বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

জগন্নাথপুরে জ্বিনের বাদশা:লুটকৃত অর্থ ফেরত পেতে আবারো পুলিশের শরণাপন্ন হলেন সেই ব্যবসায়ী

স্টাফ রিপোর্টার::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ১১২৫ Time View
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার জগন্নাথপুর বাজারের এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে জিনের বাদশা পরিচয়ে প্রতারণা মাধ্যমে সাড়ে তিনকোটি হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় চার মাস পেরিয়ে গেলেও টাকা উদ্ধার না হওয়ায় ওই ব্যবসায়ী হতাশ হয়ে পড়েছেন।  টাকা ফেরত পাওয়ার দাবিতে তিনি গতকাল সোমবার  সুনামগঞ্জের সহকারি পুলিশ সুপার জগন্নাথপুর সার্কেল বরাবরে আবেদন করেছেন।
জগন্নাথপুর থানা পুলিশ ও ব্যবসায়ীর আবেদন সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের মক্রমপুর গ্রামের বাসিন্দা ও জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী ইমরান আহমদ গত ২৩ এপ্রিল জগন্নাথপুর থানায় নেত্রকোনা জেলার কালিয়াজুরি থানার দাউদপুর গ্রামের আব্দুল কাদির তার ছেলে হাফিজ কামরুল ইসলাম তার স্ত্রী মোছা রানু বেগমের বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর থানায় প্রতারণার মাধ্যমে  সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাতের মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করলে আসামিরা জিজ্ঞাসাবাদে জানায় সৈয়দপুর গ্রামের হাফিজ এনামুল হাসান এনামের পরিকল্পনা ও সহায়তায় তারা মিথ্যা জিনের নাটক সাজিয়ে টাকা নিয়েছে।পুলিশ হাফিজ এনামুল হাসান কে গ্রেফতার করে রিমান্ডে আনে।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জগন্নাথপুর থানার উপ পরিদর্শক  মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান পিপিএম রিমান্ড শেষে প্রতিবেদনে সমুদয় টাকা আত্মসাৎ এর সত্যতা পাওয়া যায় বলে প্রতিবেদন দাখিল করেন। এছাড়াও আসামি হাফিজ কামরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোছা রানু  বেগম আদালতে ২৬ এপ্রিল ১৬৪ ধারায়স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেন। আবেদনেে আরো উল্লেখ করা হয়, এনামুল হাসান  এর ভা ই   ভগ্নিপতি তার স্ত্রী 
সু পরিকল্পিতভাবে ঘটনার অনেক দিন আগ থেকে লোভনীয় মুখরোচক গল্প দুর্ভাগ্যজনক ভাবে আমাকে ফাঁদে ফেলে। বিগত রমজান মাসে এনামুল হাসান এর ভগ্নিপতি মাও আব্দুর রাজ্জাকের মাদ্রাসার অফিসে ব্যাগ ভর্তি টাকা দেখা দিয়েছে মর্মে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সেকেন্ড অফিসার খবর পেয়ে তদন্তে গেলে টাকাগুলো সরিয়ে নেয়া হয়।  এঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মাদ্রাসা শিক্ষকের  হাফিজ মিছবাহ এর কাছ থেকে প্রত্যক্ষদর্শীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন।
ব্যবসায়ী ইমরান আহমদ বলেন,এত কিছুর পরও চার মাস অতিবাহিত হয়েছে আমার কোন টাকা উদ্ধার না হওয়ায় আমি নিরুপায় হয়ে পড়েছি। তিনি বলেন, আমি খোঁজ নিয়ে জেনেছি আসামি এনামুল হাসান ওই টাকার একটি অংশ ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে বাড়ি তৈরি করেছেন।অপর আসামি কামরুল ইসলাম ও তার স্ত্রী ২০ লাখ টাকার জায়গা কিনেছেন। বাকী টাকাগুলো তাদের কাছে রয়েছে।
ইমরান  জানান, ইতিমধ্যে ওই মামলার দুই আসামি আবদুল কাদির ও এনামুল হাসান জামিনে মুক্ত হয়ে এসে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে আমাকে নানাভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করছে। ব্যবসায়ি ইমরান বলেন,মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা টাকা উদ্ধারে কোন ভূমিকা রাখছেন না। তাঁর আশাবাদ পুলিশ আন্তরিকতার সহিত কাজ করলে টাকাগুলো উদ্ধার সম্ভব। তাই তিনি আবারো পুলিশের শরণাপন্ন হয়েছেন বলে জানান।
জগন্নাথপুর থানার উপ পরিদর্শক হাবিবুর রহমান ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ছুটিতে থাকায় তাঁর বক্তব্য পাওয়া  যায়নি। তবে সহকারী পুলিশ সুপার জগন্নাথপুর সার্কেল মাহবুব হোসেন চৌধুরী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে
বলেন, ব্যবসায়ীর আবেদন পেয়েছি। এবিষয়ে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24