মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে জগন্নাথপুরে পরিবহন ধর্মঘট পালন, জনভোগান্তি জগন্নাথপুরে গানে গানে মাতিয়ে গেলেন ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র তারকা শিল্পী সালমা আইন শৃঙ্খলা সভা: জগন্নাথপুরে মাদক বিরোধী অভিযান জোরদারের আহবান জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

জগন্নাথপুরে কৃষকদের ‘বুকে যন্ত্রনা চোখে নেই ঘুম’

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৪৭ Time View

আলী আহমদ :: ‘বাবা রে কিতা কইতাম, ২৮ কেয়ার (কেদার) জমিনে অত (কত) কষ্ট কইরা ধান রোয়াইলাম (আবাদ করলাম)। ধানও ভালা ওইছে, (ভাল ফলন), জমিনে পাকনা (পাকা) ধান কিন্তুু কাটতাম পাররাম না। ২/৩ দিন ধইরা কামলা (শ্রমিক) তুকাইরাম (খুঁজতেছি) পাইরাম না। চিন্তায় আছি, আক্কতা নি (হঠাৎ করি) হাওরের বান ভাংগি( বাঁধ ভেঙ্গে)পানির তলে যায়গি। এর মাঝে পাত্তরের (শিলাবৃষ্টির) ভয়।
মনের কষ্টে রাইতে (রাতে) ঘুমাইতে পারি না’’। এক নিমিষে কথাগুলো বলছেন, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়াহাওর পারের কৃষক ভুরাখালী গ্রামের বাসিন্দা আবুল কালাম। আবুল কালামের মতো শতশত কৃষক শ্রমিক সংকটের কারনে পাকা ধান গোলায় তুলতে পারছেন না। দুঃশ্চিতা যেন এখানেই শেষ নয়। কখন হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। মাঠ ভরা সোনালি ফসল নিয়ে উদ্বেগ আর উৎকষ্টা কাটছেই না এখানকার কৃষকদের।

হাওর ঘুরে কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে ও উজান থেকে নেমে আসা পাহারি ঢলে উপজেলার নদ নদীগুলোতে পানি বাড়তে থাকে। উপজেলার সর্ববৃহৎ নলুয়া, মইয়ার পিংলার হাওরসহ সব ক’টি হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধগুলোতে নিন্মমানের কাজ হওয়ায় পানির চাপে বাঁধগুলো দূর্বল হয়ে বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়। গত দুই দিন ধরে ঝুঁকিপূর্ণ বাধঁগুলোতে সংস্কার কাজ করা হয়। শনিবার পানির চাপে মইয়ার হাওরের একটি বাঁধ ভেঙ্গে ৫ শত ফসল পানির নিচে ডুবে গেছে। এছাড়াও শিলাবৃষ্টিতে প্রায় ১০ হাজার বোরো ফসল ক্ষতি হয়। ধান কাটা হয়েছে প্রায় ৩০ ভাগ। ৭০ ভাগ পাকা ফসল মাঠে রয়েছে। শ্রমিক সংকটের কারনে কৃষকরা পাকা ধান নিয়ে দুঃশ্চিতায় পড়েছেন ।

উপজেলার শেরপুর গ্রামের রঞ্জু গোপ জানান, তিনি নলুয়া ও মইয়ার হাওরে ৪ হাল জমিনে আবাদ করেছেন। এবার ফসল খুবই ভাল হয়েছে। কিছু ফসল শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হয়েছে। ২/৩ দিন ধরে শ্রমিক খুঁজতেছি। পাকা ধান শ্রমিক সংকটে জমিনে পড়ে আছে। কখন কী হয় এ নিয়ে খুবই চিন্তায় আছি।

উপজেলার নলুয়া হাওরপারের কৃষক নেতা সিদ্দিকুর রহমান জানান, অব্যাহত বৃষ্টির ও পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নদ নদীগুলোতে পানি বেড়ে যাওয়ায় হাওরের বাঁধগুলো হুমকির মুখে পড়ে। স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও কৃষকদের স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধে সংস্কার কাজ করে পরিস্থিতি এখন কিছুটা ভাল। কিন্তুু শ্রমিক সংকট থাকায় পাকা ফসল গোলায় তুলতে পারছেন না। ফসল নিয়ে উৎকন্ঠায় আছেন কৃষকরা।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদ্দুজামান শ্রমিক সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, এখন পর্যন্ত ৩০ ভাগ ধান কাঁটা শেষ হয়েছে। তিনি জানান, চলতি বছর এ উপজেলা ২৫ হাজার হেক্টর বোরো ফসল চাষাবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে কিছু ফসল প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24