিক্ষার অপরিহার্যতা স্বয়ংক্রিয় ভাবে জড়িয়ে আছে,- যেমন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র,- যে পদগুলো কেবল কোন প্রাতিষ্ঠানিক পদ-ই শুধু নয়, প্রত্যেকটি পদে আসীন ব্যক্তিগন হলেন স্ব স্ব পরিষদের একেকজন প্রশাসক । যাদের অধীনে কাজ করে কম বেশী সংখ্যক উচ্চশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত, কমশিক্ষিত তথা নানা শ্রেনীর মানুষ । আর একজন প্রশাসককে তার অধীনস্থদের পরিচালনার জন্য কিছু প্রশাসনিক রীতি-নীতি, সৌজন্যতাবোধ, দক্ষতা, তথা যথাযথ প্রশাসনিক জ্ঞানের অপরিহার্যতা রয়েছে, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যতিত যার পরিপূর্ণ দখল ও যথাযথ প্রয়োগ আদৌ সম্ভব নয় । এই প্রতিষ্ঠান গুলোর প্রধানদের ক্ষেত্রে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের জন্য এবং সর্বোপরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো যেমন স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ, কলেজ সমপর্যায়ের মাদ্রাসা এই জাতীয় প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা বোর্ডের প্রধানদের ক্ষেত্রে প্রাথমিক যোগ্যতা হিসাবে যদি ন্যুনতম শিক্ষাগত যোগ্যতার কোন বিধান চালু থাকতো, তাহলে অন্তত একেবারে অযোগ্যের ভয়াল থাবা থেকে প্রতিষ্ঠান গুলো কিছুটা হলেও মুক্তি পেতে পারতো ।
আমি আমার সারাটা লেখাজুড়ে একজন মানুষকে যোগ্য হয়ে উঠার জন্য শিক্ষার অপরিহার্যতার কথা বুঝাবার চেষ্টা করেছি । কিন্তু আমি কোথাও একটিবারও বলিনি যে একজন শিক্ষিত ব্যক্তি মানেই তিনি একজন যোগ্য ব্যক্তি । তাই ভুল বুঝবার অবকাশ এখানে নেই । আমি বরং এই কথাটিই বুঝাতে চেয়েছি যে, কোন একজন মানুষকে যোগ্য মানুষ হয়ে উঠার জন্য যতগুলো শর্তের প্রয়োজন হয় তার মধ্যে প্রাথমিক শর্তটিই হলো শিক্ষা । শিক্ষা ব্যতিত অন্য সকল গুনের সমন্বয়েও কোন মানুষ পরিপূর্ণ যোগ্য মানুষ হতে পারে না, শিক্ষার সাথে নীতি নৈতিকতা তথা অন্যান্য গুনের সমন্বয় একজন মানুষকে পরিপূর্ণ যোগ্য মানুষ হিসাবে গড়ে তুলে । সর্বোপরি নৈতিকতা ছাড়া কোন মানুষ; মানুষ হতে পারেনা, যোগ্য হওয়াতো দুরের কথা । কারন এই গুনটি-ই মানুষ ও অমানুষের মধ্যে পার্থক্য নির্ধারন করে ।
কম শিক্ষিত, লেখাপড়া জানেন না এমন সহজ সরল সাধারণ মানুষ গুলো কখনই সমাজে যোগ্য ব্যক্তিদের শত্রু নয়, বরং যোগ্যরাই পরস্পর পরস্পরের আসল শত্রু । সমাজের উচ্চ শিক্ষিত তথাকথিত যোগ্য ব্যক্তিদের মধ্যে পারস্পরিক মানসিক দ্বন্দ্ব, একে অপরকে সহ্য করতে না পারার মানসিকতা, তথা পারস্পরিক প্রতিহিংসা পরায়নতার কারনে সমাজে আজ যোগ্যদের নেতৃত্বের পথ ক্রমেই সংকুচিত হচ্ছে । সমাজের বৃহত্তর স্বার্থে,- যাকে যেখানে প্রয়োজন; যে পদের জন্য যে মানুষটি বেশী উপযুক্ত ব্যাক্তিগত ভাবে সে কারো শত্রু হলেও ব্যক্তিগত সম্পর্কের উর্ধ্বে উঠে ব্যক্তিগত মতপার্থক্যকে দুরে রেখে তাকে সেই পদে আসীন করতে সর্বপ্রকার সহযোগিতা করাই একজন সত্যিকারের ভাল মানুষের দায়িত্ব । কিন্তু সমাজে আজ তা না হয়ে বরং ইহাই বেশী প্রচলিত যে, একজন শিক্ষিত যোগ্য ব্যক্তি অপর যোগ্য ব্যক্তিটিকে তার কাঙ্ক্ষিত পদে বসতে না দেবার জন্য এহেন কোন কুঠ কৌশল বা চক্রান্ত নেই যা সে করে না । অথচ কোন একজন ব্যক্তিকে সমাজের কাছে যোগ্য হওয়ার জন্য সর্বাগ্রে তার যে গুনটি প্রয়োজন সেটি হলো অবশ্যই তাকে একজন ভাল মানুষ হতে হবে । মানুষ আজ ভালো মানুষ হওয়ার চেয়ে বড় মানুষ হওয়ার নেশাতেই খুব বেশী ব্যস্ত । মানুষের মানসিক দৈন্যতা, নৈতিক অবনমন, ব্যক্তিত্বের সংকীর্ণ দ্বন্দ্বের কারনে সমাজ আজ যোগ্য নেতৃত্বই কেবল হারাচ্ছে না বরং সমাজের গুরুত্বপূর্ণ চেয়ার গুলো ক্রমাগতই অযোগ্যের দখলে চলে যাচ্ছে ।
আসলে ‘সত্য’ হলো এমন একটি বিষয় হাজার চেষ্টা করলেও যা লুকিয়ে রাখা যায়না, অস্বীকার করা যায়না । সত্য যা তা উচ্চারিত হবেই । কোন অযোগ্য ব্যক্তি টাকার জোরে পেশী শক্তি খাটিয়ে বা অন্য যেকোন উপায়ে অনেক বড় কোন পদে আসীন হয়ে গেলেও, মানুষ হয়ত সামনা-সামনি তাকে কিছুই বলেনা বা বলবার সাহস পায়না, কিন্তু সে যে একজন অযোগ্য ব্যক্তি এই সত্যটি নিজের অজান্তেই মানুষের অন্তর থেকে উচ্চারিত হয়,-আর ইহাই সত্যের সবচেয়ে বড় গুন । সর্বপ্রকার চেষ্টা করেও সত্যের সত্য রূপটি কখনো পরিবর্তন করা যায়না, তাকে এড়িয়েও চলা যায় না ।
মোহে আক্রান্ত সমাজকে আজ বোধ করি এই বিষয়টি বুঝতে দেওয়া খুবই জরুরি যে,- ডিজিটাল বর্তমান এই যুগে সমাজের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে আজ আমরা যাদেরকে নির্বাচিত বা মনোনিত করছি এর অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সঠিক ব্যক্তিটি যে আজ সঠিক জায়গায় নেই । এই বোধটি যখন মানুষের বিবেককে কড়া নাড়বে সেদিন হয়তো মানুষ এই বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করবে, তখন হয়তো তারা এর সুফল, কুফল, এমনকি এর পরিত্রান ও চিন্তা করতে পারে ।
আমি নৈরাশ্যবাদী কোন মানুষ নই, জীবনকে আমি বারবার দেখেছি ভিন্ন রূপে । ধ্বংসের একেবারে খাদের কিনারে মিট-মিট করে জ্বলা এক টুকরো আলোর উপর ভর করে আমি আশায় বুক বানতে জানি । সত্যের জয় হবে, সুন্দরের আগমন ঘটবে,- হয়তো আমার এই আশাটিও সত্য হতে পারে; না-ও হতে পারে । ধোঁয়াশা এখানেও আছে । কিন্তু সত্য মানলে সত্য স্বীকার করলে এ কথা নিঃশ্চয়ই মানতে হবে,- বর্তমান সমাজে যার যেখানে থাকার কথা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সে আজ সেখানে নেই । হতে পারে এর থেকে উত্তরণ সমাজের জন্য খুবই জরুরী, হয়তো তা সম্ভব, হয়তো সম্ভব নয় । আবার কারো মনে এমনও হতে পারে এর থেকে উত্তরণ মোটেই জরুরি নয় । সবকিছু নিয়েই বিতর্ক আছে সংশয়ও আছে,- থাকতেই পারে । কিন্তু নিঃসঙ্কোচে নির্দ্ধিধায় এই কথাটি বলেই যাবো,- প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থায় “অধিকাংশ চেয়ারই যে আজ বে-দখলে” ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24