এসএসসি পরীক্ষার ফল পাল্টে দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে অর্থ আদায়, গ্রেফতার ৪

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র দেওয়া এবং ফল পরিবর্তন করে দেওয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একটি প্রতারক চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) একটি দল।

মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর ফকিরাপুল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয় বলে গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আব্দুল বাতেন জানান। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, মো. আব্দুল্লাহ ফাহিম (২০), মো. শামীম আহমেদ, সোহেল রানা (১৭) ও নবীন আলী (২২)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তার চারজন এসএসসি পরীক্ষার ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে বিক্রি ও শিক্ষাবোর্ডের সার্ভার হ্যাক করে ফল পরিবর্তনের নিশ্চয়তা দিত।

গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা বাতেন বুধবার রাজধানীর মিন্টো রোডে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি বলেন, আসামিরা ফেসবুক গ্রুপ খুলে শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করে যে, তারা এসএসসির ফলাফল পরিবর্তন করে দেবে। তাদের আইটি বিশেষজ্ঞ দল রয়েছে যারা এসএসসির রেজাল্ট শিট তৈরির সফটওয়্যারের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে রেজাল্ট পরিবর্তন করতে পারবে। তারা শিক্ষার্থীদের ‘এ গ্রেড’ পেলে সেটাকে ‘এ প্লাস’ এবং ‘বি গ্রেড’ পেলে সেটাকে ‘এ গ্রেড’ করে দেওয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে টাকা আদায় করছিল।

ফলাফল পরিবর্তনের জন্য চক্রটি এইরমধ্যে শিক্ষার্থীদের কারো কাছ থেকে ১৫ হাজার, কারো কারো কাছ থেকে ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে বলেও জানান তিনি।

প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, আটক ফাহিম দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, ইমো, ইউটিউব এবং হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে এসএসসিসহ বিভিন্ন চাকরি, মেডিকেল ও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির ভুয়া প্রশ্নপত্র ফাঁস করে আসছিল। ২০১৮ সালে একই অপরাধে র‌্যাবের হাতে সে একবার গ্রেফতার হয়। ৬ মাস কারাগারে থাকার পর বের হয়ে আবারও সে একই কাজ শুরু করে।

ফাহিম এসএসসি অল বোর্ড, এসএসসি অল বোর্ড সেকেন্ড, রেজাল্ট চেঞ্জ বিডি গ্রুপ খুলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫০০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করে আসছিল।

আটক শামীম ও সোহেল রানা ২০১৮ সাল থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত। নবীন আলী পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে ভুয়া প্রশ্ন বিক্রি করে ৫০০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করতো।

আব্দুল বাতেন বলেন, এই চক্রটি ধরা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সচেতনতা প্রয়োজন। কোমলমতি শিক্ষার্থীরা না বুঝে, ভালো রেজাল্টের স্বপ্ন থেকে, কম পড়াশোনা করে সহজে ভালো রেজাল্ট করার জন্য এসব বিজ্ঞাপন দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

» আ.লীগের দু’পক্ষের গোলগুলি, নিহত ২

» ওসির বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবী’র অভিয়োগ আ.লীগ প্রার্থীর

» জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে যুক্তরাজ্য আ.লীগ নেতাকে সংবর্ধনা

» বালাগঞ্জে নৌকার প্রার্থী মফুর নির্বাচিত

» নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১

» রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ নিহত ৫

» জগন্নাথপুরে ‘বাঁধা’ দেয়ায় হাওরের সড়কের কাজ বন্ধ

» জগন্নাথপুরে সড়ক থেকে মাইক্রোবাস দোকানে, আহত ৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

এসএসসি পরীক্ষার ফল পাল্টে দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে অর্থ আদায়, গ্রেফতার ৪

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র দেওয়া এবং ফল পরিবর্তন করে দেওয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একটি প্রতারক চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) একটি দল।

মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর ফকিরাপুল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয় বলে গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আব্দুল বাতেন জানান। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, মো. আব্দুল্লাহ ফাহিম (২০), মো. শামীম আহমেদ, সোহেল রানা (১৭) ও নবীন আলী (২২)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তার চারজন এসএসসি পরীক্ষার ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে বিক্রি ও শিক্ষাবোর্ডের সার্ভার হ্যাক করে ফল পরিবর্তনের নিশ্চয়তা দিত।

গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা বাতেন বুধবার রাজধানীর মিন্টো রোডে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি বলেন, আসামিরা ফেসবুক গ্রুপ খুলে শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করে যে, তারা এসএসসির ফলাফল পরিবর্তন করে দেবে। তাদের আইটি বিশেষজ্ঞ দল রয়েছে যারা এসএসসির রেজাল্ট শিট তৈরির সফটওয়্যারের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে রেজাল্ট পরিবর্তন করতে পারবে। তারা শিক্ষার্থীদের ‘এ গ্রেড’ পেলে সেটাকে ‘এ প্লাস’ এবং ‘বি গ্রেড’ পেলে সেটাকে ‘এ গ্রেড’ করে দেওয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে টাকা আদায় করছিল।

ফলাফল পরিবর্তনের জন্য চক্রটি এইরমধ্যে শিক্ষার্থীদের কারো কাছ থেকে ১৫ হাজার, কারো কারো কাছ থেকে ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে বলেও জানান তিনি।

প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে ডিবির এ কর্মকর্তা বলেন, আটক ফাহিম দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, ইমো, ইউটিউব এবং হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে এসএসসিসহ বিভিন্ন চাকরি, মেডিকেল ও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির ভুয়া প্রশ্নপত্র ফাঁস করে আসছিল। ২০১৮ সালে একই অপরাধে র‌্যাবের হাতে সে একবার গ্রেফতার হয়। ৬ মাস কারাগারে থাকার পর বের হয়ে আবারও সে একই কাজ শুরু করে।

ফাহিম এসএসসি অল বোর্ড, এসএসসি অল বোর্ড সেকেন্ড, রেজাল্ট চেঞ্জ বিডি গ্রুপ খুলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫০০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করে আসছিল।

আটক শামীম ও সোহেল রানা ২০১৮ সাল থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত। নবীন আলী পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে ভুয়া প্রশ্ন বিক্রি করে ৫০০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করতো।

আব্দুল বাতেন বলেন, এই চক্রটি ধরা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সচেতনতা প্রয়োজন। কোমলমতি শিক্ষার্থীরা না বুঝে, ভালো রেজাল্টের স্বপ্ন থেকে, কম পড়াশোনা করে সহজে ভালো রেজাল্ট করার জন্য এসব বিজ্ঞাপন দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।