1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
তিনের নামে প্রতিবন্ধীর ভাতা তুলে একজনের পেটে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১২:০১ পূর্বাহ্ন

তিনের নামে প্রতিবন্ধীর ভাতা তুলে একজনের পেটে

  • Update Time : সোমবার, ২ অক্টোবর, ২০২৩
  • ১৭১ Time View

ধর্মপাশা প্রতিনিধি::

ব্যক্তি এক। অথচ তার নামে রয়েছে তিনটি জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র। সেই জন্ম নিবন্ধন ব্যবহার করে সৌরভ মিয়া নামে ওই ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে পাচ্ছেন তিনটি প্রতিবন্ধী ভাতা। স্থানীয়রা বলছেন, সৌরভের আপন চাচা ইউপি সদস্য হওয়ার সুবাদে মিলেছে এমন অভিনব সুযোগ। সৌরভ ধর্মপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের দশধরী গ্রামের স্বপন মিয়ার ছেলে ও একই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রিপন মিয়ার ভাতিজা।
ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের প্রতিবন্ধী উপকারভোগীদের তালিকার ২৯৫ নম্বর ক্রমিকে সৌরভ মিয়া ও পিতার নাম স্বপন মিয়া, ৩৯৭ নম্বর ক্রমিকে সৌরভ ও মাতার নাম মমতা খাতুন এবং ৪৩৮ নম্বর ক্রমিকে আবারও সৌরভ মিয়া ও পিতার নাম স্বপন মিয়া তালিকাভূক্ত রয়েছে। তবে কবে থেকে সৌরভ একাই তিনজনের প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন তা সমাজসেবা কর্মকর্তা জানাতে না পারলেও তার চাচা ইউপি সদস্য জানিয়েছেন, গত ইউনিয়ন পরিষদ মেয়াদের শেষ দিকে তিনি তার ভাতিজা সৌরভের জন্য প্রতিবন্ধী ভাতার আবেদন করেছিলেন। ওই সময় তিনি একটি জন্ম নিবন্ধন ব্যবহার করেন। এতোদিন পর্যন্ত তালিকার তিন জায়গায় সৌরভের নাম রয়েছে তা তিনি জানতেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু সমাজসেবা কার্যালয় থেকে জানা যায়, সম্প্রতি ওই কার্যালয়ের সকল ভাতাভোগীদের লাইভ ভেরিফিকেশন হয়। এ সময় দেখা যায় তিনটি জন্ম নিবন্ধন ব্যবহার করে সৌরভ একাই তিনটি ভাতা ভোগ করছেন। সৌরভ শারীরিক প্রতিবন্ধী হিসেবে ভাতা পেলেও স্থানীয় একজন জানিয়েছেন সৌরভের তেমন কোনো সমস্যা নেই। সৌরভ রাজমিস্ত্রীর কাজ করে।
সৌরভের বাবা স্বপন মিয়া বলেন, সৌরভের হাতে সমস্যা রয়েছে। হাত ভাল থাকলেতো ভালই ছিল। একাধিক ভাতার বিষয়টি জানতে পেরে অতিরিক্ত ভাতা বন্ধের আবেদন জানানো হয়েছে।
২নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রিপন মিয়া বলেন, আমার ভাতিজার একটি মাত্র জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র রয়েছে। তালিকায় তিনটি স্থানে সৌরভের নাম কখনও দেখিনি। দেখা মাত্রই নাম কর্তনের জন্য আবেদন জানানো হয়েছে।
উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন বলেন, সৌরভ ইউপি সদস্যের নিজ ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও তার ভাতিজা। ইউপি সদস্যের যদি কোনো সম্পৃক্ততা নাও থাকে তাহলে তা অনেক আগেই বিষয়টি শনাক্ত করে দেওয়া উচিত ছিল। জন্ম নিববন্ধন ইস্যু করে ইউনিয়ন পরিষদ। একই ব্যক্তির নামে যদি আলাদা আলাদা জন্ম নিবন্ধন ইস্যু করা হয় তাহলে এমআইএস (ম্যানেজমেন্ট ইনফরম্যাশন সিস্টেম) আলাদা আলাদা হবে। এ ক্ষেত্রে হয়েছেও তাই। লাইভ ভ্যারিফিকেশনে বিষয়টি শনাক্ত হয়েছে।
উপজলো নির্বাহী কর্মকর্তা শীতেষ চন্দ্র সরকার বলেন, ওই উপকারভোগীর অতিরিক্ত ভাতা বন্ধের পাশাপাশি একই ব্যক্তিকে আরও দুইটি জন্ম নিবন্ধন দেওয়ার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com