1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
জগন্নাথপুরে দুইজনের নাম থাকলেও প্রভাবশালী চিহিৃত রাজাকারের নাম না থাকায় হতাশ মুক্তিযোদ্ধারা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৩ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে দুইজনের নাম থাকলেও প্রভাবশালী চিহিৃত রাজাকারের নাম না থাকায় হতাশ মুক্তিযোদ্ধারা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৬৩৮ Time View

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় থেকে প্রকাশিত রাজাকারের তালিকায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় দুই জন রাজাকারের নাম প্রকাশিত হলেও জগন্নাথপুরের চিহ্নিত বড় বড় রাজাকারের নাম না আসায় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা হতাশা হয়েছেন ।

জগন্নাথপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধারা জানান,৭১ সালে জগন্নাথপুর উপজেলায় সিলেট বিভাগের মধ্যে বড় দুটি গণহত্যা সংঘটিত হয়। এরমধ্যে একটি জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গণহত্যা এবং অপরটি রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রানীগঞ্জ বাজারে গণহত্যা। শ্রীরামসিতে ১২৬ জন লোককে হত্যা করা হয়। অপরদিকে রানীগঞ্জ বাজারে শতাধিক লোক শহীদ হন। এ দুটি গণহত্যায় এলাকার কয়েকজন চিহ্নিত রাজাকার ছিলেন। যাদের নাম সুনামগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক বজলুল মজিদ চৌধুরী রক্তাক্ত ৭১ সহ বিভিন্ন বইয়ে প্রকাশিত হলেও মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ের প্রকাশিত তালিকায় বড় বড় চিহ্নিত রাজাকারদের নাম না থাকায় তালিকা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। যে দুইজনের নাম তালিকায় এসেছে তারা হলেন জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামের এবিএম মনির উদ্দিন চৌধুরী ও তাজপুর গ্রামের আজিজুর রহমান চৌধুরী।

জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামের বাসিন্দা ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আব্দুস সামাদ জানান, রাজাকারের তালিকায় প্রকাশিত আমাদের এলাকার দুইজন রাজাকারের নাম প্রকাশিত হয়েছে। তারা দুজনই কয়েক বছর আগে মৃত্যু বরণ করেছেন। নতুন প্রজন্ম এদের কে রাজাকার হিসেবে খুব একটা চিনেন না। তালিকায় প্রকাশিত হওয়ায় অনেকেই এখন জানতে পারবে।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা দৌলত খান জানান, ৭১সালে মনির উদ্দিন চৌধুরী ও আজিজুর রহমান চৌধুরী স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার হিসেবে এলাকায় কাজ করেন। দেশ স্বাধীনের পর কিছু দিন আত্মগোপনে থাকলেও পরবর্তীতে নিজ নিজ এলাকায় বসবাস করেছেন। তাদের চেয়ে দুূদান্ত প্রতাপশালী রাজাকার রয়েছেন যাদের নাম প্রকাশ হওয়া দরকার বলে তিনি মন্তব্য করেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আবদুল কাইয়ুম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, রাজাকারের তালিকা প্রকাশ হওয়ায় আমরা খুশি। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ তালিকা না আসায় আমরা হতাশ। তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরতে মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করা সময়ের দাবি। জগন্নাথপুরের রাজাকারের একটি তালিকা মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট রাজকারের তালিকায় প্রকাশের জন্য প্রদান করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

জগন্নাথপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, স্বরাষ্ট মন্ত্রনালয়ের নথি পর্যালোচনায় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় প্রথম ধাপে ১০ হাজার ৭৮৯ জন রাজাকারের নাম প্রকাশ করেছে। পর্যায়ক্রমে জগন্নাথপুরসহ সারাদেশের সকল রাজাকারের নাম প্রকাশিত হবে। এনিয়ে হতাশার কিছু নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com