সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

জগন্নাথপুরে চলছে ক্ষনগননা, কে হচ্ছেন চেয়ারম্যান

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ মার্চ, ২০১৭
  • ১০৫ Time View

আলী আহমদ :: জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষন নির্বাচনের প্রচারণা শেষ। সোমবার ভোট গ্রহন। প্রশাসনের সকল প্রস্তুুতি সম্পন্ন। প্রস্তুত তারা, অবাধ, সুষ্টু ও একটি গ্রহনযোগ্য নির্বাচন উপহার দেয়ার জন্য। শনিবার রাত ১২টায় নির্বাচনী প্রচার প্রচারনার নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে গেছে। ভোটাররা এখন হিসাব কষছেন কে হচ্ছেন পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান।

একটি পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা এক লাখ ৬৭ হাজার ৪৯৯ জন। ভোটার ৮৭ কেন্দ্রে ভোট দেবেন। এর মধ্যে পুুরুষ ভোটার ৮৩ হাজার ৬শ ৯২ ও মহিলা ভোটার ৮৩ হাজার ৮শ ৭জন। মোট ৮৭টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৫১টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ন হিসেবে চিন্তিত করা হয়েছে। রোববার প্রতিটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহনের সকল সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে।

প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এই প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধ¦ীতায় রয়েছেন ৩ জন প্রার্থী। ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন ৫ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৩জন প্রার্থী। চেয়ারম্যান পদে যারা লড়ছেন তারা হলেন, আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও বর্তমান পরিষদের চেয়ারম্যান আকমল হোসেন (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা ( আনারস) ও বিএনপির দলীয় প্রার্থী জেলা বিএনপি নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান (ধানের শীষ)।

শেষ মুহুর্তে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী আকমল হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা ও বিএনপি প্রার্থী আতাউর রহমানের মধ্যে ত্রিমুখি লড়াইয়ের সম্ভাবনার আভাস দিয়েছেন ভোটাররা।
দীর্ঘ এক মাসব্যাপি প্রচার প্রচারনা শেষে এখন চলছে প্রার্থীদের জয়ের ব্যাপারে ক্ষনগননা। সব চেয়ে বেশি আলোচনা চলছে আজিজুস সামাদ ডন সমর্থকদের নিয়ে। এ নির্বাচনে তাদের পছন্দের প্রার্থী মনোনয়ন না পাওয়ায় তারা নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ নেন নি। এখন পর্যন্ত একদম নিরব ভূমিকা পালন করছেন তারা।
এই বলয়ের ভোট কার বাক্সে যাবে বিশ্লেষকরা নানা হিসাব কষছেন। ইতিমধ্যে তাদের বলয়ের কর্মীরা বিভক্ত হয়ে তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীর দিকেই ঝুঁকে গেছেন নিরবে। ডন বলয়ের অধিকাংশ কর্মী সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তাদীর আহমদ মুক্তার আনারস প্রতীক ভোট দিতে পারেন। আবার কিছু কর্মী সমর্থক আওয়ামীলীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আকমল হোসেনের পক্ষে নৌকায় ভোট প্রদান করতে পারেন। একটি অংশ রয়েছে নীরব। ডন সমর্থনদের কন্ঠর একটি গ্রুপ চাই ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিতে পারে এমন আভাস পাওয়া যাচ্ছে নির্বাচনী ময়দান থেকে।
তবে নির্বাচন বিশ্লেষকদের মতে আওয়ামীলীগ যারা করে তারা শেষ অবধি ধানের শীষে ভোট দিবে না। যতই ক্ষোভে নৌকার বিপক্ষে কথা বলুক। শেষ দিকে ওই বলয়ের ভোট নৌকা কিংবা আনারসেই পড়বে। এদিকে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মতিউর রহমান গতকাল শনিবার আওয়ামীলীগের নির্বাচনী সভায় এলেও ডন সমর্থকদের কাউকে তার সাথে দেখা যায়নি। নির্বাচনী মাঠে তাদের নীরবতা রহস্যর সৃষ্টি করছে। ডন বলয়ের ভোট নির্বাচনে প্রার্থী জয়ে একটি ফ্যাক্টর হয়ে দাড়িয়েছে। এই গ্রুপের ভোটের ওপর এখন সবার দৃষ্টি।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থী বিজন কুমার দেব, স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল উদ্দিন ও বিএনপি প্রার্থী হাজী সোহেল খান টুটুর মধ্যে ত্রিমুখি ভোটযুদ্ধ হতে পারে। এছাড়া নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হাজেরা বারী ও বিএনপি প্রার্থী ফারজানা বেগমের মধ্যে দ্বিমুখি লড়াই জমে উঠতে পারে বলে মনে করছেন ভোটাররা।

নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামরুজ্জামান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৮৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ৫১টি কেন্দ্র অধিক গুরুত্বপূর্ন চিহিৃত করা হয়েছে। এছাড়া ১৬জন এক্্িরকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষায় পুলিশ ৮শ ১৩জন, বিজিবি-৬০জন, র‌্যাব-৩২জন, আনসার ও ভিডিপির ১ হাজার ৪৪ জন নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়াও পুলিশ ও র‌্যাবের সাদা পোষাকে বিপুল সংখ্যক আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী থাকবেন। ৯টি স্টাইকিং ফোর্স ৩১ টি মোবাইল টিম নির্বাচনী এলাকায় নিয়োজিত থাকবেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24